অনলাইনে ব্যক্তিগত ছবি নিরাপদে রাখতে কিছু সতর্কতা

0
315

নিরাপদ অনলাইনে ব্যক্তিগত ছবি নিরাপদে রাখতে কিছু সতর্কতাব্যক্তিগত ছবি নিরাপদে রাখতে কিছু সতর্কতা অবলম্বন জরুরি। অন্যথায় অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। স্পর্শকাতর ও প্রকাশ অযোগ্য ছবি বিব্রতকর অবস্থায় ফেলতে পারে। এজন্য যে কাজগুলো করা প্রয়োজন।

দ্রুত ডিলেট করা

মোবাইল ফোনে ধারণ করা গোপন ছবি দ্রুত ডিলেট করে ফেলাই উত্তম। শখের বসে তোলা ব্যক্তিগত ওই ছবিগুলো যাতে আপনাকে লজ্জায় ফেলতে না পারে সেজন্য এ সাবধানতা অবলম্বন খুবই জরুরি।

গোপন ছবি ক্লাউডে নয়

অনলাইনে কোনো তথ্য গোপন রাখা খুবই কঠিন। সেটা যতই নিরাপত্তার সঙ্গে রাখা হোক না কেন। তাই গোপন ছবি ক্লাউডে না রাখাই ভালো বলে পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ও আইফোনের সাহায্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবে গুগল ড্রাইভ কিংবা ড্রপবঙ্রে মতো ক্লাউড স্টোরেজে ব্যাকআপ রাখা যায়। স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যাকআপ না করে ম্যানুয়ালি তা সংরক্ষণ করা করা উচিত। এছাড়া ক্লাউডে গোপন ছবি থাকলে তা ডিলেট করে দেয়া উচিত।

পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা

স্মার্টফোনের সব সময় শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা উচিত। স্মার্টফোনে কোনো গোপন ছবি থাকে তাহলে পাসওয়ার্ড সেটিকে হ্যাকারদের কিংবা হঠাৎ করে প্রকাশিত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করবে।

এতে করে স্মার্টফোন হারিয়ে গেলেও কেউ লগইন করে ব্যক্তিগত গোপন ছবি সহজে হাতিয়ে নিতে পারবে না। এজন্য সর্বদা যথেষ্ট জটিল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা উচিত।

ফিশিং এড়িয়ে চলা

সাইবার অপরাধীরা গ্রাহকদের তথ্য হাতিয়ে নিতে ফিশিং প্রতারণার আশ্রয় নেয়। এতে ব্যক্তিগত তথ্য যেমন_ ব্যবহারকারীর নাম ও পাসওয়ার্ড, ক্রেডিট কার্ডের তথ্য ইত্যাদি সংগ্রহ করা হয়। দুর্বৃত্তরা এ পদ্ধতিতে কোনো সুপ্রতিষ্ঠিত ওয়েবসাইটের নামের আড়ালে মানুষের কাছ থেকে তথ্য হাতিয়ে নিয়ে থাকে। ব্যবহারকারীরা সেটাকে আসল সাইট ভেবে সেখানে নিজের তথ্য দিয়ে দেয়। এসব তথ্য কাজে লাগিয়ে ওই প্রতারিতরা গ্রাহকদের সর্বস্ব লুটে নেয়।

ছবি তুলুন ইন্টারনেট সংযুক্ত ডিভাইস এড়িয়ে

গোপন ছবি তোলার ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের পাশাপাশি ইন্টারনেট উপযোগী ক্যামেরার ব্যবহার এড়িয়ে চলতে হবে। শুধু ইন্টারনেট সংযোগবিহীন ক্যামেরায় ছবি তোলা নয়, গোপন ছবি তোলার পর তা সংরক্ষণের ডিভাইসটিতেও সেরূপ হওয়া উচিত। তাহলে শতভাগ নিরাপদে থাকবে গোপন ছবি।

একটি উত্তর ত্যাগ