সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

1
692
সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

ronykhan ron

নিজের সম্পর্কে তেমন কিছু বলার নাই । আসলে আমি নিজেই এখনো নিজেকে ভালো করে জানার চেষ্টায় আছি প্রতিনিয়ত । সব কিছু সম্পর্কে ব্যাপক কৌতুহল কাজ করে সব সময় । সেই কৌতুহল কাজ করা থেকেই মাঝে মাঝে কিছু একটা লেখার চেষ্টা করি । তবে সেই সব লেখার মান তেমন ভালো কোন সময়ই হয়তো হয়ে উঠে না ।
সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

অতীতে যখনই আমাদের সাথে কোনো ঘটনা ঘটে আমরা পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে সেটা অনুভব করি। আর সেই অভিজ্ঞতা রাসায়নিকের মাধ্যমে সঞ্চিত থাকে আমাদের মস্তিষ্কের Hippocampus নামের প্রকোষ্ঠে। যা থেকে পরবর্তী সময়ে আমরা সেটা মনে করতে পারি। পুরো প্রক্রিয়াটিই অত্যন্ত জটিল। ভবিষ্যতের সাথে আমাদের কোনো পরিচয় হয়নি তাই সে ব্যাপারে আমাদের Hippocampus এ কোনো তথ্য নেই। তাই আমরা ভবিষ্যৎ মনে করতে পারি না। সময় একটি ভৌত রাশি ভিন্ন কিছু নয়। এটি প্রকৃতির সৃষ্টি। এতে কারও হাত নেই। আমরা সময়ের আগে যেতে পারিনা বলেই ভবিষ্যৎ আমাদের কাছে কল্পবিজ্ঞান’।

সময় নিয়ে প্রচলিত ধারণাগুলো নিয়ে সবচেয়ে সুন্দর উত্তরটি আসে জনাব শাকির আহমেদের কাছ থেকে। স্থান ও সময়ের সাথে যোগসূত্র সাধন করে তিনি সময়ের একমুখী প্রবাহের দিকেও আলোকপাত করেন। তাঁর ভাষায় –
‘সময় নিয়ে যদি বলতেই হয় তবে আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতা তত্ত্ব অনুযায়ী বলা যায় স্থান যেমন দৈর্ঘ্য, প্রস্থ, উচ্চতা নামক ৩টি মাত্রা দিয়ে তৈরি, সময় ঠিক সেরকম একটি মাত্রা।

সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

বিশেষ আপেক্ষিক্তা তত্ত্ব থেকে দৈর্ঘ্য সংকোচন, কাল দীর্ঘায়নের মত বিচিত্র সব ব্যাপার যখন বের হয়ে আসল, তখন সেসব বিষয়কে ব্যাখ্যা করার জন্য Hermann Mikowski –র Minkowski Space খুব প্রয়োজনীয় হয়ে দাঁড়াল। Minkowski Space হলো চার মাত্রার ইউক্লিডিয়ান স্থান যেখানে সময়কে স্থানের মতই মাত্রা ধরে এক নতুন ধরনের Space গঠন করে যার বিন্দুগুলোকে বলে event. মজার কথা হল এই Minkowski Space বিশেষ আপেক্ষিকতার সব ঘটনাগুলো খুব সুন্দর করে ব্যাখ্যা করে।

আমরা কোন বিন্দুকে যেমন (x,y,z) দ্বারা চিহ্নিত করি Minkowski Space-এও কোন ঘটনাকে (event) (x,y,z,t) সংক্ষেপে (x,t) দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।
তাই সময়কে একটা প্যারামিটার বলা যায় যা দিয়ে আমরা কোনো একটা বস্তুর বর্ণানায় ব্যবহার করতে পারি। এটা একটা মাত্রা বৈ আর কিছু নয়! বস্তু নেই তো Spaceও নেই, একইভাবে বস্তু নেই তো সময়ও নেই।

যখন অতীত,বর্তমান, ভবিষ্যৎ এর কথা এসে পরে তখন সময়ের দিক, প্রবাহ ইত্যাদির কথাও এসে পরে। তাই এটি নিয়েও একটু আলোচনা করা যাক।
আলোর বেগ যেমন আমাদের মহাবিশ্বের একটি fundamental constant, সেরকম ভৌত বিধি হলো তাপগতিবিদ্যার সূত্রগুলো যা থেকে আমরা এনট্রপির ধারণা পাই। তাপগতিবিদ্যার দ্বিতীয় সূত্র আরো বলে মহাবিশ্বের এনট্রপি কখনও বাড়বে বৈ কমবে না। বা প্রাকৃতিকভাবে বিশৃঙ্খলা কখনই কমবে না, কিন্তু বাড়তে পারে।

সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

ব্যাপারটা আরো ভালমত অনুধাবন করতে গ্লাসের উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে। আপনি হাত থেকে গ্লাস ফেলে দিয়ে ভেঙে ফেলতে পারেন। কিন্তু কখনই একটি ভাঙা গ্লাস আপনাআপনি জোড়া লেগে মাটি থেকে আপনার হাতে উঠে আসবেনা বা স্বতঃস্ফূর্তভাবে বিশৃঙ্খলা শৃঙ্খলে আবদ্ধ হতে পারবেনা। (গ্লাসকে ইচ্ছা করলে আবার জোড়া লাগানো যায়, কিন্তু জোড়া লাগাতে যেয়ে মোট এনট্রপি আরও বেড়ে যাবে।)

মূলত সময়ের দিক এই বিষয়টিই নির্ণয় করে। সময়ের দিক বলতে এনট্রপির দিক বোঝায়। এনট্রপি যেহেতু বাড়ছে, আমরা সময়ের দিক বলতে ঐ দিকই বুঝি। মহাবিশ্বের শৃঙ্খলা থেকে বিশৃঙ্খলার দিকে যাওয়াই আমাদের কাছে সময়।
তার মানে বিশৃঙ্খলা বাড়ানো হচ্ছে ভবিষ্যতে যাওয়া আর বিশৃঙ্খলা কমানো হচ্ছে অতীতে যাওয়া। তাপগতিবিদ্যার দ্বিতীয় সূত্র বিশৃঙ্খলা কমানো নিষিদ্ধ করে দিয়েছে, তাই অতীতে যাওয়া অসম্ভব (অন্যভাবে অবশ্য সম্ভব!) ।

আর প্রবাহের কথা আসলে সময়ের কোন প্রবাহ নেই। মহাবিশ্ব শৃঙ্খলা থেকে বিশৃঙ্খলার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। কিন্তু শৃঙ্খলা, বিশৃঙ্খলার স্কেল বা সময়ের স্কেল স্থিরই আছে। ব্যাপারটা আনেকটা রাস্তায় চলার মত। গাড়ি দিয়ে রাস্তায় চললে আপনি রাস্তা দিয়ে সামনের দিকে যান, রাস্তা আপনার দিকে আসেনা (just an example. According to special relativity road actually does)।
তো রাস্তার সামনের দিকে দেখতে হলে সামনে থেকে আপনার দিকে আলো আসতে হবে। একইভাবে বর্তমানে থেকে ভবিষ্যত দেখতে হলে (জানতে হলে) ভবিষ্যত থেকে আপনার কাছে আলো বা কিছু আসতে হবে। যা একটু আগের ব্যাখ্যার জন্য সম্ভব না (Entropy can’t be reduced).

এখন একটু Psychological দিকে আসা যাক।
আমাদের মস্তিষ্ক Electrical Signal এর মাধ্যমে তথ্য সংরক্ষণ করে। কোন তথ্য সংরক্ষণ করার আগে যেটির অনেকগুলো State হতে পারে (When it comes to computer states become 0 and 1), কিন্তু তথ্য সংরক্ষণ করার পর তা যেকোন একটি State-এ এসে পড়ে। এই বিশৃঙ্খলা থেকে শৃঙ্খলায় আনার জন্য Electrical Signal গুলোর কিছুক্ষণ দৌড়াদৌড়ি করতে হয় এবং সেটি একটি Irreversible Process. সুতরাং মোট এনট্রপি বাড়ে। তাই Psychological Time এবং Entropy Time আসলে একই। আর এইসব কারণে আমরা ভবিষ্যৎ মনে করতে পারি না বা জানি না’।

সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

 

তবে এ বিষয়ে আমার নিজের দৃষ্টিভঙ্গিটা অনেকটা এরকম, ধরুণ আমরা কেন অতীত মনে রাখতে পারি? কারণ একটা ঘটনা থেকে ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য এবং পর্যবেক্ষণলব্ধ তথ্য জমা করে রাখে আমাদের মস্তিষ্ক। আর সময়ে সময়ে সেই ঘটনার সাথে কিয়দাংশ মিলে গেলে মস্তিষ্ক পুরো ঘটনা পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে মস্তিষ্ক অনেকাংশে সফল হয় বলে আমরা বলি আমরা অতীত মনে রাখতে পারি। এখন প্রশ্ন, আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না? সহজ উত্তর কারণ অনেকগুলো সম্ভাব্য ঘটনা একসাথে মনে রাখার মত ক্ষমতা আমাদের মস্তিষ্কের নেই। কিন্তু এই মহাবিশ্বের ভবিষ্যতে যে কোনো ঘটনা ঘটার এত সম্ভাব্যতা কেন, যেখানে অতীতে যে কোনো ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা মাত্র একটি? কেন আমরা বলছি ভবিষ্যতে অসীম সংখ্যাক উপায়ে যে কোনো ঘটনা ঘটতে পারে? প্রশ্নটার আরো গভীরে আওয়ার আগে আরেকটি প্রশ্ন, আমরা কি প্রতিমুহুর্তে অনেকগুলো সম্ভাব্য মহাবিশ্বের যে কোন একটিমাত্র মহাবিশ্বেই প্রবেশ করে যাচ্ছি? নাকি এরকম বহুবিশ্ব বলতে আসলে কিছু নেই? বর্তমান বিজ্ঞান বলে। হ্যাঁ এরকম বহুবিশ্বের অস্তিত্ব থাকতে পারে এবং আমরা প্রতিমুহুর্তেই অনেকগুলো সম্ভাব্য মহাবিশ্বের এ কোনো একটিতেই প্রবেশ করে যাচ্ছি। এজন্য মুহুর্ত আগেও যে মহাবিশ্বের ছিলাম তার স্মৃতি আমাদের মস্তিষ্কে রয়ে গিয়েছে। এই কারণে আমরা অতীত মনে রাখতে পারি। একই কারণে এক মুহুর্ত পরের অসীম সংখ্যাক মহাবিশ্বের সবগুলোর স্মৃতি আমাদের মত মস্তিষ্কে ধারণ করা অসম্ভব। এ থেকে মনে হয় ‘আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না’ এই প্রশ্নের একটা উত্তর মেলে

 

ঘুরে আসুন ফেসবুক এর এই পেজটি

সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?সময় কী? আমরা কেন ভবিষ্যৎ মনে রাখতে পারি না?

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ