বিশ্বসেরার পুরস্কার পেল বাংলাদেশি হিমেল

0
394

বিশ্বসেরার স্বীকৃতি পেলেন বাংলাদেশের ছেলে হিমেল দেব। ২০১৪ সালের ‘কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি’ বিভাগে ‘দ্য আন্ডারগ্র্যাজুয়েট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সদ্যসাবেক শিক্ষার্থী হিমেল দেব।

সারা বিশ্বের সব স্নাতকপড়ুয়া শিক্ষার্থীর গবেষণা আর সৃজনশীলতার সম্মানজনক পুরস্কার হিসেবে বিবেচিত হয় আয়ারল্যান্ডের ‘দ্য আন্ডারগ্র্যাজুয়েট অ্যাওয়ার্ড’।

প্রতিবছর সাহিত্য, অর্থনীতি, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর জমা দেয়া অভিনব গবেষণা বা প্রকল্পের ওপর ভিত্তি করে দেয়া হয় এই পুরস্কার।

বিশ্বসেরার পুরস্কার পেল বাংলাদেশি হিমেল বিশ্বসেরার পুরস্কার পেল বাংলাদেশি হিমেলখ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরা অধ্যাপকেরা বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৪ সালের ‘কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি’ বিভাগে সারাবিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের তাবৎ শিক্ষার্থীর মধ্যে এই পুরস্কার পাওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সদ্যসাবেক শিক্ষার্থী হিমেল দেব।

স্নাতক শেষ বর্ষে করা হিমেলের থিসিসের বিষয় ছিল User Interaction Based Community Detection in Online Social Networks. সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে ছোট ছোট কমিউনিটি শনাক্তকরণ এবং এর তথ্য সংরক্ষণ ও বিশ্লেষণের পদ্ধতি নিয়ে।

আন্ডারগ্র্যাজুয়েট পর্যায়ের একমাত্র গবেষণাধর্মী কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বিবেচ্য হওয়ায় এমআইটি থেকে শুরু করে স্ট্যানফোর্ড, হার্ভার্ড, প্রিন্সটনের মতো বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নিয়মিত অংশগ্রহণ দেখা যায়। আর সেই সব বিশ্বসেরা শিক্ষার্থীর ভিড়ে বাজিমাত করলেন চট্টগ্রামের পরীক্ষিত দেব ও নীলিমা দেবের সন্তান হিমেল দেব।

কী ছিল তার গবেষণায়? জানতে চাইলে হিমেলের কথায় উঠে আসে, বাস্তবিক সমাজব্যবস্থার মতো অনলাইন সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোও কিছু ছোট গোষ্ঠীতে বিভক্ত। উদাহরণ হিসেবে ফেসবুকে মানুষের ব্যক্তিগত বন্ধুতালিকার দিকে যদি আলোকপাত করা হয়, তবে দেখা যাবে সেখানে রয়েছে স্কুল-কলেজের বন্ধু থেকে শুরু করে পরিবার কিংবা অফিস সহকর্মীদের মতো ছোট ছোট গোষ্ঠী।

অনলাইন সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ব্যবহারকারী মানুষগুলোর পারস্পরিক যোগাযোগের বিভিন্ন তথ্য ব্যবহার করে এ ধরনের গোষ্ঠীগুলোকে খুঁজে বের করাকে বলা হয় কমিউনিটি ডিটেকশন, যার প্রয়োগ রয়েছে ব্যবহারকারীদের তথ্য সংরক্ষণ ও বিশ্লেষণের বিভিন্ন ক্ষেত্রে। আর এই কমিউনিটি ডিটেকশনের একটি নতুন পদ্ধতি বাতলে দিয়ে প্রায় ১২ হাজার শব্দের একটি বিস্তারিত পেপার জমা দেয়ার মাধ্যমে এই খেতাব জিতে নেন হিমেল।

গবেষণার কাজ কিন্তু এটাই হিমেলের প্রথম নয়। কমিউনিটি ডিটেকশন ছাড়াও হিমেল কাজ করেছেন ক্লাউড কম্পিউটিং এবং ক্রাউডসোর্স সিস্টেমস নিয়ে। এই কাজগুলো প্রকাশিত হয়েছে সিগকাই, সুপার কম্পিউটিংসহ বিভিন্ন খ্যাতনামা কনফারেন্সে।

গবেষণার স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন ‘হাইডেলবার্গ লরিয়েট সম্মেলনে’ বিশ্বের ১০০ জন উদীয়মান কম্পিউটার বিজ্ঞান গবেষকদের তালিকায় থাকার সম্মান।

ইতিমধ্যে তার ছয়টি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রকাশনা রয়েছে। এত অল্প সময়ে এতো ভালো গবেষক হয়ে ওঠার পেছনের রহস্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেকোনো গবেষণার জন্য কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি অনেক বেশি ধৈর্যের প্রয়োজন। প্রাথমিক সাফল্যেই সন্তুষ্ট না হয়ে উত্তরোত্তর উন্নয়নের মাধ্যমে গবেষণার মানকে আরো সমৃদ্ধ করাই একজন গবেষকের লক্ষ্য হওয়া উচিত।’

তবে তিনি এই গবেষণাকাজে সহযোগিতার জন্য বিশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ইউনুস আলী ও সহকারী অধ্যাপক ড. তানজিমা হাশেমের প্রতি।

তরুণদের গবেষণার প্রতি উৎসাহ দেয়ার জন্য গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ড. মোহাম্মদ ইউনুস আলীর সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে তিনি জানান, ‘তরুণ গবেষকদের স্বল্পমেয়াদি সফলতার পেছনে না ছুটে কাজের মানের দিকে বেশি নজর দেয়া উচিত। সাফল্য গবেষণার বাই প্রোডাক্ট, এটাকে কখনোই মূল লক্ষ্য মনে করা উচিত নয়।’

বাংলাদেশের গর্ব হিমেল সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)-এর কম্পিউটার বিজ্ঞান ও কৌশল বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, সারা বিশ্বে ‘আন্ডারগ্র্যাজুয়েট অ্যাওয়ার্ড’কে অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ একটি পুরস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। স্নাতক পর্যায়ে উদীয়মান গবেষকদের অনুপ্রাণিত করার জন্য সারাবিশ্বের শিক্ষার্থীদের জন্য এই আয়োজন।

আমাদের হিমেল দেবের এই পুরস্কার অর্জন, তাও আবার বিশ্বের বাঘা বাঘা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পেছনে ফেলে নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য, বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় একটা অর্জন।

বাংলাদেশে যে আন্তর্জাতিক মানের গবেষণা সম্ভব এবং তা যে আমাদের স্নাতকের ছাত্ররাই করতে পারে, হিমেলের সাফল্য আমাদের সে বিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে। অবশ্য আমাদের কম্পিউটার কৌশলের শিক্ষার্থীরা শুরু থেকেই আন্তর্জাতিক মানের গবেষণা করে আসছে এবং ইতিমধ্যেই আমাদের অনেক শিক্ষার্থীদের গবেষণার ফলাফল স্নাতককালেই আন্তর্জাতিক মানের জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

একই সঙ্গে আমাদের ছাত্রদের প্রোগ্রামিং জ্ঞানও যে বিশ্বমানের, তাও আমাদের শিক্ষার্থীরা গত ১৭ বছর ধরে প্রোগ্রামিংয়ের বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে স্বাক্ষর রেখে চলেছে।

এটা শুধু বুয়েটের ক্ষেত্রেই নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও তাদের প্রোগ্রামিং মেধার বলেই মাইক্রোসফট থেকে শুরু করে গুগলসহ বিশ্বের খ্যাতনামা আইটি কোম্পানিগুলোর সঙ্গে কাজ করছে এবং কাজ করার সুযোগ অর্জন করছে। আমি আশা রাখব, হিমেলের এই সাফল্য বাংলাদেশের সব ছাত্রের জন্য ভবিষ্যতে একটি মডেল হিসেবে থাকবে এবং তাদের অনুপ্রাণিত করবে।

একটি উত্তর ত্যাগ