ওয়ার্ডপ্রেস এর ধারাবাহিক চেইন টিউটোরিয়াল-পর্বে 1

0
504

ওয়ার্ডপ্রেস এর সুচন ***

ওয়ার্ডপ্রেস একটি সিএম এস টুল যা সর্বপ্রথম 2003 সাল থেকে যাত্রা শুরু করে । প্রথম দিকে এর ব্যবহার তেমন ছিলনা ।

কিছু সংখ্য‍াক ব্যবহারকরী প্রতিদিনের বিভিন্ন আর্টিকেল দিয়েই এর যাত্রা শুরু করেন । কিন্ত‍ু দিনে দিনে এর ব্যবহার ও ডেভেলপমেন্ট অনেক র্বদ্ধি পাওয়ায় এটি এখন অনেক বড় নিজস্ব হোস্টেড ব্লগিং টৃল হিসেবে পরিচিতি লাভ করে । ওয়ার্ডপ্রেস এর এর অফিসিয়াল সাইট এ প্রতিদিন লাখ লাখ ব্যবহারকারী নিয়মিত  ভিজিট করেন এবং নতুন নতুন সাইট বা ব্লগ তৈরি হচ্ছে ।

এক নজরে ওয়ার্ডপ্রেস এ শুরু থেকে বর্তমানঃ

১. সর্বপ্রথম সংস্করণঃ ২০০৩ সালের ২৭ মে,  ওয়ার্ডপ্রেস- .৭০ ।

২. সর্বশেষ সংস্করণঃ  ওয়ার্ডপ্রেস-4.0

৩. ডেভেলপারঃ  ম্যাট মুলেনওয়েগ, রায়ান বোরেন, Donncha O Caoimh

৪. প্লাটফর্মঃ পিএইচপি (PHP) এবং মাইএসকিউএল (MySQL) ।

৫. ধরণঃ ব্লগিং সফটওয়ার।

৬. লাইসেন্সঃ ওপেন সোর্স (GPLv2)

৭. এ পর্যন্ত সর্বমোট ডাউনলোড হয়েছেঃ ৬,৫০০,০০০ বারেরও বেশি।

৮. ওয়ার্ডপ্রেস এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটঃ http://wordpress.org/

ওয়ার্ডপ্রেস সম্বন্ধে আরও বিষদ ও বিস্তারিত জানতে এই লিঙ্কে যানঃ http://wordpress.org/about

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেন সোর্স প্রযেক্ট হওয়ায় এখানে হাজার হাজার ডেভেলপার পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে হতে এর উপর কাজ করছেন এবং যে কেউ এর একে ব্যবহার ও পরিবর্তন করতে পারবে । এর জন্য আপনাকে কোন প্রকার ফি প্রদান করতে হবে না এবং ইন্টারনেট হতে সহজেই ওয়ার্ডপ্রেস এর সিএম এস টুলটি ডাউললোড  করতে পারবেন ।

ওয়ার্ডপ্রেস কেন?

ওয়ার্ডপ্রেস কেন ব্যাবহার করব সেটা নিয়ে লিখলে অনেক কিছুই লেখা যায়। তবে তার মধ্যে গুরুত্বপুর্ণ গুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরা হলোঃ

১. ওয়ার্ডপ্রেস একটি মুক্ত (ওপেন সোর্স) সফটওয়্যার, তাই এটি কিনতে হয়না! বিনামূল্যে ডাউনলোড করে কোন প্রকার সমস্যা ছাড়াই ব্যাবহার করা যায়।

২. এর ফলে আপনি কোন ধরনের পিএইচপি(PHP) , মাইএসকিউএল (MySQL) , এইচটিএমএল (HTML) এবং সিএসএস (CSS) দক্ষতা ছারাই বিভিন্ন ধরনের ডাইনামিক এবং ব্লগিং ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।

৩. ওয়ার্ডপ্রেস খুব সহজেই ব্যাবহার করা যায় এবং ইনষ্টল প্রক্রিয়াও খুব সহজ।

৪. এটি একটি সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি সফটওয়্যার।

৫. ওয়ার্ডপ্রেস এর রয়েছে বিশাল ফ্রী থীম এর ভাণ্ডার।

৬. ওয়ার্ডপ্রেস এর রয়েছে বিভিন্ন কাজের হরেক রকম প্লুগিন। যেগুলো ব্যাবহার করে আপনার ওয়েবসাইটকে আরও প্রাণবন্ত করে তুলতে পারবেন।

৭. কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CSM)  হওয়ার কারনে যে কোন তথ্য খুব সহজেই পরিবর্তন, পরিবর্ধন, বিয়োজন ও সংযোজন করতে পারবেন কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই।

ওয়ার্ডপ্রেস কিভাবে ব্যাবহার করব?

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল প্রক্রিয়া ও ব্যাবহার প্রণালী এই টিউটরিয়াল এর পরের অধ্যায় গুলোতে বিস্তারিত লিখা হবে।

ও হ্যা তারাতারি নিচের ডাউনলোড লিঙ্ক থেকে ওয়ার্ডপ্রেস এর সর্বশেষ সংসকরণ টি ডাউনলোড করে নিন।

ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://wordpress.org/download/

আজ এ্ই পযান্ত  সামনের পর্বে  দেখা হবে। আমার বাংলা ব্লগ 

ওয়ার্ডপ্রেস  সম্পকে কোন কিছু জানার থাকলে comment করবেন ।facebook ্  group এ পোষ্ট করতে পারেন

 

একটি উত্তর ত্যাগ