অ্যাসাইনমেন্ট লেখার কিছু কৌশল নিয়েই এ আলোচনা

4
395

অনেকেই মনে করেন অফিসিয়াল অ্যাসইনমেন্ট লেখার জন্য নির্দিষ্ট কোনো বিষয়ে পড়াশোনা থাকা জরুরি। ধারণাটি একদম ভুল। কেননা এ বিষয়ে না পড়েও লেখা যায়। কেউ যদি কোনো অফিসিয়াল অ্যাসাইনমেন্ট বা প্রতিবেদন লিখতে চান তবে তার জন্য কিছু কৌশল আয়ত্তে রাখা জরুরি। অ্যাসাইনমেন্ট লেখার কিছু কৌশল নিয়েই এ আলোচনা-

অ্যাসাইনমেন্ট লেখার কিছু কৌশল নিয়েই এ আলোচনা
ভাব প্রকাশের জন্য লিখুন : শুরুতেই চিন্তা করে দেখুন, কাউকে ঘটনাটি বলতে গেলে আপনি কিভাবে, কি ঢংয়ে বলতেন_ এবার সেটিই অনুসরণ করে লিখে ফেলুন। সহজ করে কোনো ঘটনা তুলে ধরার মাধ্যমেই যোগাযোগ দক্ষতার পরিচয় পাওয়া যায়, সহজ করে যদি বক্তব্য লিখতে পারেন তাহলে বুঝতে হবে আপনার অ্যাসাইনমেন্ট সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে।

আগে ভাবুন, পরে লিখুন : অ্যাসাইনমেন্ট লেখার জন্য যখন আপনি তথ্য সংগ্রহে ব্যস্ত তখনই মনে মনে গুছিয়ে নিতে হবে কি লিখবেন আর কিভাবেই বা লিখবেন। কর্মস্থলে সহকর্মী বা বসের সামনে কোন বিষয়টি আপনি তুলে ধরতে চাইছেন সেটি যদি নির্ধারণ করে ফেলতে পারেন, তখন মনে মনে একটি খসড়া দাঁড় করানোর কাজ শুরু করা সম্ভব হবে। খসড়াটি যে ধরনেরই হোক না তা অবশ্যই খাতায় লিখে ফেলবেন।

পরিচিত শব্দ ব্যবহার করুন : এ দিকটি সব সময় মাথায় রাখতে হবে। সবার কথা মাথায় রেখে অহেতুক, অপরিচিত, কঠিন, দুর্বোধ্য শব্দ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এমন শব্দ ব্যবহার করুন যা সবার কাছেই পরিচিত বলে আপনি নিশ্চিত। নিজে ভালোমতো বোঝেন না এমন শব্দ কখনোই ব্যবহার করবেন না। মনে রাখবেন, একটি অবোধ্য শব্দ ব্যবহারের কারণে কর্মস্থলে আপনার অ্যাসাইনমেন্টের প্রতি সবাই আগ্রহ হারিয়েও ফেলতে পারে।

বাক্য ছোট রাখুন : বাক্য যত বড় হবে, তার বিভিন্ন অংশের মধ্যে সম্পর্ক তত জটিল হবে, আর বাক্য যত জটিল হবে ততই তা সবার কাছে দুর্বোধ্য ঠেকবে। বাক্য ছোট হতে হবে কিন্তু ছাড়া-ছাড়া, খণ্ডিত বা বিক্ষিপ্ত হলে চলবে না। কমা, সেমিকোলন ইত্যাদি যতিচিহ্নের ব্যবহার যথাসম্ভব কম করেও বাক্য ছোট রাখার চেষ্টা করতে হবে। ছোট বাক্য পড়তে সহজ, বুঝতে সহজ, অতি ছোট বাক্য ভাষাকে মন্থর করে ফেলে এবং ভাষা তার সাবলীলতা হারিয়ে ফেলে সে দিকেও সজাগ থাকতে হবে।

স্বয়ংসম্পূর্ণ অনুচ্ছেদ : ভোট বাক্যের মতো ছোট অনুচ্ছেদও সবার জন্য পড়তে সহজ, বুঝতে সহজ। দীর্ঘ অনুচ্ছেদ পাঠকের জন্য ক্লান্তিকর ও বিরক্তিকর হতে পারে। অনুচ্ছেদ ছোট হলে একটি মাত্র ভাব, একটি মাত্র প্রসঙ্গ বা ধারণার অতিরিক্ত তাতে যোগ করা সম্ভব হয় না, ফলে পাঠকের জন্য সুবিধা হয়। প্রতিটি অনুচ্ছেদে পাঠক নতুন প্রসঙ্গ বা তথ্যের সঙ্গে পরিচিত হন, যা পাঠের আগ্রহ ও আনন্দ বাড়িয়ে শেষ পর্যন্ত পাঠককে ধরে রাখে।

ভাষা সুনির্দিষ্ট ও স্পষ্ট করুন : অ্যাসাইনমেন্টকে দুর্বল করে কিংবা মনে সন্দেহের উদ্রেক করতে পারে এমন শব্দ পরিহার করুন। প্রচলিত শব্দ ব্যবহার করুন, এমন কোনো শব্দ ব্যবহার করবেন না যা আপনি জানেন না বা যে শব্দের অর্থ জানতে অভিধানের পৃষ্ঠা উল্টাতে হবে। দ্ব্যর্থক শব্দ অবশ্যই ব্যবহার করবেন না।

মুল সুত্রঃ দশদিক (মুল লেখকের নাম নেই তাই দিতে পারছি না। আমি শুধু সকলের জন্য এটি সংগ্রহ করেছি)

4 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ