হ্যাকিং ঝুঁকিতে রয়েছে ৯৭ শতাংশ শীর্ষ পেইড অ্যাপ

0
378

বিনামূল্যের মোবাইল অ্যাপের পাশাপাশি হ্যাকিং ঝুঁকিতে রয়েছে ৯৭ শতাংশ শীর্ষ পেইড অ্যাপ। সাম্প্রতিক এক জরিপ প্রতিবেদনে এমনটাই জানায় মোবাইল সিকিউরিটি ফার্ম আর্সেন টেকনোলজিস। বিনামূল্যের অ্যাপ ব্যবহারকারীদের পাশাপাশি পেইড অ্যাপ ব্যবহারকারীদেরও এ বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া।

অত্যাধুনিক মোবাইল প্রযুক্তি পণ্য উদ্ভাবনের পাশাপাশি প্রতিনিয়তই বাড়ছে বিভিন্ন অ্যাপের চাহিদা। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নিরাপদ অ্যাপ সরবরাহে ব্যর্থ হচ্ছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো। আর্সেন টেকনোলজিসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমচালিত ডিভাইসের ৭৫-৯৭ শতাংশ অ্যাপ হ্যাক করা সম্ভব। প্রতিষ্ঠানটি মোট ১০০ শীর্ষস্থানীয় পেইড অ্যাপ এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় ২০টি বিনামূল্যের অ্যাপ নিয়ে জরিপ প্রতিবেদনটি তৈরি করে।

প্রতিষ্ঠানটি এক বিবৃতিতে জানায়, অ্যান্ড্রয়েড প্লাটফর্মের পেইড অ্যাপের মধ্যে ৯৭ শতাংশই হ্যাকিং ঝুঁকিতে রয়েছে। আইওএস প্লাটফর্মের ক্ষেত্রে এ ধরনের ঝুঁকি ৮৭ শতাংশ। প্রতিষ্ঠানটি বিনামূল্যের ৮০ শতাংশ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপে নিরাপত্তাজনিত ত্রুটি খুঁজে পায়। অন্যদিকে বিনামূল্যের আইওএস অ্যাপগুলোর মধ্যে ৭৫ শতাংশে রয়েছে নিরাপত্তাজনিত ত্রুটি। সংশ্লিষ্ট অ্যাপগুলোর বাগ বা ত্রুটিকে কাজে লাগিয়ে একটি ডিভাইসের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয়া সম্ভব বলে সতর্ক করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে ভিন্ন এক প্রতিবেদনে ওয়েব ও মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের জন্য সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ইন্দাসফেস জানায়, ই-কমার্সসহ অর্থ লেনদেনে ব্যবহূত ৪০ শতাংশ মোবাইল অ্যাপই নিরাপদ নয়। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মোট লেনদেনের একটি বড় অংশই হয় মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে। আর এ প্রেক্ষাপটে অ্যাপ একটি জরুরি বিষয়। এছাড়া ই-কমার্স খাতের প্রসার হচ্ছে উল্লেখযোগ্য হারে। এ খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য মোবাইল ডিভাইস একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। কিন্তু নিরাপদ অ্যাপের অভাবে খাতটিতে সাইবার হামলা বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সাম্প্রতিক সময়ে মোবাইল ডিভাইসের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে। আর এ ডিভাইসগুলোয় সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য বিস্তার করে আছে অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএসভিত্তিক অ্যাপগুলো। কিন্তু এ অ্যাপগুলোয় তথ্য লেনদেন যথেষ্ট নিরাপদ না হওয়ায় সাইবার হামলার ঝুঁকি বেড়েই চলেছে। গত কয়েক বছরে মোবাইল ডিভাইসে থাকা আর্থিক তথ্য হ্যাক করে অর্থ আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে অনেক। সাইবার বিশেষজ্ঞরা এ ধরনের হামলা প্রতিরোধে যথেষ্ট চেষ্টা করলেও আদতে অ্যাপগুলোর নিরাপত্তা অবস্থা আর্সেন টেকনোলজিস এবং ইন্দাসফেসের প্রতিবেদনে স্পষ্ট হয়েছে।

আর্সেন টেকনোলজিসের বিশেষজ্ঞদের মতে, মোবাইল অ্যাপগুলোর নিরাপত্তা ত্রুটি দূর করার পাশাপাশি বিভিন্ন তথ্য লেনদেনের ক্ষেত্রে এনক্রিপটেড প্রযুক্তি ব্যবহার করা যায় কিনা, সে বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

বিশ্লেষকদের মতে, অ্যাপগুলোর নিরাপত্তা বাড়ানো সম্ভব না হলে আগামীতে সাইবার অপরাধের মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়তে পারে। এ বিষয়ে ইন্দাসফেসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আশীষ ট্যান্ডন জানান, মোবাইল ডিভাইসের কারণে অ্যাপের ব্যবহার বাড়ছে। আর এ কারণে তথ্য ও অর্থ লেনদেনে অ্যাপের নিরাপত্তা বাড়ানো এখন সময়ের দাবি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here