ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ পেতে নিয়ে নিন কিছু হট টিপস

0
314

বর্তমানে সারা বিশ্বেই মুক্ত বা স্বাধীনভাবে ঘরে বসে আয় করার একটি অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সমূহে কাজ করার মাধ্যমে আয়। আর এক্ষেত্রে আপনার যদি কোন বিশেষ কাজে দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি খুব সহজেই সেই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সমূহে কাজ করার মাধ্যমে আপনার জন্য সন্মান জনক আয়ের পথ তৈরি করতে পারেন যা আপনার জন্য অন্যের প্রতিষ্ঠানে চাকরির বিকল্প পথ হিসেবে গন্য হতে পারে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে অনেক প্রতিভাবান ফ্রিল্যান্সাররা তাদের প্রতিভা থাকা সত্বেও নতুন একটি প্লাটফর্মে তাদের দক্ষতাকে সঠিক ভাবে উপস্থাপন করতে না পারায় বিভিন্ন ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে কাজ আদায় করে কাজের মাধ্যমে তাদের প্রতিভাকে বিকশিত করতে ব্যর্থ হয়ে থাকেন। আর তাই আজ আমি আপনাদেরকে ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ পাওয়ার এমন কতগুলো হট টিপস দেবো যেগুলো ফলো করলে আশাকরি আপনারা খুব সহজেই বিভিন্ন ধরনের ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে কাজ সংগ্রহ করে তা সঠিক ভাবে সম্পূর্ন করে আপনাদের কাঙ্খিত লক্ষে পৌছাতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ পাওয়ার কিছু হট টিপস সমূহকে ধাপে ধাপে নিন্মে আলোচনা করা হলো।

ধাপ: ১. কোন বিষয়ে কাজ করতে চান তা ঠিক করুন:

প্রথমেই আপনাকে ঠিক করতে হবে যে আপনি কোন বিষয়ে দক্ষ বা ঠিক কোন বিষয়ে কাজ করতে আপনি আগ্রহী। এটা ঠিক করার পর সে নির্দিষ্ট বিষয়ে ফোকাস করুন।

ধাপ: ২. আপনার প্রোফাইল খু্বই আপর্ষনীয়ভাবে সম্পূর্ন করুন:

এ ধাপে আপনাকে আপনার প্রোফাইলকে খুব সুন্দর ভাবে তৈরী করতে হবে কারন এর মাধ্যমেই ক্লায়েন্টদের কাছে আপনার পরিচয় ফুটে উঠবে এবং ইম্প্রেশন তৈরি হবে। আর তাই আপনাকে আপনার প্রোফাইল তৈরির ক্ষেত্রে খুবই যত্নবান এবং মনোযোগী হতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি আপনার প্রোফাইল খুব সুন্দরভাবে তৈরির জন্য আপনি যে কাজে দক্ষ ঠিক সে একই কাজে অন্যান্য যারা দক্ষ এবং যারা কাজের মাধ্যমে ভালো রেটিং অর্জন করেছে তাদের প্রোফাইলগুলো সার্চ করে দেখুন এবং ঠিক তাদের আলোকে আপনার মতো করে উপযুক্ত শব্দ নির্বাচন করে আকর্ষনীয় ভাবে আপনার প্রোফাইল তৈরি করুন। এবং প্রাথমিক অবস্থায় আপনার কাজের রেট অন্যান্য অভিজ্ঞ ফ্রীল্যান্সারদের তুলনায় কম বসান।

আপনার পোর্টফলিও তে আপনি যে কাজে দক্ষ সে কাজের স্যাম্পলগুলো দিন
সে বিষয় সম্পর্কিত একাধিক স্কিল টেস্ট দিন
সে বিষয়ের আলোকে আপনার অবজেক্টিভ কি তা সুন্দর ভাবে লিখুন।

ধাপ: ৩. জব ডেসক্রিপশন ভালো করে পড়ুন:

এ ধাপে আপনি যে কাজের জন্য এপ্লাই করছেন তার জব ডেসক্রিপশনে কি কি চাওয়া হয়েছে তা ঠিক করে পড়ুন এবং যে সকল বিষয়ের প্রতি আলোকপাত করা হয়েছে বা যে কাজের কথা বলা হয়েছে তা আপনি করতে পারবেন কিনা তা ঠিক করুন। ভালো একটা ক্লিন ও পরিচ্ছন্ন প্রফেশনাল কভার লেটার লিখুন। তাতে লিঙ্ক দিন ভালো ভালো কাজের স্যাম্পল দিন। এর পর কাজের জন্য এপ্লাই করুন।

ধাপ: ৪. ঠিক মতো ইন্টারভিউ এটেন্ড করুন:

ক্লায়েন্ট যদি আপনাকে ইন্টরভিউ এর জন্য কল করে বা আমন্ত্রন জানায় তাহলে ঠিক সময় মতো পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। যেখানে বসে ইন্টারভিউ ফেস করবেন সে জায়গাটি কোলাহল মূক্ত কিনা তা নিশ্চিত করুন এবং আপনার মাইক্রোফোন সহ অন্যান্য আনুসাঙ্গিক জিনিসপত্র ঠিক আছে কিনা তা যাচাই করুন। সময় মতো ইন্টারভিউ দিন।

ধাপ: ৫. কাজ পেলে এবং তা করার জন্য কাজ সম্পর্কিত অন্য কোন তথ্য প্রয়োজন হলে ক্লায়েন্টদের সাথে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করুন। তাদের ধন্যবাদ জানান প্রত্যেকটি যোগাযোগের ক্ষেত্রেই এবং সর্বপরি কাজ ঠিক মতো যত্নসহকারে সম্পূর্ন করে তাদের কাছে প্রেরন করুন।

ধাপ: ৬. কাজের ভুলগুলোকে চিহ্নিত করুন:

এধাপে আপনাকে আপনার কাজে কোন ক্লায়েন্ট নেগেটিভ রেসপন্স করলে তাদের হাসি মুখে জিজ্ঞাসা করুণ যে আপনার কোথায় কোথায় ভুল হয়েছে ঠিক কিভাবে কোন কাজটি হলে ভাল হয় ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে। কারন আপনাকে সবসময় মনে রাখতে হবে যে আপনি ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে কাজ সম্পর্কে যত বেশি ক্লিয়ার হবেন তত বেশি ইফিসিয়েন্টলি কাজ করতে পারবেন। ক্লায়েন্ট আপনার কাজকে নেগেটিভলি ট্রিট করলেও আপনি কখনই হতাশ হবেন না বরং ক্লায়েন্টদের সাথে যোগাযোগ করে সে ভুলগুলোকে সমাধান করার চেষ্টা করবেন যা আপনাকে পরবর্তীতে অন্যান্য কাজ সফল ভাবে করতে সহায়তা করবে।

আশা করি উল্লেখিত টিপস গুলো ভালো ভাবে ধাপে ধাপে অনুসরন করলে আপনারা খুব সহজেই কাজ পাবেন এবং আপনাদের কাঙ্খিত লক্ষে পৌছাতে পারবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ