সবার জন্য কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের কয়েকটি টিপস! (চতুর্থ পর্ব)

8
773

সবার কি খবর? শরীর স্বাস্থ্য ভালো তো?? :)

ধারাবাহিক পোষ্টের চতুর্থ পর্বে আপনাদের শুভেচ্ছা। গত তিনটি পর্বে আমি আপনাদের ইন্টারনেট ও কম্পিউটারের কিছু প্রয়োজনীয় ট্রিকস ও টিপস দেয়ার চেষ্টা করেছি। যারা দেখেন নি, তারা নিচের পোষ্ট গুলোতে একবার চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন –

সবার জন্য কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের কয়েকটি টিপস! (প্রথম পর্ব)

সবার জন্য কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের কয়েকটি টিপস! (দ্বিতীয় পর্ব)

সবার জন্য কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের কয়েকটি টিপস! (তৃতীয় পর্ব)

 

আজকে আমরা কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের ব্যবহার সহজ ও সুবিধাজনক করে নেয়ার জন্য আরো কিছু টিপস দেখে নেব। :)

 

সবার জন্য কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের কয়েকটি টিপস! (চতুর্থ পর্ব)

 

1. ইন্টারনেট ব্রাউজের ইতিহাস মুছে ফেলুন :

এক পিসি একাধিক ব্যক্তি ব্যবহার করলে ব্যক্তিগত কিছু তথ্য অনেকে জেনে যেতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে ইন্টারনেট ব্যবহার করার পর ব্রাউজার থেকে ইতিহাস মুছে ফেললে তার আর পরে কেউ দেখতে পাবে না। নির্দিষ্ট ব্রাউজারে গিয়েও ইতিহাসগুলো প্রতিবার ব্যবহার করে মুছে ফেলা যায়। তবে এ কাজটি করা যায় সফটওয়্যারের মাধ্যমেও।
সফটওয়্যারটির অটো ইরেজার অন করা থাকলে সহজে ব্যবহারের পর সব ইতিহাস স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যাবে। ৪১৭ কিলোবাইটের সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করা যাবে এই ঠিকানা থেকে।

 

2. সহজে WiFi অঞ্চল তৈরি করুন :

বর্তমানে অনেকেই বাসায় উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। ইচ্ছে করলে সেই ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে বাসা কিংবা অফিসে WiFi অঞ্চল বা জোন করে নিতে পারেন। এতে আপনার স্মার্টফোন, ট্যাবলেট কম্পিউটারে সহজে তারহীন WiFi নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন। এ জন্য মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৭ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ল্যাপটপ কম্পিউটার লাগবে।

এবার Start থেকে কন্ট্রোল প্যানেলে যান। এখানে Network and Sharing Center-এ ক্লিক করে নিচের চারটি অপশন থেকে Set up a New Connection or Network-এ ক্লিক করুন। যদি কাজটি ল্যাপটপ কম্পিউটারে করা হয় তবে শেষের Set up a wirless ad hoc (Computer-to-Computer) Network Select করে ক্লিক করতে হবে।
এবার যে উইন্ডোটি আসবে সেখানে নেটওয়ার্ক বক্সে যেকোনো একটি নাম যেটি WiFi নেটওয়ার্ক নেম হিসেবে ব্যবহূত হবে সেটি লিখুন। এ ক্ষেত্রে Security Type-এ চাইলে পাসওয়ার্ড দিতে পারেন। না চাইলে No authentication (Open) নির্বাচন করে Save this network বক্সে ক্লিক করে Next করুন। কিছুক্ষণ সময় নেওয়ার পর যে উইন্ডো আসবে সেখানে Turn on Internet Connection Sharing ক্লিক করে Close করুন।এবার মেনু বারের ডান দিকের Pop up Menu থেকে নেটওয়ার্কে ক্লিক করলে আপনার দেওয়া নামের নেটওয়ার্কটি দেখাবে। সেখানে Connect-এ ক্লিক করলে Connected লেখাটি দেখাবে। এরপরই আপনি WiFi ব্যবহার করতে পারবেন আপনার প্রিয় স্মার্টফোন বা অন্য কোনো যন্ত্রে। কেউ কম্পিউটারে এ কাজটি করতে চাইলে সেক্ষেত্রে আগে WiFi যন্ত্র লাগবে।

 

3. কম্পিউটার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হবে ঠিক সময়ে :

আপনি ইচ্ছে করলে সহজেই আপনার পিসি নির্ধারিত সময়ে বন্ধ (শাটডাউন) করে দিতে পারেন। এ জন্য সফটওয়্যারটি ইনস্টল করে ব্যবহার করার সময় কত মিনিট পর আপনার পিসি বন্ধ করতে চান, সেটা ঠিক করে দিতে হবে। চাইলে কাজটি ম্যানুয়ালিও করা যায়। এরপর Apply-এ ক্লিক করে দিলেই হবে। কাজটি করা যাবে অটো শাটডাউন নামক সফটওয়্যার দিয়ে। এ ছাড়া, নির্দিষ্ট তারিখ ও সময় দিয়েও কম্পিউটার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ করা সম্ভব। সফটওয়্যারটি ইনস্টলের পর আপনার উইন্ডোজের নিচে যেখানে ঘড়ির সময় দেখা যায়, তার বাঁ পাশে একটি আইকন দেখতে পাবেন। আইকনটিতে ক্লিক করলে সফটওয়্যারটি চালু হবে। ৯০২ কিলোবাইটের সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করা যাবে এই ঠিকানা থেকে।

 

4. Mozilla Firefox – কিছু শর্টকাট :

Mozilla Firefox ব্যবহারকারীরা বেশ কিছু ব্রাউজার শর্টকাট ব্যবহার করে ইন্টারনেট ব্যবহারকে আরও স্বচ্ছন্দময় ও দ্রুত করে তুলতে পারেন। আপনাদের জন্য তেমন কিছু শর্টকাট নিচে দেওয়া হলো—

সরাসরি ওয়েব লিখতে Ctrl + L

নতুন পৃষ্ঠা খুলতে Ctrl + N

নতুন ট্যাব খুলতে Ctrl + T

পরবর্তী ট্যাবে যেতে Ctrl + Tab

আগের ট্যাবে যেতে Ctrl + Shift + Tab

ট্যাব বন্ধ করার জন্য Ctrl + W

পেজ সেভ করতে Ctrl + S

পেজ রিলোড অথবা রিফ্রেশ করতে F5

স্ক্রিনজুড়ে ফায়ারফক্স দেখতে F11

হোম পেজে যেতে চাইলে Alt + Home

বুকমার্ক করতে চাইলে Ctrl + D

সরাসরি সার্চ বক্সে যেতে Ctrl + K

লেখাকে বড় করতে চাইলে Ctrl + =

লেখাকে ছোট করতে চাইলে Ctrl + –

পেজের নিচের দিকে আসতে চাইলে Spacebar

পেজের ওপরের দিকে আসতে চাইলে Shift + Spacebar

ওয়েব পেজে কোনো কিছু খুঁজতে চাইলে Ctrl + F

ব্রাউজিং হিস্টোরি দেখতে Ctrl+ H

ডাউনলোড লিস্ট দেখতে Ctrl+ J

কম্পিউটার থেকে কোনো ফাইল খুলতে Ctrl+ O

ওয়েব পেজ প্রিন্ট নিতে Ctrl+ P

পরের শব্দ খুঁজতে চাইলে Alt + N

 

স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওয়েব ঠিকানার আগে-পরে www.com বসাতে—

.com-এর ক্ষেত্রে Ctrl + Enter

.net-এর ক্ষেত্রে Shift + Enter

.org-এর ক্ষেত্রে Ctrl + Shift + Enter বসালেই হবে।

 

5. PSD থেকে HTML কনভার্ট করুন :

যাঁরা আউটসোর্সিংয়ে ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ করতে চান, তাঁরা শুরু করতে পারেন PSD থেকে HTML কনভার্ট কাজ দিয়ে। এ ধরনের কাজের জন্য আপনার HTML, CSS ও ফটোশপ সম্পর্কে ধারণা থাকলেই চলবে। যাঁরা HTML, CSS জানেন না, তবে শিখতে চান এবং শেখার পর কাজ শুরু করতে চান, তারা এই ঠিকানা থেকে HTML এবং এই ঠিকানা থেকে CSS শিখতে পারেন। এই সাইটে আপনি প্র্যাকটিস করারও সুযোগ পাবেন। HTML এবং CSS শেখার পর এই ঠিকানা থেকে দেখে নিতে পারেন, কীভাবে PSD Image বা Template কে ফটোশপ দিয়ে কেটে HTML এ কনভার্ট করা হয়। এই ঠিকানায় ২০টিরও বেশি টিউটোরিয়াল দেওয়া আছে। এগুলো দেখে যেভাবে আপনার কাছে সহজ মনে হয়, সেভাবে আপনি করতে পারেন। এই কাজগুলো শিখে কোনো আউটসোর্সিং সাইটে অ্যাকাউন্ট খুলে PSD থেকে HTMLকনভার্ট লিখে সার্চ দিলেই অনেক কাজ পাবেন। সেই কাজগুলো পড়ে আপনার পছন্দমতো আবেদন করুন।

 

6. ই-মেইলের পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে উদ্ধার করুন :

নানা কারণে অনেকেই নিজের ই-মেইল ঠিকানার পাসওয়ার্ড ভুলে যেতে পারেন। ইচ্ছে করলে ভুলে যাওয়া পাসওয়ার্ড পুনরায় উদ্ধার করা সম্ভব। এক্ষেত্রে কিছু পদ্ধতি রয়েছে।

  • ইয়াহুর ক্ষেত্রে : ইয়াহুতে ঢোকার (লগ-ইন) সময় যখন ঢুকতে পারবেন না তখন লগইন-এর নিচে I can’t access my account-এ ক্লিক করুন। নতুন পৃষ্ঠা এলে I have a problem with my password নির্বাচন করে Next-এ ক্লিক করুন। এরপর My Yahoo! ID is: এ আপনার ইয়াহু ই-মেইল ঠিকানা লিখে Type the code shown বক্সে নিচের কোডগুলো লিখে Next-এ ক্লিক করুন। নতুন পেইজ আসলে Send a message to my alternate email address:-এ আপনার বিকল্প ই-মেইল ঠিকানাটি লিখে Next-এ ক্লিক করুন। আপনার বিকল্প ই-মেইল ঠিকানায় একটি মেইল যাবে এবং সেই মেইলে একটি ওয়েব লিংক থাকবে। ওটায় ক্লিক করলে নতুন পাসওয়ার্ড চাইবে তখন নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার ই-মেইল ঠিকানা পুনরুদ্ধার করতে পারবেন। আপনার ই-মেইল ঠিকানায় যদি বিকল্প ই-মেইল না দেওয়া থাকে বা আপনার বিকল্প ই-মেইলের পাসওয়ার্ডও যদি ভুলে গিয়ে থাকেন তাহলে Send a message to my alternate email address:-এর নিচের অপশনটি Use my secret questions নির্বাচন করে Next-এ ক্লিক করুন। নতুন পৃষ্ঠা এলে আপনাকে দুটি প্রশ্ন করা হবে, যে প্রশ্নগুলো ই-মেইল ঠিকানা তৈরি করার সময় নির্বাচন করে দিয়েছিলেন। প্রশ্নগুলোর সঠিক উত্তর দিলেই নতুন পাসওয়ার্ড চাইবে তখন নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার ই-মেইল ঠিকানা পুনরুদ্ধার করতে পারবেন।
  • জিমেইলের ক্ষেত্রে: জিমেইলে ঢোকার (লগ-ইন) সময় যখন ঢুকতে পারবেন না তখন লগ-ইন-এর নিচে Can’t access your account?-এ ক্লিক করুন। নতুন পৃষ্ঠা এলে I don’t know my password নির্বাচন করে Email address বক্সে ই-মেইল ঠিকানা লিখে Continue-তে ক্লিক করুন। এখন কোড বক্সে ওপরের কোডগুলো লিখে Continue-এ ক্লিক করুন। নতুন পেইজ আসলে আপনার বিকল্প ই-মেইল ঠিকানার অপশনটি নির্বাচন করাই থাকবে, না থাকলে নির্বাচন করে Continue-এ ক্লিক করুন। আপনার বিকল্প ই-মেইল আইডিতে একটি মেইল যাবে এবং সেই মেইলে একটি লিংক থাকবে। ওই লিংকে ক্লিক করলে নতুন পাসওয়ার্ড চাইবে। তখন নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার ই-মেইল আইডি রিকভার করতে পারবেন। আপনার ই-মেইল আইডিতে যদি বিকল্প ই-মেইল না দেওয়া থাকে বা আপনার বিকল্প ই-মেইল ঠিকানার পাসওয়ার্ডও যদি ভুলে গিয়ে থাকেন তাহলে Answer my security question নির্বাচন করে Continue-এ ক্লিক করুন। নতুন পেইজ আসলে আপনাকে একটি প্রশ্ন করা হবে, যে প্রশ্নটি ই-মেইল ঠিকানা তৈরি করার সময় নির্বাচন করে দিয়েছিলেন। প্রশ্নটির সঠিক উত্তর দিলেই নতুন পাসওয়ার্ড চাইবে তখন নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার ই-মেইল আইডি রিকভার করতে পারবেন। প্রশ্নটির উত্তরও যদি ভুলে যান বা কেউ পরিবর্তন করে ফেলে তাহলে I can’t answer my security question নির্বাচন করে Continue-তে ক্লিক করুন। এখানে একটি ফরম পাবেন সেটি পূরণ করে Submit-এ ক্লিক করুন। ফরম পূরণ করার সময় সব প্রশ্নের উত্তর সঠিক দিয়ে থাকলে ২৪ ঘণ্টা পর আপনার অন্য ই-মেইল ঠিকানায় (যেটি ফরম পূরণ করার সময় দিয়েছেন) একটি মেইল যাবে এবং সেই মেইলে একটি লিংক থাকবে। ওই লিংকে ক্লিক করলে নতুন পাসওয়ার্ড চাইবে তখন নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার ই-মেইল আইডি রিকভার করতে পারবেন।

 

7. সফটওয়্যার পুরোপুরি আনইনস্টল করুন :

উইন্ডোজচালিত কম্পিউটারের নিজস্ব আনইনস্টলার দিয়ে আনইনস্টল করলে অনেক সময় সব সফটওয়্যার সম্পূর্ণ আনইনস্টল হয় না। সফটওয়্যারগুলোর কিছু অংশ কম্পিউটারের সিস্টেমে থেকে যেতে পারে এবং পরে অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ জন্য এখান থেকে একটি সফটওয়্যার ডাউনলোড করে ইনস্টল করুন এবং যেকোনো সফটওয়্যার পুরোপুরি আনইনস্টল করুন।

 

এই ছিল আজকের টিপস। আগামী পর্বে আবার নতুন কিছু টিপস নিয়ে আসার চেষ্টা করব। :)

সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন আর অবশ্যই প্রযুক্তির সাথে থাকুন। :)

সবাইকে ধন্যবাদ! :) :)

8 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ