সাতটি লক্ষণে জেনে নিন আপনি ভুলভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছেন কি?

0
422

ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়া এখন বহু মানুষই ব্যবহার করছেন। অনেকেই এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যক্তিগত জীবনের চেয়েও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। তবে অনলাইনে কোনো বিষয় ওঠানোর পর আপনি কোনোভাবেই তা আর গোপন করতে পারবেন না। এ কারণে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন আপনার অনলাইন ব্যবহার বিষয়ে। এ লেখায় দেওয়া সাতটি লক্ষণ বিবেচনা করুন। যদি এ লক্ষণগুলোর কোনোটি আপনার সঙ্গে মিলে যায়, তাহলে দ্রুত সে বিষয়ে মনযোগ দিন।

সাতটি লক্ষণে জেনে নিন আপনি ভুলভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছেন কি সাতটি লক্ষণে জেনে নিন আপনি ভুলভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছেন কি?

১. সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি মানুষের মনযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করছেন
আপনি যদি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেন অন্যের মনযোগ আকর্ষণের জন্য তাহলে ভুল করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের মনোভাব প্রকাশ, বন্ধুদের সঙ্গে ভালো ও খারাপ মুহূর্ত শেয়ার করা অতি স্বাভাবিক বিষয় এবং এতে কোনো ভুল নেই। কিন্তু আপনি যদি এটি ব্যবহার করেন অন্যের মনযোগ আকর্ষণের উপায় হিসেবে তাহলে ভুল করবেন। অন্যের কতোটা মনযোগ আকর্ষণ করলেন এটি নির্ণয় করার চেষ্টা একটি ভুল বিষয়।

২. সত্যিকার বন্ধুদের অবমাননা
আপনি কি আপনার বাস্তব জীবনের বন্ধুদের সামাজিক মিডিয়ায় তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেন? বাস্তব বন্ধুদের তুলনায় অনলাইন বন্ধুদের বেশি গুরুত্ব দেন? তাহলে বুঝতে হবে আপনি সামাজিক জীবনের চেয়ে ভার্চুয়াল জীবনকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। যদি তাই হয়, তাহলে জেনে নিন, আপনার এ প্রবণতা একটি বড় ভুল। এ ভুল কাটানোর জন্য আপনাকে অনলাইনে কম সময় দিতে হবে এবং বাস্তব বন্ধুদের বেশি করে সময় দিতে হবে।

৩. অন্যদের তাচ্ছিল্য করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার
অনেকেই কাউকে কোনো বিষয় সম্বন্ধে বাস্তবে কিছু না বললেও সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে তাদের তা পরোক্ষভাবে বলে থাকেন। এর মধ্যে থাকে অন্যকে তাচ্ছিল্য করার মতো বিষয়। এ অভ্যাস অত্যন্ত অপরিণত বুদ্ধির পরিচয় বহন করে। আর এ বিষয়টি সহজেই বহু মানুষের চোখে ধরা পড়ে।

৪. অহংকার করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার
আপনার নানা অর্জন বন্ধুদের সামনে উপস্থাপন নিঃসন্দেহে বড় একটি বিষয়। এতে কোনো ভুল নেই। কিন্তু এ বিষয়ে আপনার নিজেরই একটি সীমারেখা টানা উচিত। নিজের অর্জন শেয়ার করার স্থানে যদি অন্যকে নিজের বাহাদুরি দেখাতে থাকেন, তাহলে তা নিঃসন্দেহে অস্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হয়। এটি মানুষকে আঘাত করে।

৫. অন্যের সম্বন্ধে ঈর্ষাবোধ করা
আপনি যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সারাক্ষণ অন্যের নানা বিষয় দেখেন এবং তাদের উপর হিংসাবোধ করেন তাহলে তা সত্যিই চিন্তার বিষয়। এ থেকে বিরতি দেওয়ার সময় এখনই। অন্য একজন মানুষ কোথায় ভ্রমণ করেছেন, কী কী অর্জন করেছেন, এসব বিষয় নিয়ে ঈর্ষাণ্বিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। অন্যের জৌলুষ দেখে খুশি হওয়া যেতে পারে। কিন্তু সেসব নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা ও ঈর্ষাকাতর হওয়া থেকে বিরত হতে হবে।

৬. বাস্তবতার মুখোমুখি না হয়ে অভিযোগ করে যাওয়া
আমরা অনেকেই বাস্তব জীবনের নানা সমস্যা অনলাইনে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করি। নিজের অভিযোগও অল্পমাত্রায় জানাই তাদের। এটি অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু সব সময় যদি আপনি অনলাইনে নানা অভিযোগ শেয়ার করতে থাকেন তাহলে তা সত্যিই সমস্যার বিষয়। আপনার বোঝা উচিত, কোনো বিষয় নিয়ে অনলাইনে অভিযোগ করার বদলে বাস্তব জগতে তা নিয়ে কাজ করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

৭. বাস্তবতা থেকে পালিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার আশ্রয়
আপনি যদি বাস্তবতা থেকে পালিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন তাহলে বুঝতে হবে কোথাও গণ্ডগোল হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হতে পারে মজা ও আনন্দের বিষয়। কিন্তু আপনি যদি বাস্তব জীবনের নানা সমস্যা থেকে পালিয়ে ভার্চুয়াল জগতের আশ্রয় নেন তাহলে তা সত্যিই সমস্যার বিষয়।

একটি উত্তর ত্যাগ