মাগনা পাইলে আলকাতরা ও খাবেন তাইনা? আর যদি ফ্রী ওয়াইফাই পান? ফ্রী ওয়াইফাই ব্যবহারের আগে ৯টি টিপস অবশ্যই দেখুন

1
747

মাগনা পাইলে আলকাতরা ও খাবেন তাইনা? আর যদি ফ্রী ওয়াইফাই পান? ফ্রী ওয়াইফাই ব্যবহারের আগে ভাই আরেকটু ভাবেন। হোটেল কিংবা কফি শপে কারো জন্যে বসে অপেক্ষা করছেন, অপেক্ষা করা ছাড়া আর কোন কাজ নেই। হটাত করেই লক্ষ্য করলেন সেখানে ওয়াইফাই হটস্পট আছে, সময় কাটাতে চিন্তা ভাবনা না করে খুশি মনেই কানেক্টেড হয়ে গেলেন। এমন ঘটনা আমাদের ক্ষেত্রে প্রায়ই ঘটে থাকে, তাইনা? আপনি জানেন কি, আপনি যতটুকু সিকিওর ভেবে ওয়াইফাই স্পটে কানেক্টেড হচ্ছেন সেটা ততটুকু সিকিওর্ড নাও থাকতে পারে!!!

বেশিরভাগ ওয়াইফাই স্পট ই আপনার দেয়া ইনফরমেশন গুলো এনক্রিপ্ট না করেই ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয় যে কারণে এগুলো আনসিকিউর্ড কিংবা আনপ্রটেক্টেড বলে বিবেচিত হয়।। তাই পাব্লিক ওয়াইফাই ব্যবহারে নিজেকে কিভাবে সিকিওরড রাখতে হবে সেটা নিয়েই টিউনারপেজে আজকের টিপসঃ

1. কানেক্টেড হবার আগে তিনটি ষ্টেপ ফলো করুন,

  • ১.থামুন
  • ২. চিন্তা করুন
  • ৩. কানেক্ট করুন।

সিকিউরিটি প্রিকশান গুলো পড়ে দেখুন, বুঝতে চেষ্টা করুন সেটা কেন দেয়া হল। তারপর ইন্টারনেটের বেনেফিট উপভোগ করুন। মনে রাখবেন, safety comes first.

2. আপনার মেশিনটাকে পরিচ্ছন্ন রাখুন, সিকিউরিটি সফটওয়্যারগুলো সবসময় আপডেটেড রাখুন। লেটেষ্ট অপারেটিং সিষ্টেম, ব্রাউজার, এপস ব্যবহারে আপনি অনেকখানি সিকিওরড থাকবেন।

3. মনে রাখবেন, বেশিরভাগ ওয়াইফাই কানেকশনই আনপ্রোটেক্টেড, আপনার দেয়া ইনফরমেশন গুলো এনক্রিপ্ট না করেই সেগুলো ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়া হয়। ফলে খুব সহজেই আপনার ফেসবুক কিংবা অনলাইন ব্যাংক একাউন্ট হ্যাক হয়ে যেতে পারে। আরো জানতে www.onguardonline.gov/media এই লিংকে গিয়ে ভিডিওটি দেখতে পারেন।

4. অনলাইন ব্যাংক একাউন্ট, শপিং, সোসিয়াল নেটওয়ার্কিং কিংবা ই-কমার্সের মত গুরুত্বপূর্ণ সাইটগুলোতে ব্রাউজ করার সময় এনক্রিপ্টেড ওয়েব ইউআরএল ব্যবহার করুন। ওয়েব এড্রেস এর আগে https:// থাকলে বুঝতে পারবেন সেটা এনক্রিপ্টেড ওয়েব ইউআরএল ।

5. যে হটষ্পট গুলোর বানান ভুল কিংবা অবৈধ মনে হয় সেগুলো এড়িয়ে চলুন। অনেক সময় হ্যাকাররা পাবলিক প্লেসে ফ্রি ওয়াইফাই ষ্পট খুলে রাখে, এতে করে ইউজার এর ডাটা চুরি সহজ হয়।

6. ওয়াইফাই ষ্পটে কানেক্টেড হবার পর সফটওয়্যার আপডেট চাইলে সেটা আপডেট না দেয়াই ভাল। অনেক ক্ষেত্রে এ প্রক্রিয়ায় হ্যাকাররা ম্যালওয়্যার এর সংক্রমণ ঘটায় যা কিনা আপনি বুঝতেও পারবেন না।

7. মনে রাখবেন, আনসিকিউরড ওয়াইফাই কানেকশনের চেয়ে 3G কিংবা 4G কানেকশন অনেক বেশি সিকিওরড।

8. কম্পিউটার কিংবা অন্য যে কোন ডিভাইসে অটোমেটিক্যালি গেট কানেক্টেড ফিচারটি অফ করে রাখুন।

9. দরকার ছাড়া ব্লুটুথ অন করে রাখবেন না।

আশা করি লিখাটি পড়ে ওয়াইফাই হটষ্পট ব্যবহারে আগের চেয়ে কিছুটা হলেও সতর্ক হতে পারবেন।

বন্ধুদেরকে সতর্ক করতে শেয়ার করে জানিয়ে দিতে ভুলবেন না কিন্তু।।

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ