জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

2
353

সবাইকে আজকের টিউনে স্বাগতম। আমার এই টিউনটি হচ্ছে নতুন পণ্যের খবরাখবর নিয়ে মাসিক ধারাবাহিক প্রতিবেদনের দ্বিতীয় পর্ব। :)

বিগত এক মাসে মাইক্রোসফট, অ্যাপল, স্যামসাং, নকিয়া, এইচটিসি সহ শীর্ষস্থানীয় মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন ভিত্তিক কোম্পানী গুলো তাদের বেশ কিছু নতুন পণ্য ছেড়েছে বাজারে। আবার কিছু পণ্য আছে বাজারে ছাড়ার অপেক্ষায়! তবে পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে যে গত একমাসে যতগুলো পণ্য বাজারে এসেছে বা পণ্যের পেটেন্ট হয়েছে, তার বেশীর ভাগই স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেট পিসি।

চলুন দেখে নেয়া যাক কি কি আসছে নতুন! :)

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

 

 

এইচটিসির উইন্ডোজ ফোন

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

স্যামসাং ও নকিয়ার পর এবার উইন্ডোজ ফোন তৈরির ঘোষণা দিয়েছে তাইওয়ানের ইলেকট্রনিক পণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান এইচটিসি। গত ১৯ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে এ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনও ডেকেছিল প্রতিষ্ঠানটি। এ অনুষ্ঠানেই প্রতিষ্ঠানটি মাইক্রোসফটের নতুন অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ ফোন ৮ নির্ভর স্মার্টফোনের ঘোষণা দেয়।

নিউইয়র্কে ওই সংবাদ সম্মেলনে ‘জেনিথ’ ‘অ্যাকর্ড’ ও ‘রিও’ নামের তিনটি মডেলের উইন্ডোজ স্মার্টফোনের ঘোষণা দেয় এইচটিসি। প্রযুক্তিবিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, এইচটিসির জেনিথ হবে হাই এন্ডের বা বেশি দামের স্মার্টফোন, অ্যাকর্ড মিড রেঞ্জের বা মাঝারি মূল্যের আর রিও হবে লোয়ার এন্ডের বা সাশ্রয়ী দামের।

 

আসছে এইচটিসির দুই ট্যাবলেট

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

স্যামসাং, সনি, নকিয়া, মাইক্রোসফট, মটোরোলা আর আমাজনের পর প্রযুক্তিপ্রেমীদের চোখ ছিল ১৯ সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হওয়া এইচটিসির সংবাদ সম্মেলনের দিকে। ১৯ সেপ্টেম্বরের এ অনুষ্ঠানে তাইওয়ানের স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এইচটিসি নতুন দুটি ট্যাবলেট কম্পিউটারের ঘোষণা দেয়।

এর আগে চলতি বছরের জুলাই মাসে এইচটিসি কর্মকর্তার বরাতে পিসি অ্যাডভাইজার নামের একটি প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল এইচটিসি নতুন ট্যাবলেট কম্পিউটার বাজারে আনার তথ্য। ট্যাবলেট বাজারে এইচটিসির পদক্ষেপ অবশ্য এবারই নতুন নয়। ২০১১ সালে বাজারে এসেছিল এইচটিসির অ্যান্ড্রয়েড নির্ভর ট্যাবলেট ‘এইচটিসি ফ্লেয়ার’; এ ট্যাবলেটটির দাম ছিল ৬০০ ডলার।

তবে প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত দামের কারণে এইচটিসির ফ্লেয়ার ট্যাবলেটটি বাজারে জনপ্রিয় হয়নি, সম্ভবত এ কারণেই এবারে সাশ্রয়ী নতুন ট্যাবলেট বাজারে এনে নিজেদের অবস্থান তৈরি করতে চাইছে প্রতিষ্ঠানটি।। প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করণ জেলিবিন নির্ভর হতে পারে ৭ ইঞ্চি মাপের নতুন এইচটিসি ট্যাবলেট। এ ট্যাবলেটের সঙ্গে থাকতে পারে ডিজিটাল পেন।

এছাড়া স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর, পেছনে ৩ ও সামনে ১ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ও উন্নত রেজুলেশনের ডিসপ্লেও থাকবে এ ট্যাবলেটটিতে। জানা গেছে, ৭ ইঞ্চি ছাড়াও ১০ ইঞ্চি মাপের টেগ্রা ৩ প্রসেসর ও ১ গিগাবাইট র‍্যাম যুক্ত একটি ট্যাবলেট আনতে পারে এইচটিসি।

 

আসছে ইনটেলের ‘হ্যাসওয়েল’ প্রসেসর

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

কম্পিউটারের জন্য নতুন প্রজন্মের প্রসেসর বাজারে আনছে ইনটেল। বিদ্যুৎসাশ্রয়ী এ প্রসেসর চলতি মাসে বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দিতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। চলতি মাসে সান ফ্রান্সিসকোতে অনুষ্ঠিতব্য ইনটেল ডেভেলপার ফোরাম নামের বার্ষিক অনুষ্ঠানে ‘হ্যাসওয়েল’ নামে নতুন প্রজন্মের কম্পিউটার প্রসেসরের ঘোষণা দিতে পারে ইনটেল।

প্রযুক্তিবিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, বিদ্যুৎসাশ্রয়ী প্রসেসর হিসেবে হ্যাসওয়েল কম্পিউটিংয়ের দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি গ্রাফিকসের মানও উন্নত করবে। বিদ্যুতের খরচ ১৭ ওয়াট থেকে ১০ ওয়াটে নামিয়ে আনবে। ফলে এ প্রসেসরচালিত ল্যাপটপে চার্জ থাকবে দীর্ঘসময়। প্রযুক্তিবিশ্লেষকেরা জানিয়েছেন, বর্তমানে কম্পিউটারের চাহিদা কমে যাচ্ছে। তবে নতুন প্রজন্মের ইনটেলের প্রসেসর কম্পিউটার বাজারকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করতে পারে।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে লাস ভেগাসে অনুষ্ঠিত কনজিউমার ইলেকট্রনিক শোতে (সিইএস) এক সংবাদ সম্মেলনে ইনটেলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মুলি ইডেন জানিয়েছিলেন, আলট্রাবুক নামের হালকা-পাতলা মডেলের ল্যাপটপগুলোর ক্ষমতা বাড়াতে ইনটেল আইভিব্রিজ ও হ্যাসওয়েল প্রসেসর নিয়ে কাজ করছে।

২০১২ সালে ইনটেলের চিপযুক্ত ৭৫টি মডেলের ল্যাপটপ বাজারে ছাড়া হতে পারে। আলট্রাবুকের দাম কমানোর জন্য চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছে ইনটেল।

 

আমাজনের নতুন যোদ্ধা ‘কিন্ডল ফায়ার এইচডি’

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

অনলাইনে পণ্য বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান আমাজনের প্রধান নির্বাহী জেফ বেজোস ৬ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার নতুন তিনটি পণ্যের ঘোষণা দিয়েছেন। প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা বলছেন, ইন্টারনেটের এ যুগে, মোবাইল পণ্যের ক্ষেত্রে আমাজনের নতুন সৈনিক হিসেবে এ পণ্যগুলো অ্যাপল ও গুগলের পণ্যের সঙ্গে বাজারে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।

৬ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলেসে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ৭ ইঞ্চি কিন্ডল ফায়ারের হাই ডেফিনেশন (এইচডি) সংস্করণের সঙ্গে ৮.৯ ইঞ্চি কিন্ডল ফায়ার ট্যাবলেটের ঘোষণা দিয়েছেন আমাজন নির্বাহী জেফ বেজোস। একই সঙ্গে নতুন কিন্ডল ই-বুক রিডারেরও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। আমাজনের কিন্ডল ফায়ার এইচডি মডেলের ৮.৯ ইঞ্চি মাপের ট্যাবলেটটি ৮.৮ মিলিমিটার পুরু আর ওজন ৫৬০ গ্রাম।

এতে রয়েছে ডুয়াল ব্যান্ডের ওয়াই-ফাই, দুটি অ্যানটেনা। বেজোস জানিয়েছেন, নতুন কিন্ডল ফায়ারের প্রসেসরের গতি অ্যাপলের সর্বশেষ বাজারে আসা নিউ আইপ্যাডের চেয়েও ৪১ শতাংশ বেশি। প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা বলছেন, আমাজনের কিন্ডল ট্যাবলেটের ক্ষেত্রে দামই সবচেয়ে বড় নির্ণায়ক। একমাত্র সাশ্রয়ী দামের ট্যাবলেটই আমাজনকে যুদ্ধে জয়ী করতে পারে। আমাজনকে বর্তমানে ট্যাবলেটের বাজারে অ্যাপল ও গুগলের অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর ট্যাবলেটের সঙ্গে টিকে থাকার লড়াই লড়তে হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে প্যাসিফিক ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের প্রযুক্তি বিশ্লেষক চাদ বার্টলে জানিয়েছেন, ইন্টারনেট ভিত্তিক পণ্য বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ট্যাবলেট যুদ্ধে জয়ী হওয়াটা আমাজনের জন্য জরুরি।

যুদ্ধে জয়ী হতে আমাজন নতুন ট্যাবলেটগুলো দামের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন এনেছে। নতুন ট্যাবলেটগুলোর দাম ১৫৯ ডলার থেকে ৫৯৯ ডলারের মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি। আমাজনের কিন্ডল ফায়ারের প্রথম সংস্করণটি ছিল ৭ ইঞ্চি মাপের। এর দাম ছিল ১৯৯ ডলার।

প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা জানিয়েছেন, বর্তমানে ট্যাবলেটের বাজারে ‘দাম’ জনপ্রিয়তার সবচেয়ে বড় নির্ণায়ক। বর্তমানে ২০০ ডলারের নীচে অনেক ট্যাবলেট বাজারে চলে এসেছে। আমাজন যদি ট্যাবলেটের দাম ১৫০ ডলারের নীচে রাখতে পারে তবে অন্য ট্যাবলেট নির্মাতাদের জন্যও বাজার ধরতে দাম কমানোর প্রতিযোগিতায় নামতে হবে। এ ক্ষেত্রে আমাজন সফল।

অক্টোবরের শেষ নাগাদ এ পণ্যগুলো বাজারে সহজলভ্য হবে।

 

নভেম্বরেই নতুন লুমিয়া

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

ফিনল্যান্ডের মুঠোফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান নকিয়া চলতি বছরের নভেম্বর মাসে বাজারে আনবে দুটি নতুন মডেলের স্মার্টফোন। নিউইয়র্কের এক অনুষ্ঠানে ৫ সেপ্টেম্বর নকিয়ার প্রধান নির্বাহী স্টিফেন ইলোপ লুমিয়া সিরিজের উইন্ডোজনির্ভর দুটি স্মার্টফোনের ঘোষণা দিয়েছেন। উইন্ডোজ ফোন ৮ অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর নতুন দুটি স্মার্টফোন হচ্ছে লুমিয়া ৯২০ ও লুমিয়া ৮২০।

এ অনুষ্ঠানে নকিয়ার প্রধান নির্বাহী এ ফোনটি নিয়ে উচ্চাশা পোষণ করলেও প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, এ দুটি স্মার্টফোনই নকিয়ার জন্য শেষ সুযোগ হতে পারে। বাজার বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, উইন্ডোজ ফোন ৮ অপারেটিং সিস্টেম নির্ভর লুমিয়া ৯২০ ও লুমিয়া ৮২০ স্মার্টফোন দুটি বাজারে আনার ঘোষণা দেওয়ার পর পুরোনো মডেলের উইন্ডোজ স্মার্টফোনগুলোর দাম কমানোর ঘোষণা দিতে যাচ্ছে লোকসানের মুখে পড়া নকিয়া।

বাজার বিশ্লেষকেরা আরও জানিয়েছেন, বাজারে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলতে মিড রেঞ্জ বা মাঝারি দামের স্মার্টফোন হিসেবে লুমিয়া ৮০০ উইন্ডোজ ফোনের দাম ১৫ শতাংশ কমাতে পারে নকিয়া। পাশাপাশি অন্যান্য মডেলের পুরোনো উইন্ডোজ ফোনের দাম কমানোর ঘোষণাও দিতে পারে ফিনল্যান্ডের মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি।

লুমিয়া ৯২০ স্মার্টফোনটিতে রয়েছে সাড়ে চার ইঞ্চি মাপের বাঁকানো এইচডি প্রযুক্তির ডিসপ্লে, ডুয়াল কোরের ১.৫ গিগাহার্টজের প্রসেসর, ১ গিগাবাইট র‍্যাম, নিয়ার ফিল্ড কমিউনিকেশন (এনএফসি) প্রযুক্তি, ৮ মেগাপিক্সেল পিউরিভিউ ক্যামেরা সুবিধা। শক্ত প্লাস্টিক বা পলিকার্বনেটের তৈরি লুমিয়া ৯২০ স্মার্টফোনটিতে তারবিহীন চার্জিং পদ্ধতি যুক্ত হয়েছে। এলটিই এবং এইচএসপিএ+ উভয় প্রযুক্তি সমর্থন করবে লুমিয়া ৯২০।

লুমিয়া সিরিজের নতুন ৮২০ স্মার্টফোনটি ৪.৩ ইঞ্চি মাপের সমান্তরাল ওএলইডি স্ক্রিনের সঙ্গে রয়েছে ডুয়াল কোরের প্রসেসর, ১ গিগাবাইট র‍্যাম, এনএফসি ও তারবিহীন চার্জিং পদ্ধতি। লুমিয়া ৮২০-এ রয়েছে কার্ল জেইস লেন্সভিত্তিক ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। এ ছাড়া ভয়েস চ্যাটের জন্য সামনের দিকে রয়েছে ভিজিএ ক্যামেরা। ৮ গিগাবাইট মেমোরির পাশাপাশি রয়েছে মাইক্রোএসডি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা এবং স্কাই ড্রাইভে ৭ গিগাবাইট তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা। সাতটি রঙে বাজারে আসবে নকিয়ার লুমিয়া ৮২০।

 

স্মার্টফোনে যাচ্ছে এইচপি!

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

অ্যাপল ও স্যামসাংয়ের মতো স্মার্টফোন বাজারে নিজেদের দেখতে চান হিউলেট-প্যাকার্ড বা এইচপির প্রধান নির্বাহী মেগ হুইটম্যান। এইচপি শিগগিরই স্মার্টফোন বাজারে আসবে বলে সম্প্রতি ফক্স বিজনেসকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন তিনি।

মেগ হুইটম্যান বলেন, ‘আমরা স্মার্টফোন তৈরি করতেই পারি। কারণ, পৃথিবীর অনেক দেশে এখন কম্পিউটার বা ট্যাবলেটের পরিবর্তে স্মার্টফোন ব্যবহূত হচ্ছে। পৃথিবীতে এখন অনেক অঞ্চল আছে, যেখানে কম্পিউটার বা ট্যাবলেটের কোনো প্রচলন না থাকলেও মুঠোফোন পৌঁছে গেছে। এইচপি কম্পিউটার নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে এ সুযোগ নিয়ে স্মার্টফোন তৈরি করতে পারে।’

এদিকে প্রযুক্তিবিশ্লেষকেরা জানিয়েছেন, কম্পিউটারের বাজার ক্রমশ কমে আসছে। তাই কম্পিউটারের বাজারের পাশাপাশি ব্যবসা বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিয়ে যাওয়ার জন্য এইচপিকে সংগ্রাম করতে হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের বাজার ধরাটা একটা ভালো সুযোগ হতে পারে।

 

এইচপি আনছে উইন্ডোজনির্ভর ‘এলিটপ্যাড ৯০০’

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

হিউলেট প্যাকার্ড বা এইচপি সম্প্রতি ‘এলিটপ্যাড ৯০০’ নামের একটি উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর ট্যাবলেট কম্পিউটার বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে। এ ট্যাবলেট কম্পিউটারটি ব্যবসায়ীদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হচ্ছে বলেও এইচপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ।

এইচপি জানিয়েছে, ‘এলিটপ্যাড ৯০০’ নামের এই ট্যাবলেটটিতে থাকছে ইনটেলের ‘ক্লোভার টেইল’ প্রসেসর ও নিরাপত্তাবিষয়ক সফটওয়্যারসহ প্রয়োজনীয় আনুষঙ্গিক উপকরণ। এ প্রসঙ্গে ইনটেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ‘এলিটপ্যাড ৯০০’ মডেলের উইন্ডোজচালিত ট্যাবলেটটিতে ক্লোভার টেইল নামের ইনটেল অ্যাটম প্রসেসর ব্যবহূত হয়েছে। এই প্রসেসরটি কম শক্তিতে চলে। ফলে এইচপির এলিটপ্যাড কম শক্তি খরচ করবে। পাশাপাশি উইন্ডোজ ৭ ও উইন্ডোজ এক্সপির বিভিন্ন পুরোনো অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার সমর্থন করবে।

দেড় পাউন্ড ওজনের ‘এলিটপ্যাড ৯০০’ হবে মাত্র ০.৩৪ ইঞ্চি পুরুত্বের। এতে ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত তথ্য সংরক্ষণ করে রাখা যাবে। ওয়াই-ফাই, থ্রিজি, এনএফসি, ব্লুটুথ৪.০ সুবিধা থাকবে এলিটপ্যাডে। ১০.১ ইঞ্চি মাপের ডিসপ্লেযুক্ত এ ট্যাবলেটে সামনে ও পেছনে থাকবে ক্যামেরা । পেছনের ক্যামেরাটির সাহায্যে ৮ মেগাপিক্সেলে ছবি তোলা যাবে। এ ছাড়াও এ ট্যাবলেটটির সঙ্গে কিবোর্ড, ডক, অ্যাডাপ্টর, স্টাইলাস পেনসহ বিভিন্ন উপকরণের ইকোসিস্টেম তৈরি করছে এইচপি।

২০১৩ সালের জানুয়ারি মাসে এ এলিটপ্যাড ৯০০ বাজারে আনবে এইচপি। এসময়েই ট্যাবলেটটির দাম প্রকাশ করবে এইচপি।

 

আসছে স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি এস ৪!

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

গ্যালাক্সি এস সিরিজের পরবর্তী স্মার্টফোন ‘গ্যালাক্সি এস ৪’ বাজারে আনার পরিকল্পনা করছে দক্ষিণ কোরিয়ার ইলেকট্রনিক পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং। স্যামসাং কর্মকর্তাদের বরাতে প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট ভার্জ জানিয়েছে, সম্প্রতি বাজারে আসা অ্যাপলের ‘আইফোন ৫’ স্মার্টফোনটিকে টেক্কা দিতেই ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে গ্যালাক্সি এস ৪ বাজারে আনবে স্যামসাং।

২০১৩ সালে বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিতব্য মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস নামের অনুষ্ঠানে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৪ নামের স্মার্টফোনটি বাজারে আনার ঘোষণা দেওয়া হবে বলেই দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদপত্র কোরিয়া টাইমসকে জানিয়েছেন স্যামসাংয়ের এক কর্মকর্তা। স্যামসাংয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৪ বাজারে আসবে আগামী বছরের মার্চ মাসে।

কোরিয়া টাইমসের এক প্রতিবেদন অনুসারে, স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৪ স্মার্টফোনটিতে চমক হিসেবে ডিসপ্লের মাপ আরও বড় করবে প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমানে গ্যালাক্সি এস ৩ এর ৪.৮ ইঞ্চি মাপের ডিসপ্লের তুলনায় গ্যালাক্সি এস ফোরে থাকবে ৫ ইঞ্চি মাপের ডিসপ্লে। স্যামসাংয়ের এ স্মার্টফোনটিকে বাঁকানো বা সহজেই ভাঁজ করা যাবে। চতুর্থ প্রজন্মের এলটিই নেটওয়ার্ক সুবিধা, কোয়াডকোরের এক্সিনয়িস প্রসেসর, ১৩ মেগাপিক্সেলের উন্নত ক্যামেরাসহ থাকবে নতুন বেশ কিছু ফিচার। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৪ স্মার্টফোনটি হবে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করণনির্ভর।

গ্যালাক্সি এস ৪ স্মার্টফোনটি হতে পারে ধাতব ও প্লাস্টিকের সমন্বয় সঙ্গে উন্নত ‘স্যামোলেড’ বা সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লে। গ্যালাক্সি এস ৪ এর সবচে উল্লেখযোগ্য বিষয় হবে- এর ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা। এ স্মার্টফোনটিতে এক সপ্তাহ পর্যন্ত টানা চার্জ থাকবে।

 

স্মার্টফোন যুদ্ধে এলজির ‘অপটিমাস জি’

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে ক্যামেরা চালানো যাবে সম্প্রতি এমন একটি স্মার্টফোন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এলজি। ১৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার নতুন হার্ডওয়্যারযুক্ত কোয়াড কোর প্রসেসরের স্মার্টফোন ‘অপটিমাস জি’ বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে এলজি।

প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, অ্যাপল, স্যামসাং ও নকিয়ার স্মার্টফোন বাজারের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের এতদিন এলজি তেমন কোনো প্রভাব বিস্তার করতে না পারলেও এবারে ‘অপটিমাস জি’ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে সক্ষম হবে।

১৪৫ গ্রাম ওজনের ‘অপটিমাস জি’তে রয়েছে ১.৫ গিগাহার্টজের কোয়াড-কোর স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর, ৪.৭ ইঞ্চি মাপের এইচডি ডিসপ্লে। আরো আছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা, ২ গিগাবাইট র‍্যাম ও চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক, এনএফসি সুবিধা। অপটিমাস জি চলবে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে।

চলতি মাসেই প্রথমে কোরিয়ার বাজারে আসবে এলজির অপটিমাস জি। এর পরপরই জাপান ও যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে আসবে অপটিমাস জি। স্মার্টফোনটির দাম হবে ৯০০ ডলার।

 

মটোরোলার ‘রেজর আই’

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

চিপনির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনটেলের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ‘রেজর আই’ নামে নতুন একটি স্মার্টফোন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে গুগলের স্মার্টফোন নির্মাতা ইউনিট মটোরোলা। ১৮ সেপ্টেম্বর এ স্মার্টফোন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর এ স্মার্টফোনটি ৪.৩ ইঞ্চি মাপের। এতে থাকছে এআরএম নির্ভর স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর।

‘রেজর আই’ প্রসঙ্গে মটোরোলা জানিয়েছে, ‘রেজর আই’ হচ্ছে- মটোরোলার তৈরি ইনটেলনির্ভর প্রসেসরে প্রথম স্মার্টফোন। এ স্মার্টফোনটিতে ২ গিগাহার্টজ গতির ইনটেল অ্যাটম চিপসেট ব্যবহূত হয়েছে। মটোরোলার এ স্মার্টফোনটির জন্য ইনটেল বিশেষভাবে ইমেজ সিগনাল প্রসেসর তৈরি করেছে যাতে ডিএসএলআরের চেয়েও দ্রুত ছবি তোলা যাবে। ইনটেল মোবাইল বিভাগের ব্যবস্থাপনা পরিচলাক এরিক রেইড জানিয়েছেন, অনেক সময় একসঙ্গে প্রচুর ছবি তোলার প্রয়োজন পড়তে পারে।

ইনটেলের চিপসেটযুক্ত ‘রেজর আই’ স্মার্টফোনটি বর্তমানে বাজারে থাকা অনেক ডিএসএলআর ক্যামেরার চেয়েও দ্রুত ছবি তুলতে সক্ষম হবে। এতে এক সেকেন্ডে ১০ টি ছবি তোলা সম্ভব হবে। পাশাপাশি ব্যাটারি চলে দীর্ঘক্ষণ। রেজর আই চলতি বছরের শেষ নাগাদ বাজারে আসবে। এর দাম বিষয়ে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি মটোরোলা কর্তৃপক্ষ।

 

উইন্ডোজনির্ভর ট্যাব, ফ্যাব, স্মার্টফোন আনছে হুয়াউয়ে

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

মাইক্রোসফটের তৈরি উইন্ডোজ ফোন অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর ট্যাবলেট, ফ্যাবলেট ও স্মার্টফোন বাজারে আনার পরিকল্পনা করেছে চীনের টেলিকম পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াউয়ে। চলতি বছরের শেষ নাগাদ হুয়াউয়ে ব্র্যান্ডের উইন্ডোজনির্ভর স্মার্টফোন বাজারে আসতে পারে।

হুয়াউয়ে টেকনোলজিস বর্তমানে বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম মুঠোফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। টেলিকম প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রযুক্তি পণ্যের বাজার দখলে উইন্ডোজনির্ভর স্মার্টফোন ব্যবসায় যাচ্ছে হুয়াউয়ে।

 

আসবে ‘আইপ্যাড মিনি’

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

১২ সেপ্টেম্বর হালকা-পাতলা আইফোন ৫ বাজারে আনার ঘোষণা দেওয়ার পর এবার আইপ্যাডের ছোট সংস্করণ ‘আইপ্যাড মিনি’ বাজারে আনতে পারে অ্যাপল।

চলতি বছরের অক্টোবর মাসে আইপ্যাড মিনির ঘোষণা দিতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। আইপ্যাড মিনি হতে পারে ৭ ইঞ্চি মাপের। রেটিনা ডিসপ্লের এ পণ্যটিতে বর্তমানে বাজারে থাকা আইপ্যাডের সব বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে। এর সঙ্গে যুক্ত হতে পারে দ্রুতগতির প্রসেসর ও এইচডি ক্যামেরাসুবিধা। বর্তমানে ৯.৭ ইঞ্চি মাপের আইপ্যাডের মতোই রেজ্যুলেশন হবে আইপ্যাড মিনির। দাম হতে পারে ২৫০ ডলার।

 

নমনীয় আইফোন আনবে অ্যাপল!

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

সম্প্রতি অ্যাপলের বাজারে আনা আইফোন ৫ প্রযুক্তি বিশ্বে নজর কাড়ার পর পরবর্তী আইফোন নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। নতুন ধরনের স্মার্টফোনের পর্দার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পেটেন্ট আদালতে আবেদন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

জানা গেছে, ভবিষ্যতে নমনীয় প্রযুক্তির আইফোন তৈরির জন্য পরিকল্পনা করছে অ্যাপল। অ্যাপলের পেটেন্ট আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, পরবর্তী প্রজন্মের আইফোন হবে নমনীয় প্রযুক্তির, যা সহজেই ভাঁজ করা যাবে। আইফোন ছাড়া অন্যান্য মোবাইল ডিভাইসের ক্ষেত্রেও এ ধরনের স্ক্রিন ব্যবহার করতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। এ স্ক্রিনটিতে স্পর্শ করা হলে স্পিকারের মতো শব্দ করতে পারবে। এ ছাড়া স্ক্রিনে স্পর্শ করলে বাটন অনুভব করা যাবে। পাশাপাশি স্ক্রিনটি কণ্ঠস্বর চেনার উপযোগী হবে।

 

নতুন ট্যাব নুক এইচডি

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

বার্নস অ্যান্ড নোবল ৭ ও ৯ ইঞ্চি মাপের নতুন দুটি নুক ট্যাবলেট বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে। নুক ট্যাবলেটের এ দুটি মডেলে থাকছে হাই ডেফিনেশন (এইচডি) সুবিধা। প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, বার্নস অ্যান্ড নোবলের নতুন দুটি ট্যাবলেট ওজনে হবে হালকা আর দামে সাশ্রয়ী। আমাজনের তৈরি কিন্ডল ফায়ার এইচডি ট্যাবলেটের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতেই নতুন ট্যাবলেট দুটির ঘোষণা দিয়েছে বার্নস অ্যান্ড নোবল।

১৬ গিগাবাইট তথ্য ধারণ ক্ষমতার ৯ ইঞ্চি মাপের নুক ট্যাবলেটের দাম পড়বে ২৬৯ ডলার আর ৩২ গিগাবাইট তথ্য ধারণ ক্ষমতার জন্য দাম পড়বে ২৯৯ ডলার। ৭ ইঞ্চি মাপের নুক ট্যাবলেটের দাম হবে ১৯৯ ডলার।

 

হিটাচি চিপে তথ্য থাকবে শত কোটি বছর

জেনে নিন September-October ’12 মৌসুমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তির পণ্যগুলো সম্পর্কে! (মেগা টিউন)

কোয়ার্টজ কাচে তথ্য সংরক্ষণের নতুন এক পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে জাপানের প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিটাচি। প্রতিষ্ঠানটির দাবি, এ পদ্ধতিতে লেখা তথ্য কয়েকশো কোটি বছরেও নষ্ট হবে না। ২৪ সেপ্টেম্বর তথ্য সংরক্ষণের এ পদ্ধতিটির ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। হিটাচি কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, কোয়ার্টজ কাচের ওপর লেখা ডিজিটাল তথ্য খুব বেশি তাপমাত্রা ও প্রতিকূল পরিবেশেও মুছবে না। তথ্যের কোনো বিকৃতি ছাড়াই কয়েকশো কোটি বছর টিকে থাকবে তথ্য।

এ প্রসঙ্গে হিটাচির গবেষক কাজুয়োশি তোরি জানিয়েছেন, ‘প্রতিদিন যে পরিমাণ তথ্য তৈরি হয় তা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য সংরক্ষণ করে রাখার মত কোন পদ্ধতি আমাদের হাতের নাগালে ছিল না। তাই তথ্য হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা ঝুঁকি বেড়ে গেছে। বর্তমানে তথ্য সংরক্ষণে ব্যবহূত সিডি ও হার্ডড্রাইভ দশ থেকে সর্বোচ্চ একশো বছর পর্যন্ত তথ্য সংরক্ষণ করতে সক্ষম। এছাড়া প্রযুক্তির উন্নয়নে তথ্য পড়ার জন্য ব্যবহূত হার্ডওয়্যারেও এসেছেদ্রুত পরিবর্তন। এ সব সমস্যার সমাধানেই হিটাচি বাইনারি পদ্ধতি ব্যবহার করে পাতলা কোয়ার্টজ কাচের ওপর তথ্য সংরক্ষণ করার পদ্ধতি তৈরি করেছে। এ পদ্ধতিতে দীর্ঘদিন সংরক্ষণের পাশাপাশি সহজে তথ্য পড়া যাবে ।

হিটাচির তৈরি করা প্রোটোটাইপ তথ্য সংরক্ষণযোগ্য চিপটির আকার মাত্র ২ সেন্টিমিটার এবং তা মাত্র ২ মিলিমিটার পুরু। হিটাচির দাবি, এ চিপটি রাসায়নিক বিক্রিয়ায় নষ্ট হয় না, রেডিও তরঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না, এক হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা সহনীয় এমনকি এটি পানিরোধী। সরকারি তথ্য, ধর্মীয় তথ্য ও জাদুঘরের বিভিন্ন তথ্য এ চিপটিতে সংরক্ষণ করে রাখা যাবে বলে জানিয়েছেন হিটাচির গবেষক তোরি।

কয়েকশো কোটি বছর ধরে তথ্য ধরে সংরক্ষণ উপযোগী এ চিপটি কবে নাগাদ বাজারে আসবে সে বিষয়ে অবশ্য কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি হিটাচি।

 

এই ছিল গত এক মাসে বাজারে আসা নতুন পণ্য ও পেটেন্ট। কেমন লাগলো জানাবেন।

আগামী মাসে আবার নতুন কিছু পণ্যের প্রতিবেদন নিয়ে হাজির হব। সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন আর অবশ্যই তথ্য প্রযুক্তির সঙ্গেই থাকুন! :)

সবাইকে ধন্যবাদ! :) :)

2 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ