বিনা ভিসায় বাংলাদেশীরা ঘুরতে পারেন যেসব দেশে

0
624

বিনা ভিসায় বাংলাদেশীরা ঘুরতে পারেন যেসব দেশে
==============================

বিনা ভিসায় বাংলাদেশীরা ঘুরতে পারেন যেসব দেশে বিনা ভিসায় বাংলাদেশীরা ঘুরতে পারেন যেসব দেশে
বিনা ভিসায় বাংলাদেশীরা ঘুরতে পারেন যেসব দেশে


একটা সময় ছিল যখন ঈদের ছুটি মানেই আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সময় কাটানো বা ঘোরাঘুরি। যুগ পাল্টেছে। এখন দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশের মাটিতে ঈদের ছুটি কাটাতে যাচ্ছে বাংলাদেশের মানুষ।

এবারের ঈদে যারা বিনা ভিসায় দেশের বাইরে ঈদের ছুটি কাটাতে চান তাদের জন্য একটি তালিকা দেওয়া হলো। এ তালিকায় রয়েছে সেসব দেশের নাম ও দরকারী তথ্য যেখানে বিনা ভিসা বা অন অ্যারাইভেলে যাওয়া যায়।

ভিসা ছাড়া যাওয়া যাবে এবং অবস্থান করা যাবে এমন দেশগুলো হচ্ছে:
• এশিয়া মাহাদেশের মধ্যে ভুটান (যত দিন ইচ্ছা)
• শ্রীলংকা (৩০ দিন) আফ্রিকা মহাদেশের মধ্যে কেনিয়া (৩ মাস)
• মালাউই (৯০ দিন)
• সেশেল (১ মাস)
• আমেরিকা মাহাদেশের মধ্যে ডোমিনিকা (২১ দিন)
• হাইতি (৩ মাস)
• গ্রানাডা (৩ মাস)
• সেন্ট কিট্স এ্যান্ড নেভিস (৩ মাস)
• সেন্ড ভিনসেন্ট ও গ্রানাডাউন দ্বীপপুঞ্জ (১ মাস)
• টার্কস ও কেইকোস দ্বীপপুঞ্জ (৩০ দিন)
• মন্টসের্রাট (৩ মাস)
• ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপমালা (৩০ দিন)
• ওশেনিয়া মাহাদেশের মধ্যে ফিজি (৬ মাস)
• কুক দ্বীপপুঞ্জ (৩১ দিন)
• নাউরু (৩০ দিন)
• পালাউ (৩০ দিন)
• সামোয়া (৬০ দিন)
• টুভালু (১ মাস)
• নুউ (৩০ দিন)
• ভানুয়াটু (৩০ দিন)
• মাক্রোনেশিয়া তিলপারাষ্ট্র (৩০ দিন) অন্যতম।

এছাড়াও যেসব দেশে প্রবেশের সময় (on arrival) ভিসা পাওয়া যাবে সেগুলো হচ্ছে:
====================================================
• এশিয়ার মধ্যে আজারবাইজান (৩০ দিন, ফি ১০০ ডলার)
• জর্জিয়া (৩ মাস)
• লাউস (৩০ দিন, ফি ৩০ ডলার)
• মালদ্বীপ(৩০ দিন)
• মাকাউ (৩০ দিন)
• নেপাল (৬০ দিন, ফি ৩০ ডলার)
• সিরিয়া (১৫ দিন)
• পূর্ব তিমুর (৩০ দিন, ফি ৩০ ডলার)
• আফ্রিকা মহাদেশের মধ্যে বুরুন্ডি, কেপ ভার্দ, কোমোরোস, জিবুতি (১ মাস, ফি ৫০০ জিবুতিয়ান ফ্রাঙ্ক)
• মাদাগাস্কার (৯০ দিন, ফ্রি ১,৪০,০০০ এমজিএ)
• মোজাম্বিক (৩০ দিন, ফি ২৫ ডলার)
• টোগো (৭ দিন, ফি ৩৫,০০০ এক্সডিএফ)
• উগান্ডা (৩ মাস, ফি ৩০ ডলার)।

তবে বাংলাদেশের এয়ারপোর্ট রওনা হবার সময় কিছু সুযোগ সন্ধানী অফিসার ভিসা নেই বা আপনার সমস্যা হবে এই মর্মে হয়রানি করতে পারে টু-পাই কামানোর জন্য। কেউ এসব দেশে বেড়াতে যেতে চাইলে টিকিট কেনার সময় আরো তথ্য জেনে নিতে পারেন। আর আপনার কাছে ফিরতি টিকেট ও হোটেল বুকিং এর কাগজ অবশ্যই থাকতে হবে।

এ বিষয়ে কারও কোন সন্দেহ থাকলে Google-এ search দিয়েও যাচাই করে নিতে পারেন। সব দেশের অ্যাম্বেসির ই-ওয়েবসাইট আছে, সেখান থেকেও তথ্য যাচাই করে নিতে পারেন। ভিন্ন ভাষায় হলে Google Translator ব্যবহার করুন।

 

Our FB Page: https://www.facebook.com/MofazzalSarker

একটি উত্তর ত্যাগ