মৃত্যুর পর যদি আপনার ঠাঁই হয় মহাশূন্যে তবে কেমন হবে

0
343

বর্তমানে মানুষের মাঝে মহাশূন্যে বেড়াতে যাবার হিড়িক উঠেছে। ব্যাংকে বেশ কিছু টাকা জমা হলেই স্বপ্ন দেখা শুরু করছে চাঁদে এমনকি মঙ্গলে যাবার। এ তো হল জীবদ্দশায় মহাশূন্যের সৌন্দর্য দেখে চোখ জুড়ানোর শখ। কিন্তু ভাবুন তো, মৃত্যুর পর যদি আপনার ঠাঁই হয় মহাশূন্যে তবে কেমন হবে?

গ্রীক পুরাকাহিনী অনুযায়ী, এলাইসিয়াম (Elysium) হলো পৃথিবীর বাইরে এমন একটি বলয় যেখানে মৃত্যুর পর পাঠিয়ে দেওয়া হয় যত মহান এবং বীর আত্মাদেরকে। এই আধুনিক যুগে এসে একটি কোম্পানি নাম নিয়েছে এলাইসিয়াম স্পেস এবং তারা হাতে নিয়েছে অভিনব এই প্রকল্প। তারা মানুষকে আসলেই মৃত্যুর পর পৃথিবীর বাইরে পাঠিয়ে দিতে পারে এবং সেটাও অনেক কম খরচে। কিভাবে? মৃত্যুর পর আপনার ভস্মীভূত দেহাবশেষ তারা নিক্ষেপ করবে মহাশূন্যে এবং সেটাও মাত্র ১৯৯০ ডলার খরচে! মহাশূন্যে আপনার দেহাবশেষ নিক্ষেপ করার অনুষ্ঠানটি আপনার আত্মীয়রা দেখতে পাবে, এর বিশেষভাবে তৈরি করা ভিডিও নিয়ে যেতে পারবে এমনকি বিনামূল্যে এমন একটি এন্ড্রয়েড অ্যাপ পাবে যা দিয়ে তারা আপনার দেহাবশেষের গমনপথ অনুসরণ করতে পারবে।

এই ব্যবস্থাটি মহাশূন্যে যাওয়ার অন্য সব ব্যবস্থার চাইতে অনেক সস্তা। যেমন, Virgin Galactic নামের কোম্পানিটি আপনাকে মাত্র দুই ঘণ্টার জন্য পৃথিবীর বাইরে কক্ষপথে ঘুরিয়ে আনবে কিন্তু এর জন্য নেবে দুই লাখ ডলার! মহাশূন্যযাত্রায় খরচ পড়ে অনেক তাই এলাইসিয়াম একসাথে ১০০ টার মত দেহাবশেষ বহনকারী ক্যাপসুল মহাশূন্যে পাঠানোর পরিকল্পনা করছে আগামী গ্রীষ্ম নাগাদ।

আপনার দেহাবশেষ অবশ্য মহাশূন্যে চিরকাল থাকবে না। একসময় না একসময় এটি আছড়ে পড়বে পৃথিবীর বুকে। এটি কক্ষপথে থাকতে পারে কয়েক মাস থেকে কয়েক বছর পর্যন্ত। এর পর এটি জ্বলন্ত একটি উল্কাপিণ্ডের মত আকাশের বুক চিরে নামবে এবং সম্ভাবনা আছে যে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে ঢোকার কিছুক্ষনের মাঝেই জ্বলতে জ্বলতে এটি বিলীন হয়ে যাবে।

অতএব, যদি আপনার জীবদ্দশায় মহাশূন্যে যাওয়ার ইচ্ছে থাকে অথচ এত লাখ লাখ ডলার খরচ করার সামর্থ্য নেই, তবে অন্তত কম খরচে মৃত্যুর পর মহাশূন্যে পাড়ি দেওয়ার সৌভাগ্য আপনার হলেও হতে পারে!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × three =