পুরাতন ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য কেনার আগে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখা উচিৎ

0
438

১। প্রথমে নিজে কিছুটা গবেষণা করে নিনঃ ধরুন, আপনি একটি নির্দিষ্ট স্মার্টফোন কিনতে চাচ্ছেন ই-কমার্স সাইট থেকে। এক্ষেত্রে, প্রথমেই আপনার উচিৎ সেই স্মার্টফোনটিতে কী আছে, কী নেই ইত্যাদি বিস্তারিত তথ্য জেনে নেয়া। এবং এটা অবশ্যই শুধু সেকেন্ড হ্যান্ড ডিভাইস নয় বরং নতুন ডিভাইসের জন্য আরও বেশি প্রয়োজন। এই গবেষণার দুটি লাভ আছে।

# আপনি গবেষণা করার সময় অনেক সাইট বা ফোরামে সেই নির্দিষ্ট ডিভাইসের অনেক ইউজার রিভিউ দেখতে পারবেন। এবং যেকোন ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস কেনার ক্ষেত্রে এই ‘ইউজার রিভিউ’ এর উপর গুরুত্ব দেয়া খুবই প্রয়োজন। কেননা, একজন ব্যবহারকারী যে সেই নির্দিষ্ট ডিভাইসটি ব্যবহার করেছে সে নিশ্চয়ই ডিভাইসটির অফিশিয়াল তথ্যের বাইরেও অনেক তথ্য সরবারহ করবে এবং তার ব্যক্তিগত মতামত তো থাকছেই। এক্ষেত্রে, আপনি আপনার সেই নির্দিষ্ট পছন্দের ডিভাইসটির অনেক ত্রুটি জেনে যেতে পারেন যেমন, ডিভাইসটি সহজেই গরম হয়ে যায় বা ডিভাইসটির একটি নির্দিষ্ট ইউনিট খারাপ মানের ইত্যাদি তথ্য। এরকম তথ্য জানার পর নিশ্চয়ই আপনি আর সেই ডিভাইসটি না কিনে তার চাইতে ভালো মানের কোন ডিভাইসই কিনে থাকবেন।

#অন্যদিকে, আপনি গবেষণা করার সময় জানতে পারবেন যে সেই ডিভাইসটির সাথে নির্মানকারি প্রতিষ্ঠান কী কী সরবরাহ করে থাকে। যেমন, একটি স্মার্ট ফোনের সাথে সাধারণত চার্জার, ব্যাটারী, মিনি ইউএসবি ক্যাবল, হেডফোন এবং নির্দেশিকা (ম্যানুয়াল) থেকে থাকে। কিন্তু ধরুন, কিছু ক্ষেত্রে দুইটি ব্যটারী, এইচডিএমআই ক্যাবল এবং ওটিজি ক্যাবলও থেকে থাকে। আপনি যদি নাই জেনে থাকেন যে সেই স্মার্টফোনটির সাথে কী কী থাকে তখন আপনি যার কাছে থেকে কিনছেন সে তো ওটিজি ক্যবল এবং এইচডিএমআই ক্যবলটি আপনাকে নাও দিতে পারে!! তখন, আবারও আপনাকে টাকা খরচ করে সেই এক্সেসরিজ গুলো কিনে নিতে হবে।

তাহলে বুঝতেই পারছেন, পুরাতন ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য কেনার আগে নিজে বসে ইন্টারনেটের সাহায্যে ‘গবেষণা’ করার কোন বিকল্প নেই।

২। ওয়ারেন্টি সম্পর্কে নিশ্চিত হনঃ আপনি যার কাছে থেকেই পণ্যটি কিনবেন অবশ্যই তার সাথে ওয়ারেন্টির কাগজ পত্রের কথা পরিষ্কার করে বলুন। বাইরের দেশে যেমন তেমন কিন্তু বাংলাদেশে এটা একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয়। কেননা, ধরুন একজন পকেটমার বা ছিনতাইকারীও তো অন্য কারও ডিভাইস বিক্রি করার উদ্দেশ্যে ই-কমার্স সাইট গুলোতে বিজ্ঞাপন দিতে পারে। বিজ্ঞাপনেতো আর লেখা থাকবে না যে বিক্রেতা আসলে ভালো মানুষ না অন্য কিছু। তাই আপনাকে বিজ্ঞাপন খেয়াল করতে হবে। আমি উদাহরণ দিয়েই আপনাদের দেখাচ্ছি!

কিছু কিছু স্মার্ট ফোনের বিজ্ঞাপনে লেখা দেখেছি, “only set, no charger!’ – আমার প্রশ্ন হচ্ছে, কেন? বিক্রেতা কি চোর যে চার্জার চুরি করার সময় পাননি?

আবার দেখি, ‘no warrenty papers, lost it!’ বর্তমানে দামী স্মার্ট ফোন গুলো কেনার পর মূলত এখন আর মানুষ ওয়ারেন্টি পেপারকে এতটাও হেলাফেলা করেনা যে এটি হারিয়ে যাবে।

এরকম নানান ভাষার বিজ্ঞাপন দেখা যায়, আপনি যদি হ্যান্ডস-অন-প্রমাণ চান তবে বাংলাদেশের যে কোন ই-কমার্স সাইটে গিয়ে দেখতে পাবেন। তবে, আমি এও বলছিনা যে উপরের কথা গুলো একেবারেই মিথ্যে কথা। বিক্রেতার কথাও সত্য হতে পারে, হয়ত বেচারার চার্জার নষ্ট হয়ে গিয়েছে বা আসলেই ওয়ারেন্টির কাগজ খুঁজে পাচ্ছেন না। তবে, আমি যা বলছি তা হচ্ছে ‘সতর্ক থাকা ভালো’! তাই, আপনি এত কথার ধার না ধেরে ‘ওয়ারেন্টি পেপার’ সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন। যদিও শতভাগ নিশ্চয়তা দিতে পারছি না তবুও বলছি ওয়ারেন্টি কার্ড সরবরাহ করতে সক্ষম হলে বিক্রেতাকে ডিভাইসটির প্রকৃত মালিক রুপে অন্তত ৮০ শতাংশ ভেবে নেয়া যায়।

৪। রিটার্ন পলিসিঃ ইলেক্ট্রনিক্স সেকেন্ড হ্যান্ড পণ্য আপনি কেনার সময় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে আর কতক্ষনই বা দেখবেন? আবার কিছু কিছু পণ্য এমন র‍্যাম, হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ, প্রসেসর, মাদারবোর্ড, গ্রাফিক্স কার্ড – ইত্যাদি যদি আপনি কোন পার্সোনাল বিক্রেতার কাছ থেকে কেনেন তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখে নেয়া সম্ভব হয় না! আর তখন বিক্রেতার মুখের কথাতেই ভরসা রাখতে হয়। এজন্যেই চেষ্টা করবেন ‘রিটার্ন পলিসি’ পরিষ্কার রাখতে। এতে করে কোন কারনে বাসায় এসে যদি দেখতে পান যে ডিভাইসটি সমস্যা করছে তখন বিক্রেতার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সেটি ফেরত দিয়ে দেয়া যাবে।

৫। সম্ভব হলে পণ্যটি পরীক্ষা করে দেখুনঃ আসলে এই পয়েন্টটি প্রোডাক্টের উপর নির্ভর করে। তবে ধরুন, আপনি স্মার্টফোন কিনছেন। সেক্ষেত্রে, একটি গেইম ১ মিনিটি খেলে আপনি এর প্রসেসর, জিপিইউ এবং র‍্যামের পারফর্মেন্স সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন। এভাবে গান শুনে মিউজিক কোয়ালিটি এবং ছবি বা ভিডিও’র মধ্যমে ক্যামেরার কোয়ালিটি সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন।

৬। বিজ্ঞাপনটি মন দিয়ে পড়ুনঃ আসলে এই পয়েন্ট টি আসলে প্রথমেই আলচোনা করা উচিৎ ছিল। যাই হোক, প্রথমে বিজ্ঞাপনে বিক্রেতার দেয়া তথ্যগুলো মন দিয়ে পড়ুন। অনেক বিক্রেতারাই তাদের পণ্য সম্পর্কে বিস্তারিত লিখে মোটামুটি একটি পরিষ্কার ধারনা দিয়ে থাকেন যাতে ডিভাইসের দোষ-ত্রুটি থাকলে তাও উল্লেখ করা থাকে।

৭। নিরাপত্তা নিশ্চিত করুনঃ এমন একটি স্থানে লেনদেন করার চেষ্টা করুন যাতে জন সমাগম বেশি থাকে এবং আমার মতে রাতের বেলায় লেনদেন না করাই ভালো। যেহেতু আপনি বিক্রেতাকে চেনেন না তাই এটি একটি ‘স্ক্যাম’ও তো হতে পারে। ধরুন একজন বাজে লোক এমনিই অ্যাড দিয়ে আপনাকে রাতের বেলায় ফার্মগেটে লেনদেনের সময় ফিক্সড করল। তখন আপনি টাকা নিয়ে যাবার পর দেখলেন আপনার টাকার অপেক্ষাতেই তিন চারজন বসে আছে, লেনদেনের কথা বাদই দিতে হবে তখন।

আশা করি, উপরের বিষয় গুলো অনুসরণ করলেই আপনি অন্তত ই-কমার্স সাইট গুলো থেকে লাভবানই হবেন। আজ এপর্যন্তই থাক, পরবর্তীতে নতুন কিছু নিয়ে হাজির হব ইনশাআল্লাহ্‌, সে পর্যন্ত প্রিয় টেকের সাথেই থাকুন।
– See more at: http://tech.priyo.com/blog/2014/4/09/24520.html#sthash.LUJBjJmj.dpuf

একটি উত্তর ত্যাগ