৭ গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন

0
647

গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ্লিকেশন ৭ গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনমোবাইল প্রযুক্তির দ্রম্নত অগ্রগতির পেছনে অন্যতম ভূমিকা রাখছে যে প্রযুক্তি তার নাম স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম। বিশেষ করে সার্চ জায়ান্ট গুগল মোবাইল ফোনের জন্য অ্যান্ড্রয়েড নামের অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করে স্মার্টফোনের জগতকে করে তুলেছে আরো বিসত্মৃত ও ব্যাপক। বর্তমানে স্মার্টফোন জগতে এক নম্বর অবস্থানে রয়েছে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম। এরপর রয়েছে আইওএস – যা অ্যাপল আইফোনে ব্যবহৃত হয়, সিমবিয়ান, ব্ল্যাকবেরি ইত্যাদি।

দেশের বাজারে স্যামসাং, সনি এরিকসনসহ বেশকিছু কোম্পানির অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন রয়েছে। এটি অনেকটা কম্পিউটারের মতোই কাজ করে। কম্পিউটার যেমন পছন্দসই ব্র্যান্ড দেখে কিনে তাতে অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজের যে কোনো সংস্করণ কিংবা লিনাক্স ইন্সটল করা যায়, স্মার্টফোনগুলোতেও তেমনি অ্যান্ড্রয়েড ইন্সটল করে ব্যবহার করা যায়। তবে এখন পর্যন্ত অ্যান্ড্রয়েড উপযোগী স্মার্টফোনে অন্য কোনো অপারেটিং সিস্টেম ইন্সটল করা যায় না। সম্প্রতি মজিলা ফাউন্ডেশন জানিয়েছে তারা একটি স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করতে যাচ্ছে যা অ্যান্ড্রয়েড উপযোগী মোবাইলে ইন্সটল করা যাবে এবং যেটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস-এর সঙ্গে প্রতিযোগিতা করবে।

জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে আইফোন উপরে থাকলেও অপারেটিং সিস্টেমের উপর ভিত্তি করে সম্প্রতি পরিচালিত এক জনপ্রিয়তায় দেখা গেছে অ্যান্ড্রয়েড জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। এটি জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকার অন্যতম কারণ হচ্ছে এটি ওপেন সোর্স এবং এর জন্য প্রচুর বিনামূল্যের অ্যাপ্লিকেশন পাওয়া যায়। অনেকে একে অত্যধিক দামী আইফোনের বিকল্প হিসেবে আখ্যায়িত করলেও কেউ কেউ আবার একে আইফোনের চেয়েও ভালো বলেও দাবি করেন। এর কারণ, অ্যান্ড্রয়েড উন্মুক্ত একটি অপারেটিং সিস্টেম। ব্যবহারকারী চাইলেই এটিকে নিজের মতো করে সাজিয়ে নিতে পারেন এবং উন্নতি করতে পারেন। আর সঙ্গে হাজার হাজার ফ্রি অ্যাপ্লিকেশনের সমাহার তো রয়েছেই।

অ্যান্ড্রয়েড মার্কেট থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোডযোগ্য এসব অ্যাপ্লিকেশনের মধ্য থেকে আজ আমরা ৭টি বিশেষ অ্যাপ্লিকেশনের কথা জানবো যা বিভিন্ন সময়ে আপনার কাজে আসতে পারে।

অ্যাডভান্সড ইংলিশ ডিকশনারি

এটি মূলত ইংলিশ টু ইংলিশ ডিকশনারি। অর্থাৎ, বাংলায় অর্থ নয়, বরং ইংরেজি শব্দের সমার্থক শব্দ, সংজ্ঞা, বিপরীত শব্দ, ব্যবহার ইত্যাদি জানতে অ্যাডভান্স ইংলিশ ডিকশনারি একটি জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন। ইংরেজি শিখতে আগ্রহী কিংবা অফিসিয়াল কাজে ইংরেজি ব্যবহারের সময় মোবাইল ফোনে থাকা এই অ্যাপ্লিকেশনটি সহজেই আপনাকে বিভিন্ন ইংরেজি শব্দের যথাযথ ব্যবহার বলে দিতে পারে। এই অ্যাপ্লিকেশনটির বিশেষত্ব হচ্ছে এটি ইন্টারনেট ছাড়াই কাজ করে। অধিকাংশ ডিকশনারিই শব্দ খোঁজার সময় ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হয়। কিন্তু এই অ্যাপ্লিকেশন একবার ডাউনলোড করে নিলেই যথেষ্ট, এরপর যে কোনো সময় ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই ডিকশনারিতে শব্দ খোঁজা যাবে।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.mobisystems.msdict.embedded.wireless.wordnet

কম্পাস

দিক নির্ণয়ের জন্য একসময় মানুষকে নির্ভর করতে হতো সূর্য অথবা তারার উপর। কিন্তু আধুনিক যে সব প্রযুক্তি মানুষের দিক নির্ণয়ের অসুবিধাকে দূর করে দিয়েছে তার মধ্যে কম্পাস অন্যতম। ইদানীং কম্পাসের ব্যবহার খুব একটা দেখা না গেলেও সময়ে-অসময়ে দিক নির্ণয়ের প্রয়োজন হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু না। আর ঠিক দরকারের সময়ই আপনার প্রিয় মোবাইল ফোনটি যদি কম্পাসের কাজ করে দেয়, তাহলে নিশ্চয়ই মন্দ হবে না।

মোবাইল ফোনকে কম্পাস হিসেবে ব্যবহার করার জন্য মোবাইলের সঙ্গে আলাদা করে কম্পাস লাগানোর প্রয়োজন নেই, অ্যান্ড্রয়েড চালিত হ্যান্ডসেটের জন্য কম্পাস নামের এই অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে নিলেই আপনার মোবাইলের পর্দায় ভেসে উঠবে কম্পাস। এই কম্পাস সঠিকভাবে পূর্ব-পশ্চিম এবং উত্তর-দক্ষিন দিক তো দেখাবেই, উপরন্তু আপনার ভৌগোলিক অবস্থান ল্যাটিচিউট এবং লংগিচিউট হিসাবেও দেখাবে একদম কাঁটায় কাঁটায়। নতুন কোনো শহরে, গ্রামে বা প্রত্যন্ত অঞ্চলে গেলে আপনার স্মার্টফোনের এই কম্পাসটি দারুণ কাজে দেবে।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.apksoftware.compass

ড্রপবক্স

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের অনেকেই হয়তো ড্রপবক্সের নাম শুনে থাকবেন। এটি একটি সফটওয়্যার যা আপনার কম্পিউটারে নতুন একটি ভার্চুয়াল হার্ড ড্রাইভের সৃষ্টি করে। এই হার্ডড্রাইভে আপনি যেসব ফাইল রাখবেন তা আপনার লোকাল কম্পিউটারে ছাড়াও ক্লাউডে অর্থাৎ ইন্টারনেটে আপলোড ও জমা হবে। এতে করে জরুরি ফাইলগুলো একাধিক কম্পিউটারে একইসঙ্গে পেতে পারবেন। এই কাজের জন্য ড্রপবক্স তুমুল জনপ্রিয় একটি সেবা।

তবে মোবাইল থেকে ফোন নাম্বার, ছবি, গান ইত্যাদি কম্পিউটারে ট্রান্সফার করতে ডাটা কেবলের পরিবর্তে ড্রপবক্সের এই অ্যাপ্লিকেশনও ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে আপনার তথ্যাদি একইসঙ্গে কম্পিউটারে ও মোবাইল ফোনে জমা থাকবে। তবে এখানে উল্লেখযোগ্য, ড্রপবক্স ব্যবহার করার সময় ইন্টারনেট ব্যবহৃত হতে থাকে। তাই বড় আকারের ফাইলের ক্ষেত্রে ড্রপবক্স ব্যবহার না করাই ভালো। কেননা, এতে করে আপনার ইন্টারনেট খরচ বেড়ে যাবে। কেবল ছোট আকারের ছবি বা টেক্সট ফাইল ট্রান্সফার এবং সিংক্রোনাইজড রাখার কাজেই ড্রপবক্স ব্যবহার করা শ্রেয়।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.dropboX.android

গুগল ট্রান্সলেটর

গুগল ট্রান্সলেটরের নাম হয়তো অনেকেই শুনে থাকবেন। গুগলের এই টুলটি ব্যবহার করে বেশ কিছু সাধারণ ভাষায় শব্দ বা বাক্য অনুবাদ করা যায়। সম্প্রতি পরীক্ষামূলকভাবে বাংলা ভাষাও যোগ হয়েছে গুগল ট্রান্সলেটরে। এতে করে ১০০ ভাগ সঠিক অনুবাদ পাওয়া না গেলেও কিছুটা ধারণা পাওয়া যায় নির্দিষ্ট কোনো শব্দের বা বাক্যের অর্থ কী হতে পারে। গুগল ট্রান্সলেটর অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে কেবল অভিধানের প্রয়োজনও ফুরিয়ে নিতে পারবেন। এছাড়াও হঠাৎই কখনো জার্মান ভাষায় কাউকে ধন্যবাদ জানানোর প্রয়োজন পড়লেও এই অ্যাপ্লিকেশনটি বেশ কাজে দেবে।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.google.android.apps.translate

ম্যাপস

এটিও গুগলের তৈরি একটি বৈপস্নবিক সেবা। পৃথিবীর যেখানেই থাকুন না কেন, এমনকি এই বাংলাদেশের জন্যও প্রতিটি রাস্তার নাম, মানচিত্র এবং স্যাটেলাইট ছবি দেখতে পারবেন গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে। আপনার অ্যান্ড্রয়েডে এটি ইন্সটল করে রাখলে নতুন কোথাও গেলে রাস্তা চিনতে কাজে আসতে পারে যে কোনো সময়। এছাড়াও ঘরে বসে পৃথিবী ভ্রমণের ক্ষেত্রেও অ্যাপ্লিকেশনটি খারাপ না। কেননা, এতে রয়েছে স্ট্রিট ভিউ সুবিধা, যা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কিছু দেশের রাস্তাঘাটের ছবি এমনভাবেই দেখতে পাবেন যেন আপনিই সেখানে হাঁটছেন।

এই অ্যাপ্লিকেশনটিও ইন্টারনেট থেকে তথ্য ডাউনলোড করে তাই এটি ব্যবহারের সময় আনলিমিটেড ডাটা পস্ন্যান অথবা ওয়াই-ফাই ল্যানে যুক্ত থাকলে অতিরিক্ত ইন্টারনেট খরচ বাঁচানো সম্ভব।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.google.android.apps.maps

পাওয়ার কন্ট্রোল উইজেট

ওয়ারলেস কানেকশন চালু বা বন্ধ করা, নেটওয়ার্ক কানেকশন বন্ধ করা, ওয়াই-ফাই, জিপিএস, বস্নুটুথ, সিংক্রোনাইজেশন ইত্যাদি কাজগুলো ডিফল্ট অবস্থায় সব অ্যান্ড্রয়েড সেটেই বেশ সহজ। তবে যারা সহজতর উপায় খুঁজছেন, তাদের জন্যই পাওয়ার কন্ট্রোল উইজেট। এটি সবকিছু একসঙ্গে আপনার স্ক্রিনে এনে দেবে ফলে কেবল আলতো চাপের (ট্যাপ) মাধ্যমেই আপনি জরুরি প্রায় সব কাজ সারতে পারবেন দ্রম্নততম সময়ে। এই অ্যাপ্লিকেশনটির বিনামূল্যের ও পেইড দু’টি সংস্করণ রয়েছে। তবে বিনামূল্যের সংস্করণটি দিয়ে ভালোভাবেই কাজ চালিয়ে নেয়া যায়।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=at.abraXas.powerwidget.free

পালস নিউজ

পালস নিউজ কোনো সংবাদ সংস্থার নাম নয়, বরং এটি এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন যেটি ব্যবহার করে আপনি আপনার পছন্দসই সংবাদ সংস্থার সোর্স (লিংক) যোগ করে রাখতে পারবেন। বিষয়ভিত্তিক অনুসারে সাজিয়ে রাখলে পরবর্তী যে কোনো সময়ে এই অ্যাপ্লিকেশন খুললেই আপনার পছন্দের সংবাদমাধ্যমের সর্বশেষ সংবাদগুলো সাজানো অবস্থায় পেয়ে যাবেন পালস নিউজে। যারা সবসময়ই খবরের সঙ্গে আপডেটেড থাকতে চান, আবার এসএমএস-এ বাড়তি টাকা খরচ করতে চান না, তাদের জন্য দারুণ একটি অ্যাপ্লিকেশন এই পালস নিউজ।

ডাউনলোড লিংকঃ
https://market.android.com/details?id=com.alphonso.pulse
অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে খুঁজলে বিভাগ বা ক্যাটেগরি অনুসারে আরো হাজার হাজার বিনামূল্যে ব্যবহারযোগ্য অ্যাপ্লিকেশন পাবেন। তবে যে কোনো অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করার আগে ইন্টারনেটে সার্চ করে সেই অ্যাপ্লিকেশন সম্পর্কে ব্যবহারকারীদের মতামত বা রিভিউ পড়ে নেয়া ভালো। কেননা, অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে অনুমোদন ছাড়াই অ্যাপ্লিকেশন ছেড়ে দেয়া যায় বলে প্রায়ই ম্যালিশিয়াস বা ক্ষতিকারক অ্যাপ্লিকেশন পাওয়া যেতে পারে অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে। তবে এর হার সম্প্রতি অনেক কমে এসেছে। তবুও যেই-সেই অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল না করাই নিরাপদ থাকার শ্রেষ্ঠ উপায়।

একটি উত্তর ত্যাগ