চলুন ফ্রীল্যান্সিং করি- “অন্ধকারে না থেকে সঠিক ধারনা নেই, নিজেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ি”- পর্ব-০২ (ফ্রীল্যান্সিং এবং অন্যান্য কাজ)

0
372

কেমন আছেন সবাই? গত পর্বে ফ্রীল্যান্সিং এর গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করেছিলাম। তো আমার মনে হয় ফ্রীল্যান্সিং এবং অন্যান্য আয়ের যে বিষয় গুলো নিয়ে আমি গত পর্বে আলোচনা করেছিলাম সেটা আরও একটু ক্লিয়ার হলে ভাল হয়।

আমার গত টিউনটি যারা পড়েছেন তাদের অনেকের মনেই প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে- এই বললাম অনলাইনে আয়ের কথা যেমন- গুগল অ্যাডসেন্স, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আবার এই বললাম ফ্রীল্যান্সিং এর কথা, তাহলে ফ্রীল্যান্সিং ই বা কি আবার অনলাইনে আয়ের অন্যান্য মাধ্যম গুলোই বা কি?

যাদের মনে এই ধরনের দ্বিধার জন্ম হয়েছে তাদের জন্যই আজকের টিউন।

প্রথমেই চলুন জানি ফ্রীল্যান্সিং জিনিসটা আসলেই কি?
ফ্রীল্যান্সিং কিন্তু কোন কাজের নাম নয়। এটা হচ্ছে কাজ করার একটা স্বাধীন প্রসেস। অনলাইনে আয়ের বিভিন্ন সিস্টেম গুলো একসাথে এক জায়গায় রাখা হয়েছে, যেটাকে বলা হয় ফ্রীল্যান্স মার্কেট। এই সকল মার্কেটে আপনি অনলাইনে আয়ের বিভিন্ন ক্যাটাগরি এর কাজ পাবেন যেমন- লোগো ডিজাইন, এসইও, ওয়েব ডিজাইন, অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, পার্সোনাল হেল্প ইত্যাদি। এখান আপনি যে কোন এক বা একাধিক সেক্টরেই কাজ শিখে কাজ করতে পারবেন। এটাই হচ্ছে ফ্রীল্যান্সিং। এখানে আপনি সম্পূর্ণ স্বাধীন ভাবে আপনার ক্লাইন্টের আন্ডারে কাজ করতে পারবেন।

আর অন্যদিকে অনলাইনে আয়ের অন্যান্য মাধ্যম সমূহের মধ্যে যেগুলো আছে সেগুলো করেও আপনি আয় করতে পারেন কিন্তু সেগুলো আপনি করবেন আপনার নিজের জন্য। ফ্রীল্যান্সিং এ যেমন আপনি আপনার ক্লাইন্টের জন্য কাজ করে দিবেন বিনিময়ে ক্লাইন্ট আপনাকে টাকা দিবে, কিন্তু ফ্রীল্যান্সিং ব্যতীত অন্যান্য সেক্টরে আপনি কাজ করবেন নিজের জন্য। এখানে মালিকও আপনি আবার ওয়ার্কার ও আপনি। যেমন আপনার যদি একটি ব্লগ থাকে তাহলে আপনি সেখানে পোস্ট করবেন। আর সেই ব্লগ থেকে আসা অর্থ সম্পূর্ণই আপনার। আপনি চাইলে নিজে পোস্ট না করে কোন ওয়ার্কার হায়ার করে তাকে দিয়েও আপনার ব্লগে পোস্ট করাতে পারবেন। এক্ষেত্রে সেটা হবে ওই ওয়ার্কার এর জন্য ফীল্যান্সিং আর এই ক্ষেত্রে আপনি হবে ক্লাইন্ট।

তাহলে কেন ফ্রীল্যান্সিং বেছে নিবেন?
সাধারণত আমরা চাই কম সময়ে আয় করতে এবং রিক্স ফ্রী ভাবে আয় করতে। সেই দিক দিয়ে বিবেচনা করলে দেখা যাবে অনলাইনে আয়ের অন্যান্য ক্যাটাগরির মধ্যে ফ্রীল্যান্সিং টাই সেরা। কারন এখানে আপনাকে কোন ইনভেস্ট করতে হয় না। সঠিক ভাবে কাজ শিখে চেস্টা করলে অপেক্ষাকৃত দ্রুত কাজ পাওয়া যায়। পেমেন্ট গ্যারান্টিড।

আজ এই পর্যন্তই। গত পর্বের সাথে আজকের পর্বের কিছুটা মিল আছে, তবুও ব্যাপারটা আরও ক্লিয়ার হওয়ার জন্যই লিখলাম। পরের পর্বে কথা বলব ফ্রীল্যান্সিং এর বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস নিয়ে। কোন মার্কেটে কি কাজ পাবেন, কোনটা কোন কাজের জন্য সেরা। আশা করি সাথেই থাকবেন।

অনলাইনে আয় সংক্রান্ত হেল্প পেতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে আজই যোগ দিন! আমাদের ফেসবুক গ্রুপ।

নতুনদের জন্য সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় অনলাইনে আয় সংক্রান্ত বিভিন্ন ধারাবাহিক টিউন এবং ফ্রী ভিডিও টিউটোরিয়াল পাবেন আমাদের সাইটে। সময় থাকলে ঘুরে আসবে। আমাদের ব্লগ।

একটি উত্তর ত্যাগ