কমিয়ে ফেলুন ইন্টারনেটের মাসিক বিল এবং উইন্ডোজের পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে কিভাবে ওপেন করবেন আপনার কমপিউটার

2
482

গত tuneটি আমার ভাল হয়নি এজন্য দুঃখিত,

কমিয়ে ফেলুন ইন্টারনেটের মাসিক বিল

আমাদের দেশেও ইন্টারনেটের ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। যারা সীমিত ব্যান্ডউইথের ইন্টারনেট চালাতে চান, অনেক সময় তাদের মাসের নির্ধারিত কোটা শেষ হয়ে যায় আগেই। তবে নির্দিষ্ট কিছু কাজ করলে ব্যান্ডউইথের খরচ অনেকখানি কমিয়ে নিয়ে আসা যায়। ইন্টারনেটের খরচ কমিয়ে নিয়ে আনার জন্য এই লেখায় কিছু টিপস জানানো হলো।
**ভিডিও চ্যাটিং বন্ধ রাখুন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভিডিও চ্যাটিং প্রচুর পরিমাণে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথড খরচ করে। স্কাইপি বা অন্যান্য ভিডিও চ্যাটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করলে অবশ্যই তা আপনার ব্যান্ডউইথকে খরচ করবে বেশি। আধাঘন্টার ভিডিও চ্যাটিংয়ে ১০০ থেকে ৩০০ মেগাবাইট খরচ হয়ে যেতে পারে। তাই যদি আপনার ইন্টরনেটের ব্যবহার সীমিত হয়ে থাকে, ভিডিও চ্যাটিংয়ের ক্ষেত্রে সাবধান হোন।
**ক্ষতিকর সফটওয়্যার থেকে সাবধান থাকুন। বিভিন্ন ম্যালিশিয়াস সফটওয়্যার বা ম্যালওয়্যার আপনার অজান্তেই প্রচুর পরিমাণে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ খরচ করে দিতে পারে, যার হিসাব আপনি মেলাতে পারবেন না। তাই অনলাইনে কোনো সন্দেহজনক সাইটে ঢুকবেন না এবং বিশ্বস্ত সাইট ছাড়া কোনো সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড ও ইন্সটল করবেন না। যদি ইন্টারনেটের খরচ ধারণার চাইতে অনেক বেশি হয়, তাহলে দ্রুত পিসি চেক করুন।
**অনলাইন গেমিং থেকে দূরে থাকুন। যাদের সীমিত ব্যান্ডউইথের ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয়, তাদের জন্য অনলাইন গেমিং বিলাসিতার নামান্তর। এক ঘন্টার অনলাইন গেমিংয়ে ১০০ মেগাবাইট খরচ হয়ে যেতে পারে। কাজেই প্রয়োজনের কাজগুলো করতে গেলে এই বিলাসিতা ত্যাগ করতে হবে।
**ভিডিও স্ট্রিমিং কম করুন। এক ঘন্টা ভিডিও স্ট্রিমিং করলে ২০০ মেগাবাইট পর্যন্ত খরচ হবে। ইউটিউব বা ভিমিও’র মত সাইটগুলো লোড করলেও ভিডিও স্বয়ংক্রিয়ভাবে লোড হতে থাকে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই এসব সাইটের অটো ভিডিও লোড অপশন বন্ধ করে রাখতে হবে। অন্যান্য সাইটের ভিডিও লিংকগুলোও অটো লোড বন্ধ করে দিন। কেবল দরকারের ভিডিওটিই দেখুন। বাকিগুলো অটো লোড না হলে দেখবেন ইন্টারনেটের ব্যবহার অনেকখানি সাশ্রয় হবে।

উইন্ডোজের পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে কিভাবে ওপেন করবেন আপনার কমপিউটার

আমরা কম্পিউটারের নিরাত্ত্বার জন্য উইন্ডোজ বা বায়োস পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে থাকি। আর যদি কখনও পাসওয়ার্ড ভুলে যায় তাহলে আমাদের করণীয় কি তা নির্ধারণ করতে পারি না। অনেক সময় নতুন করে উইন্ডোজ ইনষ্টল করতে হয়। কিন্তু সেক্ষেত্রে তথ্য হারাতে হতে পারে কিংবা অনেক প্রয়োজনীয় ইনষ্টল করা প্রোগ্রাম থাকবে না যা হইতো ব্যাকআপে নেই। সেক্ষেত্রে আপনাকে পুরানো উইন্ডোজই পেতে হবে যেকোন উপায়ে। আপনি পুরাতন পাসওয়ার্ড না পেলেও পাসওয়ার্ড মুছে দিতে পারেন। নিচে এমনই কিছু উপায় দেওয়া হলো। কম্পিউটারের সিস্টেম (বায়োস) পাসওয়ার্ড দেওয়া থাকলে তা মুছতে হলে সিস্টেমের ব্যাটারী কিছুক্ষণ খুলে রেখে কম্পিউটার চালালে দেখবেন সিস্টেমের কোন পাসওয়ার্ড নেই। আর উইন্ডোজের পাসওয়ার্ডের ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি উপায় আছে।
পদ্ধতি ১: আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিক্সটি খুলে অন্য একটি কম্পিউটারের সাথে যুক্ত করে যে ড্রাইভে উইন্ডোজ ইনষ্টল দেওয়া আছে সে ড্রাইভ (ড্রাইভ ফরমেট FAT এর ক্ষেত্রে, NTFS হলে হবে না) windows\system32\config ফোল্ডারের sam ফাইলটি মুছে দিতে হবে। এবার আপনার কম্পিউটারে হার্ডডিক্স লাগিয়ে চালু করে দেখুন পাসওয়ার্ড ছাড়াও আগের ইউজারেই কম্পিউটার খুলছে।
পদ্ধতি ২: এছাড়াও একটি বুটেবল ডিক্স দিয়ে ডস (DOS) মুডে কম্পিউটার চালু করুন (ড্রাইভ ফরমেট FAT এর ক্ষেত্রে, NTFS হলে হবে না) এবং সিস্টেম৩২ এর কনফিগ (system32\config) ফোল্ডারের যান (C:\windows\system32\config)। এরপর attrib -s -h -r sam কমান্ড লিখে এন্টার করুন এবং del sam কমান্ড লিখে এন্টার করে কম্পিউটার রিষ্টার্ট করে দেখুন আগের ইউজারেই পাসওয়ার্ড ছাড়ায় কম্পিউটার খুলছে। পদ্ধতি ৩: আর আপনার কম্পিউটারের ড্রাইভ ফরমেট যদি NTFS হয় তাহলে প্রথম দুটি পদ্ধতি কাজে লাগবে না। এজন্য উইন্ডোজ রিপিয়ারের মাধ্যমে পাসওয়ার্ড মুছতে হবে। প্রথমে উইন্ডোজ এক্সপির বুটেবল সিডি নিন এবং তা সিডি রমে প্রবেশ করান (প্রয়োজনে বায়সে প্রথম বুট হিসাবে সিডি রম সিলেক্ট করুন)। এরপর যখন Press any key to boot from CD আসবে তখন যেকোন কী চাপ দিন তাহলে ফাইল লোডিং শুরু হবে। এবার Welcome to Setup screen থেকে ENTER চাপুন এবং F8 চাপুন। পরবর্তী স্ক্রিন থেকে রিপিয়ার করার জন্য R চাপুন। এরপর ফাইল কপি হবার পরে কম্পিউটার সয়ংক্রিয়ভাবে রিস্টার্ট হবে। এরপর যখন কম্পিউটার ওপেন হবে তখন Press any key to boot from CD না চাপলে ইনষ্টলের পরবর্তী অংশ শুরু হবে। এখন প্রসেস বার আসার পরপরই SHIFT+F10 চাপুন তাহলে কমান্ড কনসল আসবে। এখানে NUSRMGR.CPL লিখে ENTER করুন তাহলে User Accounts ডায়ালগ বক্স আসবে। এখান থেকে ইচ্ছেমত ইউজারের পাসওয়ার্ড মুছে ফেলা যাবে বা পরিবর্তন করা যাবে। অবশেষে উইন্ডোজ রিপিয়ার শেষ করুন। যদি এডমিনিছটেটর পাসওয়ার্ড জানা থাকে তাহলে কোন ঝামেলা নাই। এডমিনিছটেটর দিয়ে লগ-ইন করে ইউজারের পাসওয়ার্ড মুছে ফেলা যাবে।

আমার ব্লগ দেখতে পারেন

2 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ