প্রতিনিয়ত তথ্য দিচ্ছে সরকারকে গুগল। সাবধান থাকুন।

6
276
প্রতিনিয়ত তথ্য দিচ্ছে সরকারকে গুগল। সাবধান থাকুন।

মোঃ ইফতেখার আলম

আমি প্রযুক্তিকে ভালবাসি তাই নিত্য নতুন খোজ করি, আর এই জন্যই ব্লগিং করি আপনাদের জন্য, নিজের শিখা জিনিস গুলো শেয়ার করার জন্য। আমার বাংলা ব্লগ সময় হলে একবার দেখে আসবেন http://projuktirkhela.com/
প্রতিনিয়ত তথ্য দিচ্ছে সরকারকে গুগল। সাবধান থাকুন।

প্রতিনিয়ত তথ্য দিচ্ছে সরকারকে গুগল। সাবধান থাকুন।ইন্টারনেট বিশ্বের মানুষগুলোর ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে নিয়মিত নজরদারি রাখছে গোয়েন্দাসংস্থাগুলো। সম্প্রতি সিআইএ প্রধানের ইমেইলও এফবিআই তদন্তের আওতায় আসছে। মানুষের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে নজরদারি সবার জন্য অস্বস্তিকর বলেই মন্তব্য করেছে গণমাধ্যমগুলো। তবে অবাক করার মতো প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে গুগল। এ প্রতিবেদনে উল্লেখ, এ বছরের প্রথম ছয়মাসে বিশ্বব্যাপী সরকারের পক্ষ থেকে নিজ নিজ দেশের ইন্টারনেট ভোক্তাদের তথ্য চেয়ে ২০ হাজার ৯৩৮টি অনুরোধপত্র এসেছে। এর মধ্যে ৩৪ হাজার ৬১৪টি ইমেইল অ্যাকাউন্টের তথ্য চাওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, ২০১১ সালেও ২৫ হাজার ৩৪২টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়ে গুগলকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানিয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার। এ বছর সবচেয়ে বেশি অনুরোধ জানিয়েছে খোদ যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়াও ভারত, ব্রাজিল এবং ফ্রান্সের কথা গুগলের প্রকাশিত প্রতিবেদনে প্রকাশ হয়েছে। গুগল যুক্তরাষ্ট্রের প্রসঙ্গ টেনে জানিয়েছে, এ বছরের অর্ধেক সময়ের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সরকার ৭ হাজার ৯৬৯ বার অনুরোধ জানিয়ে পত্র দিয়েছে। এখানে ১৬ হাজার ২৮১টি অ্যাকাউন্টের তথ্য গুগলকে সরবরাহ করতে হয়েছে। এদিকে গুগল থেকেও গ্রাহকদের বিভিন্ন সময়ে অপরাধ কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার জন্য বারবার অনুরোধ জানানো হয়েছে। অপরাধমূলক তথ্য ইন্টানেটে আপলোড, আপত্তিজনক ছবি, গোপণ নথি প্রকাশ করাকেও গুগল নিরুৎসাহিত করে আসছে। এ সম্পর্কে গুগল সূত্র সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছে, এ বছর বিভিন্ন সরকার প্রধানদের পক্ষ থেকে ১ হাজার ৭৯১টি অনুরোধ এসেছে অনলাইন থেকে বিভিন্ন কনটেন্ট সরিয়ে ফেলার। গত বছর এর সংখ্যা ছিল ৯৪৯টি। এ তালিকায় অন্য সব দেশের তুলনায় সবচেয়ে বেশি আক্রমণাত্মক ছিল তুর্কি। তারা এ বছর ইউটিউব থেকে ৪২৬টি ভিডিও, ব্লগারদের ব্লগ সাইট, সরকারের বিপক্ষে প্রচারসহ বিভিন্ন কনটেন্ট মুছে ফেলার অনুরোধ জানানো হয়। এ ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন সময়ে আদালতের দারস্থ হয়েছে। এ বছর স্থানীয় সরকার প্রধানের বিরুদ্ধে ইন্টারনেটের সব তথ্য আদালতের নির্দেশক্রমে গুগলকে ৭টি ভিডিও ইউটিউব থেকে মুছে ফেলা হয়। প্রসঙ্গত, গুগল ২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর এমন বিশ্লেষনধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে।

তথ্য সূত্রঃ ইন্টারনেট

সময় হলে আমার ব্লগটি একবার দেখে আসবেনঃ প্রযুক্তির খেলা।

6 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ