গুগল বিডির Top সার্চে নায়লা-আঁখি

0
574

সাইবার জগতে ‘সার্চ’ বা ‘খোঁজা’ শব্দ দু’টি খুব শিগগিরই ‘গুগল’ শব্দ দিয়ে প্রতিস্থাপিত হওয়াটা প্রায় অবধারিত। ইতোমধ্যেই গুগল শব্দটি খোঁজা অর্থে ইংরেজি অভিধানে স্থান পেয়েছে।

বিশ্বজুড়ে মানুষ গুগলে কী খোঁজে? জানতে আগ্রহ হতে পারে অনেকের। গুগল সাধারণ মানুষের সেই আগ্রহের কথা বিবেচনা করেই নিয়মিত প্রকাশ করেছে ‘ইয়ার ইন সার্চ’ নামে সার্চের শীর্ষে থাকা শব্দ ও শব্দগুচ্ছের তালিকা।

গুগলের প্রদত্ত তথ্য অনুসারে, google.com.bd তে খোঁজা বাংলাদেশি ব্যক্তিত্বের মধ্যে শীর্ষে আছেন আলোচিত মডেল নায়লা নাঈম। আর এতে খোঁজা অন্যসব ব্যক্তির (দেশি-বিদেশি) মধ্যে তার অবস্থান পঞ্চম।

বাংলাদেশের মানুষদের গুগলে খোঁজা আলোচিত মানুষদের তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন ইন্টারনেটে ব্যক্তিগত নগ্ন ছবি ফাঁস হওয়া অস্কার বিজয়ী হাঙ্গার গেমস খ্যাত নায়িকা জেনিফার লরেন্স। এরপরেই আছেন যথাক্রমে রবিন উইলিয়ামস, সুচিত্রা সেন, জেমস রদ্রিগেজ, নায়লা নাঈম, অমৃতা অরোরা, কৃতি শ্যানন, আঁখি আলমগীর, অর্পিতা খান এবং নেইমার।

বিডির সার্চে শীর্ষে নায়লা-আঁখি গুগল বিডির Top সার্চে নায়লা-আঁখি

তবে সামগ্রিক অনুসন্ধান বিবেচনায় শীর্ষস্থানে রয়েছে শিক্ষা বিষয়ক অনুসন্ধান। গুগলের তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশের আলোচিত অনুসন্ধানে প্রথম স্থানে রয়েছে ‘এসএসসি ফলাফল-২০১৪’। এরপর ক্রমানুসারে রয়েছে- এইচএসসি ফলাফল ২০১৪, বিশ্বকাপ ২০১৪, সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, এনটিআরসিএ, আইপিএল ২০১৪, কিক, ব্যাং ব্যাং এবং ঈদ এসএমএস।

বাংলাদেশে গুগলের কমিউনিকেশন ও পাবলিক অ্যাফেয়ার্স প্রধান জেফরি ইউসুফ বলেন, ‘গুগল সার্চ একটি সাংস্কৃতিক ব্যারোমিটার হিসেবে কাজ করে। যেসব মুখ্য ঘটনা, জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব ও আলোচিত প্রবণতাগুলো সমষ্টিগতভাবে বাংলাদেশিদের জীবনে প্রভাব বিস্তার করেছে সেসবের একটি প্রতিচ্ছবি আমাদের সামনে তুলে ধরে। বেশিরভাগ মানুষই তথ্যের জন্য গুগলের কাছে আসে এবং আমরা বিশ্বাস করি, যে তালিকা আমরা বাংলাদেশের অনুসন্ধানের ওপর তৈরি করেছি সেটা জাতীয় ভাবধারা বা সময়ের সাথে মানানসই।’

এতো জানা গেলে বাংলাদেশের মানুষের খবর। গুগল বিশ্বব্যাপী ২০১৪ সালে কোন বিষয়গুলো মানুষের মনোযোগ কাড়তে সক্ষম হয়েছে সেটাও তুলে ধরেছে গুগল সার্চ।

শীর্ষ ১০ আন্তর্জাতিক আলোচিত অনুসন্ধানের তালিকায় প্রথম অবস্থানে রয়েছে রবিন উইলিয়ামস। এরপরেই রয়েছে- বিশ্বকাপ, এবোলা, মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স, এএলএস আইস বাকেট চ্যালেঞ্জ, ফ্ল্যাপি বার্ড, কনচিটা উরস্ট, আইএসআইএস, ফ্রোজেন এবং সচি অলিম্পিক।

এছাড়াও বিশ্বব্যাপী গুগল ইয়ার ইন সার্চ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার জন্য ইন্টারেক্টিভ ডেটা ভিজুয়ালাইজেশন তৈরি করেছে। এই বার্ষিক ভিডিও দেখা যাবে google.com/2014 এই ঠিকানায়।

আর এই ওয়েবে ঠিকানায় গেলে জানা যাবে আরো চমকপ্রদ তথ্য। মানুষ কত বিচিত্র রকমের তথ্য খোঁজে গুগলে।

বিডির সার্চে শীর্ষে নায়লা-আঁখি2 গুগল বিডির Top সার্চে নায়লা-আঁখিসেলফি শুধু বাংলাদেশ নয় বিশ্বজুড়ে আলোচিত একটি বিষয়। সেলফি নিয়ে যেমন রেকর্ড গড়ার প্রচেষ্টা তেমনি রয়েছে সেলফি তুলতে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনা। এক্ষেত্রে নারী বা পুরুষ কেউই পিছিয়ে নেই। ভালো সেলফি তুলতে গুগলে সার্চ হয়েছে অনেক বেশি। ২০১৪ সালে সেলফি মূলধারায় আকর্ষণ সৃষ্টি করে এবং গত বছরের চেয়ে অনুসন্ধান ৮ গুণ বেড়ে যায়। লোকজন জানতে চেয়েছে কীভাবে ‘আরো ভালো সেলফি’ তোলা যায়, এটি ৬ গুণ বেড়েছে। বাকিরা কেবল জানতে চেয়েছে ‘সেলফি কী’, এটি ২০১৩ এর চেয়ে ৩ গুণ বেড়েছে।

তবে অবাক হলে সত্য যে ‘ছেলেদের সেলফি টিপস’ অনুসন্ধানের শীর্ষে এসেছিল গুগলে। ২০১৪ সালে বিশ্বে ‘গাই সেলফি টিপস’ এবং ‘মেন সেলফি টিপস’ এর অনুসন্ধান করা হয়েছে। কিন্তু কখনোই ‘গার্ল সেলফি টিপস’ এর জন্য অনুসন্ধান করা হয়নি।

একটি সেলফি স্টিক এমন একটি সরঞ্জাম যা ক্যামেরার ফোকাস বাড়িয়ে ভালো সেলফি তুলতে সাহায্য করে। এ বছর ‘সেলফি স্টিক’ এর অনুসন্ধান ১৯ গুণ বেড়েছে।

আর ২০১৪ সালের অনুসন্ধানে শীর্ষ পাঁচ সেলিব্রিটি সেলফির তালিকায় প্রথমে রয়েছে এলেন ডিজেনারেস। এছাড়াও রয়েছেন এমা স্টোন, ওবামা, কিম কার্দাশিয়ান এবং ড্যানসিয়া প্যাট্রিক।

গুগল সার্চে সূর্যকে পেছনে ফেলে এগিয়ে ছিল চাঁদ। গুগলের তথ্য মতে, ২০১৪ সালে সূর্যের তুলনায় দ্বিগুণ সংখ্যায় অনুসন্ধান করা হয়েছিল চাঁদ। পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ বা ‘ব্লাড মুন’ একটি প্রাকৃতিক ঘটনা যাতে চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদকে লাল রঙের দেখায়। এপ্রিলের ঘটনার কারণে এই সালে ‘moon’ এর অনুসন্ধান ব্যাপকভাবে বেড়েছিল।

১৯৬৯ সালে অ্যাপেলো-১১ চাঁদে অবতরণের ৪৫তম বার্ষিকী জুলাই মাসে উদযাপন করা হয়েছিল। একই সময়ে, অ্যাপোলো প্রোগ্রামের সঙ্গে সম্পর্কিত অনুসন্ধান শীর্ষে থেকেছে। নিল আর্মস্ট্রংয়ের জন্য করা অনুসন্ধান বিখ্যাত মহাকাশচারী জন গ্লেন, বাজ অলড্রিন এবং মহাকাশে যাওয়া প্রথম মানুষ ইউরি গ্যাগারিনের জন্য করা অনুসন্ধানগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে৷

যুক্তরাষ্ট্রের লেখিকা, কবি, অধিকার কর্মী, এনটারটেইনার মায়া অ্যাঙ্গেলু মে মাসে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি তার আত্মজীবনী ও কবিতার জন্য বিখ্যাত। তিনি আফ্রিকান-আমেরিকান নাগরিক অধিকার আন্দোলনের অগ্রগামী ছিলেন এবং আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছেন। তিনি অসংখ্য সম্মান লাভ করেছেন। বেঁচে থাকার মূলমন্ত্রের অন্বেষণে পাঠকরা মায়া অ্যাঙ্গেলুর উদ্ধৃতির জন্য অনুসন্ধান করেছে আগের চেয়ে প্রায় ২১ গুণ। ১৯৬৯ সালে প্রকাশিত তার প্রথম আত্মজীবনী ‘I know why the cage bird in the songs’ বইয়ের প্রতি আগ্রহ ৫ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

গুগলের আলোচনায় ছিল পাকিস্তানের মালালা ইউসুফজাই। গত বছরের জাতিসংঘ বক্তৃতার পরে, ‘মালালা ইউসুফজাই’ অনুসন্ধান অক্টোবর মাসে ৭ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ‘মালালা নোবেল পুরস্কার’ ২৯ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর কারণ হলো সে কনিষ্ঠ নোবেল পুরস্কার বিজয়ী।

তবে সবকিছুর চেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে ‘কী করে’ (how) শব্দটি দিয়ে কিছু জানার জন্য।

এছাড়া ২০১৪ সালে কীভাবে, কে, কি, কেন এবং কখন এর অনুসন্ধানের মধ্যে শীর্ষে ছিল ‘কীভাবে’। ‘কে’ এর চেয়ে এর অনুসন্ধান ৮ গুণ বেশি। এরমধ্যে ইন্টারনেট সম্বন্ধে শীর্ষ স্থানীয় প্রশ্নগুলোর মধ্যে রয়েছে ইন্টারনেট কে আবিষ্কার করেছেন, ইন্টারনেট কী, ইন্টারনেট কবে আবিষ্কার করা হয়েছিল, আমার ইন্টারনেট ঠিক কতটা দ্রুত, আমার ইন্টারনেট এত স্লো কেন।

একটি উত্তর ত্যাগ