***ফ্রিল্যান্সারের পর্যাপ্ত আয় না হওয়ার কারন***

6
350
ফ্রিল্যান্সার হিসেবে যথেস্ট পরিমান কাজ করেও একসময় দেখা যাচ্ছে আয় খুবই কম। বিষয়টি স্থানীয় ফ্রিল্যান্সিং বা অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং সব ক্ষেত্রেই ঘটে। অনেক ব্যবসা প্রতিস্ঠানও প্রচুর কাজ করার পর একসময় ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে ব্যবসা বন্ধ করে দেন। সফটঅয়্যার প্রতিস্ঠান থেকে শুরু করে ভিডিও নির্মাতা, উদাহরনের অভাব নেই।
আসলে এটা কেন ঘটে ? কাজ করলে সেখান থেকে আয় বা লাভ হওয়ার কথা। সেটা হচ্ছে না কেন ?
কারনগুলি জানা থাকলে এগুলি থেকে দুরে থাকা সম্ভব। এধরনের কিছু কারন তুলে ধরা হচ্ছে এখানে।

 

.সঠিক মুল ঠিক করতে না পারাঃ
কোন কাজের জন্য কি পরিমান অর্থ নেয়া যায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া সবসময়ই কঠিন। ফ্রিল্যান্সার বেশি টাকা চাইলে কাজ পাবেন না, কম টাকায় কাজ করলে অন্যান্য খরচ এবং সময়ের হিসেবে লাভ থাকে না। অনেক সময় কাজ পাওয়ার জন্য একেবারে কম টাকায় কাজ করতে হয়। সেইসাথে কাজ করার পর টাকা না পাওয়ার ঘটনা তো আছেই।
এই সমস্যার সমাধানের জন্য একসময় আগের কাজগুলির পর্যালোচনা করুন। কোন কাজের মজুরী কত হওয়া উচিত ছিল সেটা বিশ্লেষন করুন। নিজের একটি রেট ঠিক করুন।
.খরচের হিসেব না রাখাঃ
অনেক সময়ই কাজের মুল্য ঠিক করার সময় খরচের হিসেব বাদ থেকে যায়। টেলিফোনের খরচ, ইন্টারনেট খরচ, কম্পিউটার এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতির অবচয়. সফটঅয়্যার এগুলি খরচ। এছাড়া অন্য কাউকে দিয়ে কিছু করাতে হলে সেটাও খরচের সাথে যোগ হয়। কারো বিজনেস কার্ড ছেপে দেয়ার সময় হয়ত প্রেসের খরচ, কাগজের দাম ইত্যাদি হিসেব করলেন, এজন্য যাতায়াত খরচ হিসেব করলেন না। এরফলে লাভের বদলে অতিরিক্ত খরচ হতে পারে।
সঠিক দরদাম না করা
কেউ দরদাম করতে পছন্দ করেন, কেউ করেন না। অনেকে একেবারেই অপছন্দ করেন। ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করার সময় একাজটা করতেই হয়। অনেক ফ্রিল্যান্সার মনে করেন তিনি কাজ ঠিকমত করেছেন, ক্লায়েন্ট ঠিকমত টাকা দেবেন। ফল হয় উল্টো। অনেকেই মনে করেন না চাওয়া পর্যন্ত টাকা দেবেন না, কেউ কেউ বাধ্য না হওয়া পর্যন্ত টাকা দেবেন না।
শুনতে যত খারাপই লাগুক, ফ্রিল্যান্সারকে নিজের প্রাপ্য বুঝে নিতে ক্ষেত্রবিশেষে অভদ্র আচরন করতে হয়।
.বাকি বিষয়কে সহজভাবে দেখাঃ
প্রবাদ আছে বাকি মানে ফাকি। ফ্রিল্যান্সারের সমস্যা হচ্ছে একবার কাজ করার পর বাকি থাকলে তিনি তারসাথে সম্পর্কচ্ছেদ করতে পারেন না। একদিকে বাকি টাকা পাওয়ার বিষয় অন্যদিকে নতুন কাজ না পাওয়ার বিষয়। ফল হিসেবে ক্রমশ বাকির পরিমান বাড়তে থাকে।
বর্তমান সময়ের জন্য একথা মাথায় গেথে রাখুন, বাকি জমা করবেন না। বাকি রেখে নতুন কাজে হাত দেবেন না। অন্তত এই বিষয়ে ক্লায়েন্টকে অবিশ্বাস করুন।
যে কারনগুলি এখানে উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলির জন্য ফ্রিল্যান্সার প্রত্যক্ষভাবে দায়ী নন। ইংরেজিতে যাকে পারফেক্ট ওয়ার্ল্ড বলে সেই হিসেবে এই সমস্যাগুলি থাকার কথা না। তারপরও এগুলি অতিমাত্রায় বিদ্যমান। একজন ভুল করলে তিনি নিজে যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হন তিমনি অন্য যারা কাজ করেন তাদের জন্যও সমস্যা তৈরী করেন।
শেষফল, কাজ করার পরও আয়ের হিসেবে কিছু জমা না হওয়া।
****যদি আপনাদের কারোর কাছে windows 7 HP OEM version থাকে তাহলে আমাকে দয়া করে লিঙ্ক দিন ।****

6 মন্তব্য

  1. যারা ফ্রিল্যান্সার দেখলে মুখ ভেঙ্গচায় তারা আসলেই জানেনা একজন ফ্রিল্যান্সার কত কষ্ট করে টাকা রোজগার করে।গঠনমূলক আলোচনা করেছেন ভাই।অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে।

একটি উত্তর ত্যাগ