৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরির পরিকল্পনায় এবার ২০টি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণা

0
932

তৈরির পরিকল্পনা ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরির পরিকল্পনায় এবার ২০টি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণাসারাদেশে ফ্রিল্যান্সার তৈরির প্রশিক্ষণ শিগগিরই শুরু হচ্ছে। এরই মধ্যে প্রশিক্ষণদানের জন্য মনোনীত (নিয়োগকৃত) ২০টি প্রশিক্ষণের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। অারও ৪৪টি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের নাম মঙ্গলবার রাতের মধ্যেই ঘোষণা করা হতে পারে বলে তথ্য এবং যোগাযোগ প্রযুক্তি (অাইসিটি) বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

মোট ৬৪টি প্রতিষ্ঠানকে পুরো বাংলাদেশ ভাগ করে দেওয়া হবে। সেই হিসেবে একেকটি প্রতিষ্ঠান একেকটি জেলায় কাজ করার সুযোগ পাবে। ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ দানের জন্য ১৮১টি প্রতিষ্ঠান অাগ্রহ প্রকাশ করলে (ইওঅাই) তার মধ্য থেকে ৬৪টি প্রতিষ্ঠান বেছে নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, সরকার অাইসিটি বিভাগের মাধ্যমে ‘লার্নিং অ্যান্ড অার্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের’ অাওতায় ৭০ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে। এ কাজে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ১৮০ কোটি টাকা।

১৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরির পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হলেও পরে অারও ১৫ হাজার বাড়িয়ে ৭০ হাজার করা হয়। এসব ফ্রিল্যান্সারের কাছ থেকে অন্তত অারও ৭০-৮০ হাজার ফ্রিল্যান্সার হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ সহায়তা পাবে বলে মনে করছে অাইসিটি বিভাগ।

অাইসিটি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, মনোনীত ২০টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বুধবার রাজধানীর অাগারগাঁওয়ে বিসিসি ভবনে অাইসিটি বিভাগের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে। প্রশিক্ষণ চলতি মাস থেকেই শুরু হবে। অার শেষ হবে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে।

প্রথম পর্যায়ে মনোনীত ২০টি প্রতিষ্ঠান হলো (মঙ্গলবার যাদের নাম প্রকাশ করে সংশ্লিষ্টদের চিঠি পাঠানো হয়েছে) অাইবিসিএস-প্রাইমেক্স সফটওয়্যার (বাংলাদেশ) লি‌‌‌মিটেড, নিউজেন টেকনোলজি, ব্যাবিলন রিসোর্সেস লিমিটেড, ক্রিয়েটিভ অাইটি লিমিটেড, অরিম্পো ইনক. লিমিটেড, হেলিক্স অাইটি সলিউশন্স, অাইটি বাংলা লিমিটেড, সিসটেক কম্পিউটার্স লিমিটেড, ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ট্রেনিং ইন্টারন্যাশনাল, এথিকস অ্যাডভান্স টেকনোলজি লিমিটেড, অারএস রংপুর সফট (রংপুর), বিডিজবস ডট কম লিমিটেড, হাসক লিমিটেড, এমসিসি লিমিটেড, বেইজ লিমিটেড, সেলভিশন টেকনোলজি, রিমডেন (রাইমডেন) টেকনোলজিস লিমিটেড, বিডি টেক সার্ভিসেস লিমিটেড, এমার্জিং কমিউনিকেশন্স লিমিটেড ও স্পাইডার অাইটি।

প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়োগ পত্রে বলা হয়েছে, বিভিন্ন গণমাধ্যম এবং ফেসবুক ও অনলাইন (ওয়েবসাইট) ব্যবহার করে ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণের জন্য ব্যাপকভিত্তিতে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে অনলাইনে পরীক্ষা গ্রহণ করে প্রশিক্ষণার্থী নির্বাচন করতে হবে। অর্থাৎ প্রশিক্ষণ গ্রহণে অাগ্রহীদের অাগেই একটি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে নির্বাচিত হতে হবে।

ইউনিয়ন পর্যায়ে নারী ফ্রিল্যান্সারদের নিবিড় (বেসিও/অাইটি লিটারেসি) প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। ফ্রিল্যান্সিংয়ে নারীদের ব্যাপক অংশগ্রহণের জন্য প্রশিক্ষণের মেয়াদ ধরা হয়েছে ১৫ দিন বা ৯০ ঘণ্টা (প্রতিদিন ৬ ঘণ্টা করে)। প্রার্থীকে ন্যূনতম এসএসসি বা এইচএসসি পাস হতে হবে।

অন্যদিকে ইউনিয়ন পর্যায়ে পুরুষ ফ্রিল্যান্সারদের ৩ দিন বা ১৮ ঘণ্টা প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রশিক্ষণার্থীকে ন্যূনতম এইচএসসি বা ডিগ্রি পাস হতে হবে।

জেলা বা উপজেলা পর্যায়ে অ্যাডভান্স অাইটি বা অাইসিটি স্পেশালাইজড অাউটসোর্সিং-এর ওপর ১০ দিনের (৬০ ঘণ্টা) প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রার্থীকে ন্যূনতম এইচএসসি বা স্নাতক ডিগ্রিধারী হতে হবে।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে ফ্রিল্যান্সিংয়ে দেশের তরুণরা আয় করেছে ৫ কোটি ডলার। ২০১২ সালে যা ছিল ২ কোটি ডলারের মতো। ফ্রিল্যান্সারদের প্রশিক্ষণে সহায়তা দিতে শিক্ষামন্ত্রণালয় দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি কম্পিউটার ল্যাব এবং ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানা গেছে।

অাইসিটি বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সংশ্লিষ্ট এলাকায় (জেলা, উপজেলা, ও ইউনিয়ন) ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণের অাগে প্রচারণা চালানো হবে। এরপর প্রশিক্ষণের জন্য অাগ্রহীদের বাছাই করা হবে।

অনলাইন মার্কেটপ্লেস ও-ডেস্কের তালিকায় বাংলাদেশ এখন শীর্ষ তিনে অবস্থান করছে। এটিকার্নি, গার্টনার, জেপি মরগ্যান, গোল্ডম্যান স্যাকস সবাই বাংলাদেশকে তথ্যপ্রযুক্তির পরবর্তী গন্তব্যস্থল হিসেবে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here