ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪ এর স্পনসরদের সাইট হ্যাক করার হুমকি

0
393

এবারের ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪-এর স্পনসরদের সাইট হ্যাক করার হুমকি দিয়েছে হ্যাকিং গ্রুপ ‘অ্যানোনিমাস’। আসরটির কর্পোরেট স্পনসর প্রতিষ্ঠানগুলো এ নিয়ে ব্যাপক আতঙ্কে রয়েছে।

ব্রাজিলের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ আর এ মূহুর্তে এত বিশাল অংকের টাকা খরচ করে বিলাসিতা দেখানোর কোন যৌক্তিকতা পায়না দেশটির জনগন। এ নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই বিক্ষোভ-সমাবেশ হচ্ছে সাও পাওলোতে। গত কয়েকদিন আগে ব্রাজিলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট হ্যাক করে এক ডজনেরেও বেশি ইমেইলের তথ্য ফাঁস করে দিয়েছে অ্যানোনিমাস।

‘চে কোমোডরের আওতায় কাজ করা হ্যাকার গ্রুপটির একজন জানায়, ‘আমরা ব্রাজিলের সবচেয়ে কম সুরক্ষিত ওয়েবসাইটগুলো নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছি।’ ‘আর আমরা আক্রমণ করার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছি।’ ব্রাজিলের একটি গোপন জায়গায় বসে স্কাইপের মাধ্যমে এসব কথা বলে এই হ্যাকার। সে আরো জানায়, বিখ্যাত অ্যাডিডাস, কোকা কোলা, আমিরাত এয়ারলাইনস ও বাডউইজারের মতো প্রতিষ্ঠান হ্যাক করার পরিকল্পনা করছি আমরা। রয়টার্সের সঙ্গে আলাপচারিতায় এসব কথা তুলে ধরলেও সে সময় চে কোমোডরের কোন পরিচিত বা তাদের অবস্থান সম্পর্কে জানা যায়নি।

incredible-photos-of-the-massive-protests-in-brazil-over-world-cup-spending ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪ এর স্পনসরদের সাইট হ্যাক করার হুমকি

হ্যাকিং অন ফিফা ২০১৪

ওয়েবসাইট হ্যাক করা নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনোধরনের মন্তব্য আসেনি ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪-এর কর্পোরেট স্পনসর প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে।

কম খরচের ডিস্ট্রিবিউটেড ডেনিয়াল-অব-সার্ভিস বা DDoS নামের সাইবার আক্রমণের চিন্তা-ভাবনা করছে অ্যানোনিমাস। এ আক্রমণে ফলে সাইটগুলো অফলাইন হয়ে পড়বে। হোস্ট সার্ভার জ্যাম করে এ আক্রমণ চালানো হয় বলেও জানিয়েছে হ্যাকার দল।

আগামি ১২ জুন থেকে শুরু হওয়া ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪-এর আয়োজক দেশ ব্রাজিল ও ফিফা এ সাইবার আক্রমণ নিয়ে আতঙ্কে আছে। অংশগ্রহণকারী ৩২টি দলও এসব বিষয় নিয়ে অনেকটা চিন্তিত। ব্রাজিলে বেশ কয়েকটি ফুটবল স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ এখনও শেষ হয়নি। তাছাড়া খেলা দেখার খরচও অনেক বেশি নির্ধারণ করেছে আয়োজকরা।

চো কোমোরেড রয়টার্সকে জানায়, অ্যানোন ম্যানিফেস্ট নামের একজন হ্যাকার ইতোমধ্যে ফিসিং(phishing) অ্যাটাকের মাধ্যমে ব্রাজিলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি ফাইলে ঢুকে পড়তে সক্ষম হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইমেইল সিস্টেম আপাতত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে আর কার্যালয়ের প্রায় ৩০০০ ইমেইল ব্যবহারকারীদের পাওয়ার্ড পরিবর্তন করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

একটি উত্তর ত্যাগ