সোসাল মিডিয়া মার্কেটিং হতে পারে আপনার আয়ের অন্যতম ভালো পথ আসুন শুরু করি। পর্ব – ৩

1
522

সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে এটি আমার ৩য় পোস্ট আগের পোস্ট গুলো দেখুন (পর্ব-১ , পর্ব-২ )আসলে কাজে ব্যাস্ত থাকাত কার্বনে নিয়মিত পোস্ট দিতে পারি না যাই হোক মূল কোথায় আসি ।

আগের পষ্ট গুলতে সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং  কি তা জেনেছি আজ থেকে আসুন শুরু কাজ শুরু করি। আপনারা দেখে থাকবেন অথবা জেনে থাকবেন সবচেয়ে বেশি ব্যাবহৃত সোশাল প্লাটফর্ম হল ফেসবুক তো সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং আমরা ফেসবুক থেকে ই শুরু করব।

ফেসবুকে সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে প্রথমেই আপনার দরকার হবে অনেক গুলো আইডি এবং ফ্যান পেজ । ১০ টা আইডি ওপেন করুন প্রতিটা আইডি তে ২০০০+ ফ্রেন্ড জেন থাকে আইডি গুলো একটিভ হতে হবে মানে নিয়মিত ফ্রেন্ড দের সাথে আপডেট দিয়ে রাখা টাইম লাইন পরিস্কার রাখা নিয়মিত স্ট্যাটাস আপডেট দেয়া যাতে সবার নজর থাকে আপনার দিকে আপনি কিছু প্রচার করলে মানুষ যেন তা গিলে। আইডি গুলো ক্যাটাগরি অনুযায়ী সাজানো জেতে পারে এবং পরে ওই অনুযায়ী মার্কেটিং  করতে কাজে দেবে ।

ফেসবুকের আইডি এমন ভাবে রাখবেন না যাতে বুঝাই যায় এটি ফেক এতে করে মার্কেটিং  এর কার্য কারয়িতা কমে যায়। আপনার আইডি গুলো থেকে ভালো কিছু কিছু পোস্ট প্রতিদিন দিন যাতে আপনার পোস্ট এর প্রতি মানুষের আগ্রহ থাকে ।

বিভিন্ন গ্রুপে জয়েন করতে পারেন এবং ওই গ্রুপে সুন্দর পোস্ট এর মাধ্যমে এড দিতে পারেন এথেকে কিছু নতুন ফ্রেন্ড ও পাবেন ।

আপনাকে যদি কোন কিছুর মার্কেটিং করতে দেয়া হয় তাহলে ওই জিনিশ এর এড বার বার দিবেন না এতে সবাই বিরক্ত হয় যেমন কোন ফ্যান পেজ এ লাইক বাড়ানর কাজ পেলে বার বার ইনভাইট পাঠানো বা শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন ২/৩ দিনে একবার করুন । কোন ব্লগ বা ওয়েব শৈত্যের বেলাতেও ঠিক তাই করুন ।

যা নিয়ে মার্কেটিং  করছেন তা নিয়ে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন পেজ বা ব্লগ শেয়ার করার সময় ২/১ লাইন তার সম্পর্খে লিখে দিন। নতুন ব্যাতিক্রম কিছু করার চেষ্টা করুন । ফ্যান পেজ থাকলে এইখেত্রে ভালো ফর পাওয়া যায় ।

একসাথে অনেক কাজ নেয়া থেকে বিরত থাকুন কোয়ালিটি এর দিকে মনোযোগ নিন কোয়ানটিটি এর দিকে না ।

আজকে বাকি তা আগামী পোস্ট এ দেব

আমাদের ফেসবুক গ্রুপ: Freelancerzone

পোস্টি সর্ব প্রথম টেকসময় ব্লগে প্রকাশিত

 

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ