অডেস্ক একাউন্ট সাসপেন্ড হউয়ার কিছু কারন…

1
456
অডেস্ক একাউন্ট সাসপেন্ড হউয়ার কিছু কারন...

ওয়েস্ট লাইফ

বয়স অনেক কম কিন্তু টেকনোলোজিকে অনেক অনেক ভালোবাসি। আমার ঘরে প্রযুক্তি সম্পর্কিত যন্ত্রসমুহ যেমন আইপ্যাড, আইপড, আইফোন, Play Station 3, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, Xbox ইত্যাদি প্রায় সবই আছে। আমার ইউজারনেম কেন তা আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন। কারণ আমি জনপ্রিয় হলিউড ব্যান্ড এর মস্ত বড় ফ্যান। আমি টিউনার পেজে আমার জানা সবকিছু শেয়ার করার চেষ্টা করব। আপনাদের সকলের সাথে প্রযুক্তির যাত্রা শেষ হবে না যতদিন পর্যন্ত আপনারা আমাকে সাপর্ট করবেন। আমি বেশিরভাগ সময় লেখাপড়া নিয়ে ব্যস্ত থাকি তাই চেষ্টা করব যতটা সম্ভব টিউনার পেজের সাথে থাকার।
অডেস্ক একাউন্ট সাসপেন্ড হউয়ার কিছু কারন...

অডেস্ক একাউন্ট সাসপেনশনের ব্যাপারে কিছু কথা , , , , কি কি কারনে একাউন্ট সাসপেন্ড খাইতে পারেন তার একটা সম্ভাব্য গবেষণা করলাম মনে মনে।

যেমন,
১, সবার আগে নিজের কভার লেটার ঠিক করেন। স্প্যাম কভাব লেটার হলেই ধরা খাবেন কিছুদিন পরে। কি কি কারনে স্প্যাম হয়, অন্যের কভার লেটারে নাম চেঞ্জ করে চালাতে চাইলে, তখন বায়ার দেখবে সবগুলান একই কথা লেখছে। তখন সবগুলানরে ধইরা ফ্ল্যাগ করবে। আবার নিজের ইউনিক কভার লেটারই যদি সব সময় কপি পেস্ট করেন তাইলে অডেস্ক নিজেই ধরে ফেলবে এইটা। সো, যখন এপ্লাই করবেন তখন বায়ার জা চাইবে সেই অনুসারে সময় নিয়ে কভার লেটার লেখুন। মনে রাখবেন, বায়ার সবার আগে দেখবে আপনার কভার লেটার এবং তার পরে প্রোফাইল। সো নতুন দের জন্য কভার লেটার সবার আগে। তার পর প্রোফাইলের দিকে নজর দেন।

২, বায়ারের সাথে খারাপ ব্যাবহার করলে সাসপেন্ড খাবেন যদি বিচার দেয়। জদিও ফিডব্যাক দেওয়ার ব্যাবস্থা আছে, তারপরেও আপনাকে খারাপ ফিডব্যাক দিয়েও যদি বায়ারের মনে শান্তি না আসে তাইলে নির্ঘাত আপ্নের খবর আছে। আর বায়ারতো শুধু রিপোর্ট করবে না, আপনার খারাপ কিছু দেখলেই কেবল এই কাজ করবে সে।

ওডেস্কে ভুল করেও যা করবেন না

অনেক ভাল কাজ জানার পরও দেখা যায় হুটহাট করে অনেকের একাউন্ট সাসপেন্ড হয়ে থাকে। এ সংক্রান্ত অনেক জিজ্ঞাসা এ গ্রুপে এমনকি আমার ব্যক্তিগত মেসেজেও আসে। ব্যস্ততার কারণে অধিকাংশ মেসেজেরই উত্তর দিতে দেরী হয় অনেক মেসেজের জবাব দেয়াও হয় না। আমার জানামতে ওডেস্ক কয়েকটি বিষয় খুব গুরুত্বের সাথে দেখে সেগুলো হচ্ছে-
প্রোফাইল : অনেকেই দেখা যায় নতুন সাইনআপ করে আরেকজনের প্রোফাইলের লেখাগুলো কপিপেস্ট মেরে দিলেন। তারা সাবধান। ওডেস্কের কিছু কর্মী আছে যারা নিয়মিত প্রোফাইল পরীক্ষা করে। কারো আগে কারো পরে। ধরা পড়লে নোটিশে বা বিনা নোটিশে সাসপেন্ড হবার সম্ভাবনা আছে।
পোর্টফোলিও : এক্ষেত্রেও উপরের কথাটিই প্রযোজ্য।

ছবি : আপনার একাউন্টটি যদি ব্যক্তিগত একাউন্ট হয়ে থাকে তাহলে আপনার নিজের সাম্প্রতিক ছবি দিতে হবে। কোন লোগো আ অন্য কিছু না। আর টিমের ক্ষেত্রে টিমের লোগো দিতে পারবেন।
কভার লেটার : ওডেস্কের নীতিমালা অনুসারে কোন কাজে বিড করার আগে জব পোস্টটি ভালভাবে পড়ে বুঝে সেই জব পোস্ট অনুসারে কভার লেটার লিখতে হবে। একটা কভার লেটার লিখে রেখে সবখানে ওটা পেস্ট করতে থাকলে স্পামার হিসেবে সাসপেন্ড হতে পারেন।

বাইরে যোগাযোগ : কভার লেটার বা প্রোফাইলে কখনো ঠিকানা, ফোন নম্বর, ইমেইল, মেসেঞ্জার আইডি ইত্যাদি দেবেন না। এগুলো শুধুমাত্র তখনই দিতে পারবেন (অন্তত ইন্টারভিউ লেভেলে) যদি আপনার এমপ্লয়ার আপনার কাছে কাজের স্বার্থে চেয়ে থাকেন।
বাইরে লেনদেন : আপনার কোন এমপ্লয়ার যদি আপনাকে ওডেস্কের বাইরে পেমেন্ট নেবার প্রস্তাব করে, সরাসরি প্রত্যাখ্যান করুন। কোনভাবেই ওডেস্কের বাইরে লেনদেন করা যাবে না।
পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর ফাঁস : ওডেস্কের স্কিল টেস্টের প্রশ্নোত্তর অনেকেই নিজের ব্লগে প্রকাশ করে থাকেন। ধরা খেলে সাসপেন্ড হবেন তাতে কোন সন্দেহ নেই। আপনার যদি একান্তই শেখানোর ইচ্ছা থাকে তবে পরীক্ষার সিলেবাস নিয়ে আলোচনা করুন, কাজ শেখার জন্য টিউটোরিয়াল লিখুন। প্রশ্নোত্তর নয়।

৩, শেষ কথা হল, ধরুন কোন একটা রিপোরট এর কারনে আপনাকে অডেস্ক থেকে টিকেট দিলো। আপনি অই টিকেটের সঙ্গে সঙ্গে রিপ্লাই দিবেন, সরি বলবেন বা কৈফিয়ত দেওয়ার চেষ্টা করবেন। কারন টিকেট এর নিচে লেখা থাকে যে, আপনি যদি ২ বা ৩ বা ৪ ঘন্টার মদ্ধে এই টিকিটের রিপ্লাই দিতে না পারেন, তাইলে আপনার একাউন্ট সাসপেন্ড কার হবে। সেটা হতে পারে টেম্পোরারী বা পারমানেন্ট। আর মনে রাখবেন পারমানেন্ট সাসপেন্ড মানে সব শেষ। তখন হাতে পায়ে ধরেও কিছু হবে না। আমি নিজে অদের জিজ্ঞেস করছি। টেম্পোরারির ক্ষেত্রে ঠিক হতে টাইম নেয় প্রায় ১৫ দিনের মতন তবে দোষ বুঝে।

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ