এবার টাকা আয় করুন ফ্রিল্যান্স টেকনিক্যাল রাইটিং করে

0
382
এবার টাকা আয় করুন ফ্রিল্যান্স টেকনিক্যাল রাইটিং করে

Tusohian

I'm student of Computer Science & I want to build up my carrier as a programmer/software engineer.
I am also a photographer of PhotoBangladesh.com . I love to take the natural and creative photography.
I'm also a SEO Expert and woking on oDesk since 2 years.
এবার টাকা আয় করুন ফ্রিল্যান্স টেকনিক্যাল রাইটিং করে

ফ্রিল্যান্স রাইটার হিসেবে কাজ করে টাকা আয় করা বেশ সহজ একটি কাজ, যেহেতু বেশী টেকনিকাল ট্রেনিং বা সফটওয়্যার শিক্ষার প্রয়োজন পরে না। তবুও কিছু বুদ্ধি খাটিয়ে ঠিকঠাক মত আবেদন ও লেখালেখি করতে পারলে কাজ পাওয়াও সহজ হবে সাথে সহজ হয়ে ওঠবে কাজ থেকে ভালো রেটিং পাওয়াও। এই লেখালেখির কাজের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে টেকনিক্যাল রাইটিং। চলুন এ নিয়ে বিস্তারিত দেখে নেয়া যাক।

টেকনিক্যাল রাইটিং কি?

একদম সহজ ভাষায় টেকনিক্যাল রাইটিং জটিল কোন জিনিষকে সহজ ভাষায় লেখা। আরও সহজ ভাবে বললে, টেকনিক্যাল রাইটিং হল সেইসব লেখা যা কোন প্রশাসনিক, বৈজ্ঞানিক বা মেকানিক্যাল কার্যক্রম কে সহজ, সাবলিল এবং বিস্তারিত ভাবে উপস্থাপন করে থাকে। মুলত নিচের তিন প্রকার লেখাকে টেকনিক্যাল রাইটিং এর অন্তর্গত বলা হয়।
১। কোন টেকনিক্যাল বিষয়ের উপর লেখা যেমন কম্পিউটার সিস্টেম, পার্থিব রীতিনীতি, চিকিৎসা পদ্ধতি, বিজ্ঞানের কোন সূত্র ইত্যাদি।
২। টেকনোলজি বিষয়ে লেখা যেমন সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ওয়েবসাইট ইত্যাদি।
৩। কোন কিছু কিভাবে করতে হবে (বিসয়বস্তু যাই হোক না কেন)। যেমন কম্পিউটার কিভাবে সেট আপ দিতে হয়, মোটর সাইকেল কিভাবে চালাতে হয় ইত্যাদি।

আশা করি টেকনিক্যাল রাইটিং এর ব্যাপারে আপনার ধারনা পরিষ্কার হল। আমারা এখানে কিভাবে টেকনিক্যাল রাইটিং দিয়ে outsourcing করে টাকা আয় করবেন তা নিয়ে আলোচনা করবো।

কারা আপনাকে টেকনিক্যাল রাইটিং এর জন্য অনলাইন এ চাকরি দিবে:

১। Operational Company: Operational Company মানে হল সেইসব কোম্পানি যাদের কার্যপদ্ধতি দরকার। ধরুন একটি টেলিভিশান কোম্পানি। তাদের টেলিভিশান কিনলে কিভাবে চালাবেন তার জন্য একটি বিস্তারিত ম্যানুয়াল লাগবে। সত্যিকার অর্থে সব কোম্পানিই Operational Company. আপনি একটি সাধারন ওয়েবসাইট এর কথাই ধরুন। এখানে কিভাবে register, sign in করবেন, privacy policy ও terms of use, লেখা দিবেন কিভাবে অথবা পাসওয়ার্ড হারিয়ে গেলে কি করবেন তার জন্য টেকনিক্যাল রাইটার দরকার । যেমন একটি freelance marketplace এ টেকনিক্যাল রাইটিং ক্যাটাগরিতে এই বিজ্ঞাপন টি দেওয়া হয়েছে।

– Advanced Planning and Optimisation/Supply Chain Management
· Creating process documents on Supply Network Planning
· Work Instructions
· Process Flows
· Must have experience in RWD Uperform

must be available in skype and teamview must be available in australia time for quick discussion and have good knowledge of SAP APO and rwd uperform . Job will be is to document the above process for training purposes
will be 1-2 hrs job daily”

২। যেকোনো শিক্ষামূলক ওয়েবসাইট আপনাকে কাজ দিতে পারে বিভিন্ন শিক্ষামূলক লেখার জন্য তা যে বিষয়ের উপরই হোক না কেন। যেমনঃ

Rate: $5/hr-$10/hr.

I am in need of a Mathematics expert who can work long time for me. I am Mathematics teacher and content generator and always in need of help. Please only bid if you have experience in CCSS.I am looking forward for your proposals. Low hourly rates will be appreciated.

৩। Article authority website এবং অনলাইন পত্রিকাঃ বিভিন্ন Article authority website যেমন ehow.com, examiner.com. আপনি অবাক হতে পারেন কিন্তু এরাও freelance marketplace থেকে লেখক নিয়োগ দেয়, কম টাকায় পাওয়া যায় বলে। অনলাইন পত্রিকায় বিজ্ঞান, টেকনোলজি পাতায় লেখার জন্যও আপনি কাজ পেতে পারেন।
কিভাবে ভালো টেকনিক্যাল রাইটার হওয়া যায় :

টেকনিক্যাল রাইটিং এর মুল উদ্দেশ্য হল কোন কিছুর সমাধান করা। ঠিক যেভাবে লেখলে সমস্যার সমাধান হবে সেভাবেই লেখা উচিত।

টেকনিক্যাল রাইটিং এর ক্ষেত্রে সমস্যার সমাধান দেওয়াটা মুখ্য। বাকি সবকিছুই গৌণ। তার মানে এই না যে বানান ব্যাকরণগত ভুল গ্রহণযোগ্য।

ভালো টেকনিক্যাল লেখা হল সেই লেখা যা যাদের দরকার নেই তাদের ভালো লাগেনা।

যাই হোক টেকনিক্যাল লেখায় ভালো করতে হলেঃ
১। সহজ শব্দ ব্যাবহার করতে হবে। যেমন fatigued’ এর পরিবর্তে ’tired’.
২। বিস্তারিত ভাবে যতদ্রুত সম্ভব লেখা শেষ করতে হবে।
৩। পয়েন্ট অনুসারে লেখুন। আপনি চিন্তা করে দেখুন একটা অংক যদি রচনার মত সমাধান করা হয় তাহলে কি আপনি বুঝতে পারবেন?
৪। ছবি, screenshot, screen capture ভিডিও যা দিলে সহজে বুঝা যায় তাই দিন।

গুগল এ সার্চ দিলে আরও অনেক টিপস পাবেন। কিন্তু মুল কথা হলঃ

টেকনিক্যাল রাইটিং মুলত subject based লেখা। আপনি অনেক ভালো লেখেন কিন্তু android সম্পর্কে কিছু জানেন না। তাহলে তো আর আপনি android development নিয়ে কিছু লেখতে পারবেন না। কাজেই যার যে বিষয়ে পড়াশোনা আছে সে বিসয়েই লেখার চেষ্টা করবেন।

যদিও সবকিছু লেখতেই অনেক কিছু জানতে হয়, “ঘুম আসেনা” নিয়ে কবিতা লেখতে আপনার যতটা জানতে হবে, “how to treat insomnia” নিয়ে লেখতে অনেক বেশি জানতে হবে।
প্রচুর চর্চা করুন। এটা আমরা সবাই জানি।

সবশেষে ভালো ইংরেজি লেখতে হবে:

“How is it possible?please tale me.I am expat in English writing.
par day salary amount? If you tale me i am inspire and writing?” – এমন ইংরেজি দিয়ে আর যাই হোক, কাজ পাওয়া যাবেনা।

ইন্টারনেট এ কোন কিছু শেখার জন্য অনেক ওয়েবসাইট একসাথে ঘাটাঘাটি করুন।
১। কিছু ওয়েবসাইট অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে। সেখানে আপনি সব বিষয়ে ধারনা পাবেন।
২। কিছু ওয়েবসাইট দুই একটা বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবে। সেটা শুধু ওই বিষয়ে কিভাবে professional হওয়া যায় তার জন্য।

প্রথম শ্রেণীর ওয়েবসাইট থেকে আপনি মৌলিক ধারনা নিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণীর ওয়েবসাইট ব্যাবহার করতে পারেন। তাহলে আগে ব্যাপারটা সহজ হবে পরে আপনি কঠিন জিনিস শিখবেন।


 logo এবার টাকা আয় করুন ফ্রিল্যান্স টেকনিক্যাল রাইটিং করেভালো লাগলে Photo Gallery of Bangladesh থেকে ঘুরে আসতে পারেন ।logo এবার টাকা আয় করুন ফ্রিল্যান্স টেকনিক্যাল রাইটিং করে

                                 আর এই টিউনটি পূর্বে Priyo টেক কমিউনিটি পোর্টালে প্রকাশিত হয়েছিলো ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

8 − one =