গ্রামীণ ফোনের গোপন প্রতারণার শিকার হচ্ছেন গ্রাহকরা!

0
337

বর্তমান সময়কে বলা হয় তথ্য প্রযুক্তির স্বর্ণ সময়। আর এ সময়ে ইন্টারনেট মানব জীবনে রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। কিন্তু চাঁদেরও যেমন কলঙ্ক আছে, তেমনি এই ইন্টারনেট ব্যবহারেও কিছু ভোগান্তি রয়েছে যা মানুষকে পোহাতে হয়। প্রযুক্তি মানুষকে আরো দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছে দিতে থ্রিজি সেবা চালু করা হয়েছে। কিন্তু থ্রিজি সেবা ব্যবহারে প্রতিনিয়তই প্রতারণার শিকার হচ্ছেন গ্রাহকরা।

বিশেষ করে শীর্ষ মোবাইল অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণ ফোনের ক্ষেত্রে এ অভিযোগ উঠেছে। ‘গ্রামীণ ফোন থ্রিজি, ইচ্ছা হলেই চলো বহুদূর!’ এমন বিজ্ঞাপনে গ্রাহক টানতে সক্ষম হলেও টেকনিক্যাল প্রতারণার আশ্রয় নেয়ায় প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে কোম্পানিটির সেবা।

গ্রাহকদের অগোচরেই কেটে নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। প্রতিকার চেয়েও কোন সুফল পাচ্ছে না ভূক্তভোগীরা।

প্রশ্ন উঠেছে গ্রামীণ ফোনের থ্রিজি সেবার নেটওয়ার্কের গতি নিয়েও। খোদ রাজধানীতেও ঠিক মতো সেবা নিতে পাচ্ছেন না গ্রাহকরা। প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয় এ সেবার আওতামুক্ত হলেও প্রায় সময়ই গতি মন্থর হয়ে পড়ে। এছাড়া খিলগাঁও, রমনা এলাকায়ও এ ধরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গ্রামীণ ফোনের এক ইন্টারনেট গ্রাহক অভিযোগ করেন, “আমি দীর্ঘদিন ধরে গ্রামীণ ফোনের ২ জিবি প্যাকেজ ব্যবহার করি। কিন্তু প্রায় সময়ই মেয়াদ শেষে নানা ধরণের ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে আমার। সর্বশেষ গত ২৪ এপ্রিল রাত ৮টা ৪০ মিনিটে আমার ফোনে মেসেজ আসে এই মাত্র ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এর পরপরই আমি টাকা রিচার্জ করেই দেখি আমার এ্যাকাউন্টের ১২৫ টাকা উধাও।”

তিনি আরো বলেন, “পরবর্তীতে কাস্টমার কেয়ারে অভিযোগ করলে কর্মকর্তা বলেন, আপনি ২৪ ঘন্টায় ১২৫ টাকা ব্যবহার করেছেন, তাই কেটে রাখা হয়েছে। এইমাত্র মেয়াদ শেষের মেসেজে আসলো ২৪ ঘণ্টা পেলেন কোথায় -এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এটা টেকনিক্যাল ক্রুটির ব্যাপার বলে ফোন কেটে দেন।”

এছাড়াও নানা ধরনের প্রতারণা শিকার হচ্ছেন গ্রামীণ ফোনের গ্রাহকরা। প্রায়ই হয়রানির শিকার গ্রাহকদের অভিযোগ জমা পড়ে কোম্পানিটির কাছে। কিন্তু এ থেকে বের হয়ে আসতে শুধু সর্তকতা করা ছাড়া আর কোনই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

একজন ভুক্তভোগী পরিবর্তনকে জানান, গ্রামীণ ফোন বেশি লাভের সন্ধান করতে গিয়ে গ্রাহকদের স্বার্থ বিবেচনায় আনতে ব্যর্থ হচ্ছে। প্রতারণা রোধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

অতিরিক্তি টাকা কেটে নেয়ার কথা অস্বীকার করে গ্রামীণফোনের হেড অব কর্পোরেট কমিউনিকেশন তাহমিদ আজিজুল হক বলেন, “এমনটা হবার কথা নয়। গ্রামীণ ফোন গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করে, ভোগান্তি বাড়াতে নয়।”

বিটিআরসি জানিয়েছে, থ্রিজি সেবার মান নিশ্চিত ও প্রতারণা বন্ধে বিটিআরসি কাজ শুরু করেছে।

বিটিআরসি সূত্র জানিয়েছে, প্রায়ই থ্রিজি সেবা নিয়ে অভিযোগ উঠছে। থ্রিজি সেবার মান এবং দাম নিয়ে গ্রাহকরা যেন প্রতারিত না হয় সেজন্য থ্রিজি সেবাকে নজরদারির আওতায় আনা হচ্ছে।

গ্রাহক সংখ্যার দিক থেকে দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণফোন ৫১২ কেপিবিএস এবং এক এমপিবিএস গতির থ্রিজি সেবা দিচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ