জানেন কি? থ্রিজি চালুর পর দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কমেছে!

0
269

বাংলাদেশে থ্রিজি সেবা চালু হওয়ার পর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ক্রমশ কমে যাচ্ছে! সর্বশেষ গত রোববার টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। গত ৮ সেপ্টেম্বর থ্রিজির অনুমোদন দেওয়ায় মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহাকারীর গ্রাহক সংখ্যা আরো বাড়বে বলে বিটিআরসির পক্ষ থেকে আশা প্রকাশ করা হয়েছিল। কিন্তু প্রকাশিত প্রতিবেদন বলছে উল্টোটা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মোবাইল অপারেটরসহ সব ইন্টারনেট সেবাদানকারী কোম্পানির জমা দেয়া হিসাব অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে মোট ইন্টারনেট গ্রাহক তিন কোটি ৫৭ লাখ ৯০ হাজার ১৪৬ জন। অথচ ৩১ আগস্ট পর্যন্ত ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল তিন কোটি ৬২ লাখ ৪৯ হাজার ১৮ জন। ৪ মাসে ইন্টারনেট গ্রাহক কমেছে ৪ লাখ ৫৮ হাজার ৮৭২ জন! তবে সব থেকে বেশি গ্রাহক কমেছে মোবাইল ইন্টারনেটের। এর আগে গত জুলাই মাসে দেশের মোট ইন্টারনেট গ্রাহকের তালিকা প্রকাশ করেছিল বিটিআরসি। সে তালিকায় গত ৩০ জুন পর্যন্ত দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ছিল ৩ কোটি ৫৬ লাখ ৩১ হাজার ২৬৯ জন।

Advertisement

Mobile-Internet-640_0 জানেন কি? থ্রিজি চালুর পর দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কমেছে!

বিটিআরসি সূত্রে আরও জানা গেছে, ডিসেম্বর পর্যন্ত মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল তিন কোটি ৪২ লাখ ৪৯ হাজার ৭৩১ জন। অথচ আগস্টে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ছিল তিন কোটি ৪৭ লাখ ১১ হাজার ১০১ জন। এখানে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক কমেছে ৪ লাখ ৬১ হাজার ৩৭০ জন।

ডিসেম্বর শেষ পর্যন্ত আইএসপি ও পিএসটিএন ১২ লাখ ২২ হাজার ৬২০ জন এবং ওয়াইমেক্স ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ১৫ হাজার ২৯৭ জন। অথচ আগস্টে আইএসপি ও পিএসটিএন ১২ লাখ ২২ হাজার ৬২০ জন এবং ওয়াইম্যাক্স ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল তিন লাখ ১৫ হাজার ৭৯৫ জন।

এদিকে গত এক বছরে দেশে মোবাইল গ্রাহক সংখ্যা বেড়েছে এক কোটি ৬৫ লাখ। ডিসেম্বরে দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক সংখ্যা ১১ কোটি ৩৭ লাখ ছাড়িয়েছে। সবচেয়ে বেশি মোবাইল ফোন গ্রাহক গ্রামীণফোনের। বাংলাদেশ টেলিকম নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, গত ডিসেম্বর মাস শেষে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন গ্রাহক সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ কোটি ৩৭ লাখ ৮৪ হাজার। যেখানে ২০১২ সালের ডিসেম্বর শেষে মোট গ্রাহক সংখ্যা ছিল নয় কোটি ৭১ লাখ ৮০ হাজার।

বিটিআরসি আরো জানায়, ডিসেম্বর মাস শেষে গ্রামীণফোনের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে চার কোটি ৭১ লাখ ১০ হাজার, দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বাংলালিংকের দুই কোটি ৭৬ লাখ ৯৪ হাজার, রবি দুই কোটি ৫৩ লাখ ৮০ হাজার, এয়ারটেল ৮২ লাখ ৬৯ হাজার, সিটিসেল ১৩ লাখ ৬৫ হাজার এবং টেলিটকের গ্রাহকসংখ্যা ২৮ লাখ ২২ হাজার।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here